২৮ ভাদ্র  ১৪২৬  রবিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

বিক্রম রায়, কোচবিহার: ভোটপর্ব মিটলেও এখনও থমথমে কোচবিহার। শুক্রবার সকালেও পুনর্নির্বাচনের দাবিতে রিটার্নিং অফিসারের দ্বারস্থ হয়েছেন বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক। এদিনও প্রকাশ্যে এসছে রাজনৈতিক সংঘর্ষের ঘটনা। কোচবিহারের বলরামপুর এলাকায় তির বিদ্ধ হয়েছে এক বিজেপি কর্মী। আক্রান্ত হয়েছেন ওই এলাকারই আরও ২ জন। অন্যদিকে, মাথাভাঙায় তৃণমূল কার্যালয়ে ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে। ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে স্থানীয়দের মধ্যে। অন্যদিকে, পুনর্নির্বাচনের দাবিতে নির্বাচন কমিশনের দপ্তরের বাইরে বিক্ষোভে সামিল বিজেপি নেতৃত্ব। এদিন বিকেলে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েও একই দাবি করেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়। সেইসঙ্গে পরবর্তী সব দফায় সব বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর রাখার দাবি জানান বিজেপি নেতা। 

[আরও পড়ুন: সুপ্রিম নির্দেশে ২৪ ঘণ্টার জন্য বাঁকুড়ায় ঢোকার অনুমতি পেলেন সৌমিত্র খাঁ]

বৃহস্পতিবারই উত্তরবঙ্গের কোচবিহার ও আলিপুরদুয়ার লোকসভা কেন্দ্রে নির্বাচন হয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই কোচবিহার পলিটেকনিক কলেজে স্ট্রং রুমে ইভিএম পৌঁছে গিয়েছে। নিরাপত্তার স্বার্থে সেখানে মোতায়েন করা হয়েছে ১ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী।  তবে শুক্রবারও পুনর্নির্বাচনের দাবিতে সরব বিজেপি। বৃহস্পতিবার রাতের পর  শুক্রবার সকালে ফের রিটার্নিং অফিসারের সঙ্গে দেখা করে পুননির্বাচনের দাবি জানান বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক-সহ বিজেপি নেতৃত্ব। তাঁদের দাবি, ১৬৬ টি বুথে পুনর্নির্বাচন করা হোক। এ প্রসঙ্গে রিটার্নিং অফিসার জানিয়েছেন, স্ক্রটিনি শেষেই এ বিষয়ে যা জানানোর, জানানো হবে৷ একই দাবিতে, নির্বাচন কমিশনের দপ্তরে বাইরে বিক্ষোভে সামিল বিজেপি নেতৃত্ব। সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েও একই দাবি জানান মুকুল রায়। পরবর্তী ছ’দফায় প্রতি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর দাবি জানান তিনি। 

[আরও পড়ুন: ভোটে আগ্রহ নেই নারায়ণগড়ের বিস্ফোরণে মৃত দুই যুবকের পরিবারের]

 উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাত থেকে কোচবিহারে লোকসভা কেন্দ্রের বিভিন্ন এলাকায় আক্রান্ত হয়েছেন বিজেপি কর্মীরা। জানা গিয়েছে, উজ্জ্বল পাল নামে বলরামপুরের এক ব্যক্তি তিরবিদ্ধ হয়েছেন। বিজেপি কর্মীদের অভিযোগ, তৃণমূল কর্মী, সমর্থকরাই এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত। এমনকী ওই এলাকার আরও ২ জন বিজেপি কর্মীকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠেছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। অন্যদিকে, বিজেপির বিরুদ্ধে পালটা অভিযোগ এনেছে তৃণমূল নেতৃত্ব। তাঁদের অভিযোগ, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে মাথাভাঙায় তৃণমূল কার্যালয়ে ভাঙচুর চালিয়েছে বিজেপি কর্মীরা। যদিও নিজেদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছে দু’পক্ষই। 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং