২২ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  সোমবার ৯ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুব্রত বিশ্বাস: সাতসকালে শিয়ালদহ-নৈহাটি শাখার টিটাগড়ের কাছে রেললাইনে ফাটল। প্রায় ঘণ্টা দেড়েকের জন্য বন্ধ হয়ে রইল ট্রেন চলাচল। যার জেরে দিনের অন্যতম ব্যস্ত সময়ে ভোগান্তির মুখে পড়লেন নিত্যযাত্রীরা। পরে ইঞ্জিনিয়ারদের সহায়তায় তা মেরামতির পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।
বৃহস্পতিবার সকালে টিটাগড়ের কাছে ডাউন লাইনে রেলট্র্যাকের উপর ফাটলটি প্রথম চোখে পড়ে নিত্যযাত্রীদের। তাঁরাই এটি স্টেশন কর্তৃপক্ষের নজরে আনেন। স্টেশন মাস্টার বারাকপুরের কন্ট্রোল কেবিনে খবর পাঠান। সেখান থেকেই প্রাথমিকভাবে ট্রেন চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হয়। সেসময় ডাউন লাইন দিয়ে কৃষ্ণনগর লোকাল যাচ্ছিল শিয়ালদহের দিকে। সেটি দাঁড় করিয়ে দেওয়া হয়। ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের কর্মী, ক্র্যাক ম্যান ঘটনাস্থলে গিয়ে মেরামতির কাজে হাত লাগান। প্রায় ঘণ্টা দেড়েক ধরে ডাউন লাইনে ব্যাহত হয় ট্রেন চলাচল। ডাউনে ৪ নং রেললাইন দিয়ে ট্রেন চালানো হয়। ফলে বিলম্বিত হয় ট্রেন চলাচল। অফিসের ব্যস্ত চূড়ান্ত ভোগান্তির মুখে পড়েন নিত্যযাত্রীরা।

[আরও পড়ুন: অনুব্রতর পদতলে প্রশাসনিক কর্তা! ‘মহাগুরু’ সম্বোধন করে ফেসবুক পোস্টে প্রবল বিতর্ক]

এভাবে লাইনে ফাটল ধরার ঘটনায় রেল কর্তৃপক্ষের তরফে বলা হয়েছে, এই সময়ে তাপমাত্রার তারতম্য হচ্ছে। ফলে লোহার রেল ট্র্যাকের ক্রমাগত সংকোচন-প্রসারণের ফলে এমনটা ঘটছে। তবে রেল কর্তাদের আশ্বাস, ঘনঘন যাতে এমনটা না হয়, সেদিকে নজর রাখছেন ক্র্যাক ম্যান।

গত সপ্তাহেও শিয়ালদহের এই শাখায় খড়দহ ও সোদপুরের মাঝে ২ নং লাইনেই ফাটল দেখা গিয়েছিল। সেবারও স্থানীয় বাসিন্দাদের নজরে পড়ে এই ফাটল। সেসময় ডাউন ২ নং লাইন দিয়ে বারাকপুর লোকাল যাচ্ছিল। স্থানীয় বাসিন্দারা চালককে সতর্ক করা হয়। তা সত্ত্বেও চালকের নজরে না পড়ায় তাঁরা কাপড় উড়িয়ে সতর্ক করেন। তারপর চালক ট্রেন থামান এবং সে যাত্রা বড় বিপদ থেকে রক্ষা পান যাত্রীরা। প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে ট্রেন চলাচল ব্যাহত থাকে। তারপর ইঞ্জিনিয়াররা তা মেরামতি করে দিলে, স্বাভাবিক হয় রেল চলাচল। 

[আরও পড়ুন: অভিনব উদ্যোগ মমতার, বুলবুল বিধ্বস্তদের নিত্যপ্রয়োজনে ‘ডিগনিটি কিট’ দিচ্ছে রাজ্য]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং