BREAKING NEWS

০৫ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  রবিবার ২২ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

কিশোরী কন্যাকে নিয়ে ছ’মাস গৃহবন্দি মহিলা! চাঞ্চল্য সিউড়িতে

Published by: Tanumoy Ghosal |    Posted: September 29, 2018 8:40 pm|    Updated: September 29, 2018 8:54 pm

Birbhum: woman locks herself in room with her daughter in Suri

নন্দন দত্ত, সিউড়ি: সন্তানকে কেউ কেড়ে নিতে পারে। গত ছ’মাস ধরে মেয়েকে নিয়ে নিজেকে গৃহবন্দি করে রেখেছিলেন এক মহিলা। শনিবার সকালে যখন পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে তালা ভেঙে ঘরে ঢোকেন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যরা, তখনও মেয়েকে আঁকড়েই বিছানা শুয়েছিলেন তিনি। মা ও মেয়েকে উদ্ধার করে চাইল্ড লাইনে পাঠিয়েছে পুলিশ। কিন্তু, কাকে এত ভয় পাচ্ছেন? কে তাঁর মেয়েকে কেড়ে নিতে পারে? তা নিয়ে মুখ খোলেননি ওই মহিলা। তাঁর কাতর আরজি, ‘আমি অসুস্থ। আমাকে কেউ বিরক্ত করবেন না।’ ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের সিউড়িতে।

[ক্লাস চলাকালীন ছাত্রীর শ্লীলতাহানি, অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক]

ওই মহিলার নাম চামেলী রায়। পেশায় তিনি নার্স। চাকরি করেন বীরভূমেরই মহম্মদবাজার ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। সিউড়ির প্যাটেলনগরে সরকারি আবাসনে দশ বছরের শীর্ষাকে নিয়ে একাই থাকেন চামেলীদেবী। কিন্তু গত ছ’মাসে মা-মেয়েকে বাড়ির বাইরে বেরোতে দেখেননি স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁদের বক্তব্য, প্রথম থেকেই কম কথা বলতেন চামেলীদেবী। পাড়ায়ও খুব একটা মিশতেন না। তবে পথঘাটে বেরোতেন। তাঁর মেয়ে শীর্ষাও স্কুলেও যেত। কিন্তু, গত ছ’মাস ধরে মেয়েকে নিয়ে নিজেকে ঘরবন্দি করে রেখেছেন চামেলীদেবী। বাইরে বেরোনো তো দূর, ঘরের দরজা-জানলা পর্যন্ত খোলেন না তিনি। এমনকী, স্বাস্থ্যকেন্দ্রেও আর যান না ওই মহিলা। ফলে ছ’মাস ধরে বেতনও বন্ধ। বিল জমা না পড়ায় বাড়ির বিদ্যুতে লাইন কেটে দিয়েছে বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থা। দিনরাত অন্ধকার বাড়িতে কী করেন চামেলীদেবী ও তাঁর মেয়ে শীর্ষা? বাডিতে কী আদৌও রান্নাবান্না হয়? কেনই বা মা ও মেয়ে ঘরবন্দি? সন্দেহ হয়েছিল স্থানীয় বাসিন্দাদের। এলাকার অনেকেই ঘরে উঁকি মেরে দেখারও চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু, কোনও সাড়াশব্দ পাওয়া যায়নি।

শনিবার সিউড়ি থানার পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেন শহরের প্যাটেলনগরের বাসিন্দারা। স্থানীয় একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সাহায্য ঘরের দরজা ভেঙে চামেলী রায় ও তাঁর মেয়ে শীর্ষাকে উদ্ধার করে পুলিশ। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন ধরেই দরজা বন্ধ। ঘরময় গুমোট গন্ধ। মেঝেতে ধুলোর আস্তরণ। বিছানায় মেয়ে আঁকড়ে শুয়েছিলেন চামেলীদেবী। পুলিশ ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যদের বারবারই বলছিলেন, তিনি অসুস্থ। তাঁকে যেন কেউ বিরক্ত না করেন।  আপাতত মা ও মেয়ে উদ্ধার করে সিউড়ি চাইল্ড লাইনে পাঠিয়েছে পুলিশ। বীরভূমের মহম্মদবাজার ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের আধিকারিক সুরাইয়া খাতুন জানিয়েছেন, চামেলী রায় তার স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কর্মী। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে আসেন না তিনি। মেয়েকে নিয়ে দরজা-জানলা বন্ধ করে ঘরে থাকেন চামেলীদেবী। সম্ভবত মানসিক ভারসাম্য হারিয়েছেন তিনি। তাঁকে সুস্থ করে তোলার সবরকম চেষ্টা করা হবে।

ছবি: বাসুদেব ঘোষ

[ প্রসব করছে সাপ! আলিপুরদুয়ারে উদ্ধার বিরল প্রজাতির ‘গ্রিন পিট ভাইপার’]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে