২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, দুর্গাপুর: গ্যাস উৎপাদনকারী সংস্থার সঙ্গে ট্যাঙ্কার চালকদের বিবাদে বন্ধ গ্যাস সরবরাহ। বিপাকে শহরের সাড়ে তিন হাজারের বেশি অটোচালক। বুধবার দিনভর দুর্গাপুরে অবরোধ-বিক্ষোভে নাকাল হতে হল সাধারণ মানুষকে। শেষপর্যন্ত প্রশাসনের তরফে দু’দিনের মধ্যে গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক করার প্রতিশ্রুতি পেয়ে আন্দোলন প্রত্যাহার করে নেন অটো চালকরা।

[আরও পড়ুন: টিএমসিপি-এবিভিপি সংঘর্ষে রণক্ষেত্র পটাশপুরের পালপাড়া কলেজ, আহত ৪]

পেট্রল কিংবা ডিজেল নয়, এখন অটো চলে সিএনজি গ্যাসে। কিন্তু গত ২৭ জুন থেকে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ দুর্গাপুরে। কারণ গ্যাস উৎপাদনকারী সংস্থার সঙ্গে ট্যাঙ্কার চালকদের বিবাদ। শহরের অটো চালকদের দাবি, আসানসোলে পাওয়া গেলেও, স্রেফ ট্যাঙ্কারের অভাবে গ্যাস আসছে না দুর্গাপুরে। ফলে রুটি-রুজিতে টান পড়েছে সাড়ে তিন হাজারে বেশি অটো চালকের। বুধবার সকাল থেকে দুর্গাপুরের প্রাণকেন্দ্র সিটি সেন্টারের পাঁচটি জায়গায় অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তাঁরা। অবরোধ চলে দুই নম্বর জাতীয় সড়কের সার্ভিস রোডেও। চরম ভোগান্তিতে পড়েন সাধারণ মানুষ। বিকেলের পর কার্যত অঘোষিত বনধের চেহারা নেয় দুর্গাপুর। এদিকে আবার শহরকে সচল করার দাবিতে দুর্গাপুরে মহকুমা শাসকের দপ্তরের সামনে পালটা বিক্ষোভ দেখায় তৃণমূল কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠন আইএনটিটিইউসি। কিন্তু, তাতে কোনও লাভ হয়নি। উলটে অটো চালকদের বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয় শাসকদলের শ্রমিক সংগঠনের নেতাদের। 

বুধবার সন্ধ্যায় আন্দোলনরত অটো চালকদের সঙ্গে কথা বলেন দুর্গাপুর পুরনিগমের কাউন্সিলর ও পুলিশের পদস্থ আধিকারিকরা। দুই দিনের মধ্যে শহরে গ্যাস সরবরাহ করার প্রতিশ্রুতি দেন তাঁরা। এরপরই আন্দোলন প্রত্যাহার করে নেন দুর্গাপুরের অটো চালকরা। এদিকে দুর্গাপুরে গ্যাস সংকট মেটাতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন আসানসোলের সাংসদ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। তাঁর বক্তব্য,  ‘সংসদের অধিবেশন চলছে তাই আমি আসানসোলে নেই।  আমাকে কেউ সমস্যার কথা জানায়নি। জানালে সর্বতোভাবে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করতাম।’

ছবি: উদয়ন গুহরায়

[ আরও পড়ুন: পঞ্চায়েত অফিসে কাটমানি পোস্টার উপপ্রধানের বিরুদ্ধে, হৃদরোগে আক্রান্ত অভিযুক্ত নেতা]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং