BREAKING NEWS

৮ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  বুধবার ২৫ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

গরুপাচার কাণ্ডে জড়িত কয়লা ‘মাফিয়া’ লালা! আঁচ পেয়েই তদন্ত করতে চায় সিবিআই

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: November 16, 2020 6:59 pm|    Updated: November 16, 2020 6:59 pm

An Images

সুব্রত বিশ্বাস: গরুপাচার কাণ্ডে উত্তাল বাংলার রাজনীতি। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিরোধীদের কাছে প্রচারের হাতিয়ার হয়ে উঠেছে এনামুলের দলবলের কীর্তি ও ‘কয়লা মাফিয়া’ লালার তাণ্ডব। এহেন পরিস্থিতিতে এবার এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের (ED) পর আসরে নেমেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই (CBI)।

[আরও পড়ুন: কালীপুজোর জলসায় মহিলাদের কটূক্তির প্রতিবাদ, আক্রান্ত ২ যুবক, গুলি ও বোমায় উত্তাল কাঁকিনাড়া]

সূত্রের খবর, গরুপাচারকারী এনামুলের দলের সঙ্গে কুখ্যাত কয়লা মাফিয়া ‘লালা’ ওরফে অনুপ মাজির যোগাযোগ পেয়েছে সিবিআই। এ নিয়ে ED’র তদন্ত চললেও সমান্তরাল তদন্ত চালানোর কথা ভাবছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাটি। এর জন্য সারদা কাণ্ডের তদন্তে যুক্ত আধিকারিকদের দিল্লিতে তলব করেছে সিবিআই। জানা গিয়েছে, কয়লা কাণ্ডে আয়কর দপ্তরের কাছ থেকে তদন্তের ভার নিতে চায় সিবিআই। সম্প্রতি, আয়কর দপ্তর কয়লা কাণ্ডে যুক্ত অনুপ মাজি ওরফে লালা ও বেশ কিছু ব্যবসায়ীর কলকাতা, আসানসোলের বাড়ি ও অফিসে তল্লাশি চালিয়ে বেশ কিছু নথি পেয়েছে। নথির ভিত্তিতে তারা জেনেছে, রাজ্যের ভিতর গরুপাচারে যুক্ত ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কয়লা ব্যবসায়ীদের যোগ রয়েছে। উভয় পক্ষই রাজ্যের বেশ কিছু প্রভাবশালীদের সঙ্গে সখ্য রেখে নানা বেআইনি কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। বেশ কিছু ব্যবসায়িক সম্প্রতি নোটিস পাঠিয়েছে সিবিআই। সামনের বছর রাজ্যে ভোট, তার আগে এই পরিস্থিতিতে আগেই ক্ষোভ জানিয়ে ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার কয়লা কাণ্ডের তদন্ত হাতে নিতে চলেছে সিবিআই।

উল্লেখ্য, বিরোধী রাজ্যগুলিতে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলি অতি মাত্রায় সক্রিয়, এমন অভিযোগে বারবার সরব হয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এক্ষেত্রে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বৈষম্যমূলক আচরণের অভিযোগ তুলেছেন তিনি। এসবের মধ্যেই গত সপ্তাহে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর দু’দিনের রাজ্য সফর চলাকালীন আসানসোল শিল্পাঞ্চলের বেশ কয়েকজন কয়লা ব্যবসায়ীর বাড়ি এবং কার্যালয় অভিযান চালায় আয়কর দপ্তর। কলকাতায় চলে সিবিআই তল্লাশি। এসব নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী কিঞ্চিৎ ক্ষুণ্ণ হয়েছিলেন। ওইদিন নবান্নের প্রশাসনিক বৈঠক থেকে প্রশ্ন তুলেছিলেন, রাজ্য পুলিশকে অন্ধকারে রেখে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে অভিযান চালাচ্ছে কেন্দ্রীয় সংস্থা, এটা কেন? এরপর অমিত শাহও সাংবাদিক সম্মেলনে পালটা মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে বলেন, ”ওনার সঙ্গে লালার কী সম্পর্ক? কেন উনি বাঁচাতে চাইছেন, তা স্পষ্ট করে বলুন।” তারপরই এই ‘লালা’ ওরফে অনুপ মাজিকে নিয়ে আলোচনা শুরু হয় বিভিন্ন মহলে।

[আরও পড়ুন: মাদুরাইয়ে ISIS-এর ছায়া! প্রকাশ্যে ব্যক্তির মুন্ডু কেটে চার্চের বাইরে ফেলল দুষ্কৃতীরা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement