১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

কেন্দ্রীয় বাহিনীর সহযোগিতা, নির্বিঘ্নে ভোট দিলেন বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ভোটাররা

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: April 29, 2019 9:02 pm|    Updated: April 29, 2019 9:02 pm

An Images

নন্দন দত্ত, সিউড়ি:  বিক্ষিপ্ত অশান্তির মাঝেই শেষ হল চতুর্থ দফার নির্বাচন। তবে লড়াই-সংঘর্ষের মাঝে অন্যরকম ছবি দেখা গেল বীরভূমের বেশ কিছু বুথে। কমিশনের নির্দেশ অনুযায়ী কেন্দ্রীয় বাহিনীর সহায়তায় ভোটকেন্দ্রে গিয়ে নিজের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করলেন বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ভোটাররা। কেন্দ্রীয় বাহিনীর কাজে খুশি কমিশন ও স্থানীয়রা।

[আরও পড়ুন: ভাটপাড়ার বিজেপি প্রার্থী অর্জুনপুত্র পবনের গাড়ি ভাঙচুর, কাঠগড়ায় তৃণমূল]

লোকসভা নির্বাচন অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করার জন্য প্রথম থেকেই কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে কমিশন। দফায় দফায় রাজ্যের স্পর্শকাতর এলাকা গুলি পরিদর্শন করেছে কমিশনের আধিকারিকেরা। যাতে প্রতিটি মানুষ গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করতে পারে সেই কারণে আংশিক বিশেষভাবে সক্ষম ভোটারদের জন্য বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছিল কমিশন। সরকারি তথ্যের ভিত্তিতে বীরভূমের ২১ হাজার ২৮১ জনকে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ভোটারকে চিহ্নিত করা হয়। তাঁদের জন্য বিশেষ আয়োজন করা হয় কমিশনের তরফে। বিশেষ নির্দেশ দেওয়া হয় বাহিনীকে। সেই নির্দেশ মেনেই  এদিন ভোটপর্বে ট্রাই সাইকেলে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন বেশ কয়েকজন ভোটারকে ভোটকেন্দ্রে পৌঁছে দিলেন জওয়ানরা। সোমবার দিনভর এই ছবি দেখা যায় বীরভূম লোকসভা আসনের বিভিন্ন বুথে। এর পাশাপাশি, কোথাও আবার নিজের তাগিদেই ট্রাই সাইকেল নিয়ে ভোটকেন্দ্রে হাজির হয়েছিলেন কেউ।  জানা গিয়েছে, তাঁদের প্রত্যেকের জন্য ভোটকেন্দ্রের ভিতরেও বিশেষ সুযোগ সুবিধা পান তাঁরা।  মোটের উপর ভাল কাটলেও এদিন ভোট দিতে গিয়ে মৃত্যু হয় এক প্রৌঢ়ের। 

[আরও পড়ুন: এগিয়ে থেকেও পিছিয়ে গেলেন, ভোটের দিন শেষবেলায় উদয় মুনমুনের]

কেন্দ্রীয় বাহিনীর এই ভূমিকা ও মানুষের এই উৎসাহে খুশি নির্বাচন কমিশন। বাহিনীর উপস্থিতিতে বীরভূমের মতো জায়গায় পরিকল্পনা মাফিক ভোটগ্রহণকে বাহিনীর সাফল্য বলে মনে করছে কমিশন। প্রসঙ্গত, কমিশনের নির্দেশ অনুযায়ী ভোটের বেশ কিছুদিন আগে থেকেই বিশেষ চাহিদা সম্পন্নদের জন্য বিশেষ আয়োজনের ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু সেই প্রস্তুতি খতিয়ে দেখতে গিয়ে খামতির অভিযোগ তুলেছিলেন পর্যবেক্ষকেরা। তা নিয়ে বেশ দুশ্চিন্তায় ছিল কমিশন। কিন্তু এদিন ভোট পর্ব মেটার পর স্বস্তিতে কমিশন।

ছবি: শান্তনু দাস

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement