BREAKING NEWS

২৭ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

লেগিংস বিতর্কের জের, বোলপুরের স্কুলের প্রিন্সিপালকে জিজ্ঞাসাবাদ তদন্ত কমিটির

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: November 20, 2019 4:02 pm|    Updated: November 20, 2019 4:03 pm

An Images

ভাস্কর মুখোপাধ্যায়, বোলপুর: পোশাক বিধির দোহাই দিয়ে ছাত্রীদের লেগিংস খুলে রাখার ঘটনায় মঙ্গলবার উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল বোলপুর। তদন্তের স্বার্থে তড়িঘড়ি তিন সদস্যদের কমিটি গঠন করেন জেলাশাসক। তদন্তের জন্য বুধবার সেই কমিটির সদস্যরাই পৌঁছলেন বোলপুরের সেই বেসরকারি স্কুলে।

জেলাশাসক মৌমিতা গোদারার তৈরি করা এই তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন জেলা শিশু সুরক্ষা আধিকারিক নিরুপম সিনহা, চাইল্ড ওয়েলফেয়ার কমিটির চেয়ারপার্সন শাশ্বতী সাহা। বুধবার তদন্তে গিয়ে প্রথমেই স্কুলের প্রিন্সিপালকে দীর্ঘক্ষণ জেরা করেন কমিটির সদস্যরা। কথা বলেন স্কুলের একাধিক শ্রেণি শিক্ষিকার সঙ্গে। বিশেষ করে যাঁরা সোমবার স্কুলের বিভিন্ন ক্লাসের পড়ুয়াদের ‘শাস্তি’ হিসাবে লেগিংস খুলে ফেলতে বাধ্য করেছিলেন তাঁদের সঙ্গে কথা বলেন কমিটির সদস্যরা। 

এদিন সকালে তদন্তকারী দলের প্রতিনিধিরা স্কুলে গেলে প্রথমে তাঁদের দীর্ঘক্ষণ গেটের সামনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয় বলে অভিযোগ। বেশ কিছুক্ষণ পরে গেট খুলে দিলে তাঁরা বিদ্যালয়ের ভিতরে ঢোকেন। পরে স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেন। প্রসঙ্গত, শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় মঙ্গলবারই এই ঘটনার নিন্দা করে জেলা প্রশাসনের কাছে তদন্ত রিপোর্ট তলব করেছেন। জানা গিয়েছে, সোমবারের ঘটনার জেরে এক পড়ুয়া অসুস্থ হয়ে পড়েছে। এই বিষয়ে জেলা শিশু সুরক্ষা আধিকারিক নিরুপম সিনহা বলেন, তাঁরা স্কুলে এসে গোটা বিষয়টি ।  জেলাশাসককে রিপোর্ট দেবেন।

আরও পড়ুন: শাসকদলের উদ্বেগ বাড়িয়ে বাংলার সব আসনে প্রার্থী দিতে চলেছে ওয়েইসির দল

সোমবার পোশাক বিধির নামে ছাত্রীদের লেগিংস খুলে রাখার ঘটনা ঘটে বোলপুরের একটি নামী বেসরকারি স্কুলে। অভিযোগ, প্রিন্সিপ্যালের নির্দেশেই শাস্তির নামে ওই কো-এড স্কুলের কয়েকজন ছাত্রীকে লেগিংস খুলে ক্লাস করতে বাধ্য করা হয়। পোশাক বিধি নিয়ে বিতর্কের ঘটনায় অভিভাবকদের বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে ওঠে বোলপুর-শান্তিনিকেতন। অভিভাবকরা শান্তিনিকেতন থানায় অভিযোগ জানাতে গেলে ওসির উপস্থিতিতে ক্ষমাও চেয়ে নিয়েছিলেন প্রিন্সিপাল। 

[আরও পড়ুন: ‘বিজেপির সবচেয়ে বড় দালাল’, নাম না করে ওয়েইসিকে তোপ মুখ্যমন্ত্রীর]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement