BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ভিনরাজ্যে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ, মাথা নেড়া করে অত্যাচার, বসিরহাট থানায় অভিযোগ কিশোরীর

Published by: Sayani Sen |    Posted: September 4, 2020 1:59 pm|    Updated: September 4, 2020 1:59 pm

An Images

ছবি: প্রতীকী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কাজের টোপ দিয়ে নাবালিকাকে অন্ধ্রপ্রদেশে নিয়ে গিয়ে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠল এক প্রতিবেশী যুবকের বিরুদ্ধে। ঘটনা জানাজানি হলে ওই কিশোরীকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দেওয়া হয়। এছাড়াও ওই কিশোরীকে নানাভাবে মানসিক এবং শারীরিকভাবে নির্যাতন করা হয় বলেও অভিযোগ। বেশ কয়েকমাস অত্যাচার সহ্য করার পর কোনওক্রমে পালিয়ে এসে বসিরহাট (Basirhat) থানার দ্বারস্থ ওই কিশোরী।

সাদ্দাম গাজি নামে অভিযুক্ত ওই যুবক ঠিকাদারি কাজের সঙ্গে যুক্ত। প্রতিবেশী হওয়ার সুবাদে কিশোরীর পরিবারের সঙ্গে সাদ্দামের সম্পর্ক বেশ ভাল। এদিকে দিন আনি দিন খাই পরিস্থিতি কিশোরীর পরিবারের। এই অবস্থায় কিশোরীকে চাকরির প্রলোভন দেয় অভিযুক্ত। ঘটনার সূত্রপাত চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে। সেই মাসে কিশোরীকে অন্ধ্রপ্রদেশে নিয়ে যায় সে। বেশ কয়েকদিন কেটে গেলেও কাজ দেওয়া হয়নি কিশোরীকে। অভিযোগ, এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের দিন থেকেই কিশোরীকে ধর্ষণ করতে শুরু করে সাদ্দাম। কেউ এ বিষয়ে জানতে পারলে কিশোরীকে খুন করারও হুমকি দেয় ওই যুবক। কিশোরীর আরও অভিযোগ, লোকলজ্জার ভয়ে যাতে বাড়ি থেকে বেরতে না পারে তাই তার মাথাও নেড়া করে দেয় সাদ্দাম। এভাবেই মাসের পর মাস চলতে থাকে অত্যাচার।

[আরও পড়ুন: দীর্ঘক্ষণ নিখোঁজ থাকার পর উদ্ধার যুব তৃণমূল কর্মীর দেহ, খুনের অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে]

ইতিমধ্যেই গোটা দেশজুড়ে লকডাউন (Lockdown) হয়ে যায়। অন্য রাজ্যে আটকে পড়ায় কিছুতেই বাড়িতে ফিরতে পারছিল না সে। তবে বাড়িতে ফোন করে গোটা ঘটনাটি জানায় সে। আগস্টে অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে বসিরহাটে নিজের বাড়িতে পালিয়ে আসে ওই কিশোরী। তবে একমাস কেটে গেলেও থানায় যাওয়ার সাহস পায়নি সে। এরপর বৃহস্পতিবার সাহস সঞ্চয় করে থানায় যায় সে। সাদ্দামের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ জানায়। অভিযুক্তের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন নির্যাতিতা কিশোরীর পরিজনেরা। এই ঘটনার নেপথ্যে ভিনরাজ্যে নারী পাচার চক্রের কোনও যোগসাজশ রয়েছে কিনা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। 

[আরও পড়ুন: বিশ্বভারতীর পাঁচিলকাণ্ডের নেপথ্যে টেন্ডার জট, তদন্তের পর দাবি ED আধিকারিকদের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement