BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনা আক্রান্ত ভরতি হাসপাতালে, প্রতিবেশীদের হেনস্তার শিকার পরিবার, মিলছে না বাজার-ওষুধ

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: July 31, 2020 2:54 pm|    Updated: July 31, 2020 2:54 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের করোনা (Corona Virus) আক্রান্তের পরিবারের সদস্যদের হেনস্তার অভিযোগ উঠল প্রতিবেশীদের বিরুদ্ধে। এবার ঘটনাস্থল হুগলির (Hooghly) শ্রীরামপুরের গাঙ্গুলিবাগান। প্রতিবেশীদের আচরণে ভেঙে পড়েছেন ওই করোনা আক্রান্ত ও তাঁর পরিজনরা।

জানা গিয়েছে, স্কুল অফ ট্রপিক্যাল মেডিসিনের কর্মী বছর ৫৫-এর ওই প্রৌঢ়া। কিছুদিন ধরেই তাঁর সামান্য জ্বর, মাথাব্যথা, গা ব্যথা ও বমিবমি ভাব ছিল। ফলে বর্তমান পরিস্থিতিতে ঝুঁকি না নিয়েই করোনা পরীক্ষা করান তিনি। সন্দেহ সত্যি করে রিপোর্ট আসে পজিটিভ। প্রথম দিকে আক্রান্ত প্রৌঢ়া স্থির করেছিলেন যে হোম আইসোলেশনে থাকবেন তিনি। কিন্তু বাড়ির প্রবীণ মহিলা সদস্যদের কথা চিন্তা করে হাসপাতালে ভরতির সিদ্ধান্ত নেন তিনি। ভরতি হন কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের আইসোলেশন ওয়ার্ডে। সেই থেকে সমস্যার সূত্রপাত। অভিযোগ, ওই মহিলার রিপোর্ট পজিটিভ আসা ও তাঁর হাসপাতালে ভরতি পর কয়েক মুহূর্তে যেন বদলে গিয়েছে তাঁর বাড়ির পরিবেশ। ক্রমাগত প্রতিবেশীদের হেনস্তার শিকার হচ্ছেন আক্রান্তের বৃদ্ধা মা ও তিন দিদি। বাজারে যেতে দেওয়া বা খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া, কোনওটাই করছেন না প্রতিবেশীরা। ফলে ঘরে বাজার নেই, শেষ ওষুধও। এমনকী তাঁদের বাড়ির জানলাও খুলতে দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ।

[আরও পড়ুন: নিহত দলীয় কর্মীর পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাতে ‘বাধা’, পুলিশের ভূমিকায় ক্ষুব্ধ সায়ন্তন]

ওই আক্রান্তের কথায়, “বাড়ির লোকেদের পরিস্থিতি দেখে বুঝতে পারছি, হাসপাতালে না এলে হয়তো আরও জটিলতা বাড়ত।” আক্ষেপের সুরে তিনি জানান, এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে তাঁর করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট। যা নিয়ে রীতিমতো ঠাট্টা-তামাশা চলছে। যা ব্যথিত করছে তাঁকে। বরাবর যে কোনও বিপদ যে প্রতিবেশীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি, তাঁদের এই আচরণ তিনি কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না ওই আক্রান্ত। বাড়ি ফিরে ঠিক কী পরিস্থিতির স্বীকার হতে হবে তাঁকে তা নিয়ে আতঙ্কিত ওই প্রৌঢ়া।

[আরও পড়ুন: সুভাষগ্রামে জোড়া খুনের কিনারা, শারীরিক সম্পর্কে অনীহায় স্ত্রীকে হত্যা, জেরায় স্বীকার ধৃতের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement