BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনা রোগীর মৃত্যুতে আতঙ্ক চরমে, মুর্শিদাবাদ মেডিক্যালে কাজ বয়কট অস্থায়ী কর্মীদের

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: June 25, 2020 1:38 pm|    Updated: June 25, 2020 1:53 pm

An Images

কল্যাণ চন্দ, বহরমপুর: করোনা (Coronavirus) আক্রান্ত এক রোগীর মৃত্যুতে চরম আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ল মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। যার জেরে কাজ বয়কট করে বিক্ষোভে নামলেন হাসপাতালের চতুর্থ শ্রেণির অস্থায়ী কর্মীরা। বিক্ষোভকারীদের সংখ্যা দু’শোরও বেশি। আজ সকাল থেকেই তাঁরা হাসপাতালের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। সেইসঙ্গে কাজ বয়কট। এতজন অস্থায়ী কর্মী একসঙ্গে কাজ বন্ধ রেখে বিক্ষোভে শামিল হওয়ায় হাসপাতালের রোগী পরিষেবায় সাময়িক ব্যাঘাত ঘটেছে।

দিন দুই আগে ডোমকল মহকুমার এক করোনা আক্রান্ত বাসিন্দা ভরতি হন মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। তাঁকে প্রাথমিক পরীক্ষানিরীক্ষা ও চিকিৎসার পর বহরমপুর COVID হাসপাতালে স্থানান্তরিত করে দেওয়া হয়। বুধবার রাতে করোনা আক্রান্ত ওই রোগীর মৃত্যু হয় সেখানে। এরপরই আতঙ্কে চরমে ওঠে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের গ্রুপ ডি অস্থায়ী কর্মীদের মধ্যে।

[আরও পড়ুন: ‘যজ্ঞের বেদির ছক থেকেই আবিষ্কার হয়েছে জ্যামিতির’, ‘হাস্যকর’ মন্তব্য বিজেপি সাংসদের]

তাঁদের দাবি, ওই করোনা রোগীর পরিষেবা দিয়েছিলেন তাঁদের মধ্যেই চারজন। এরপর তাঁরা হাসপাতালের বাইরে রাত কাটিয়েছেন। নিজেদের নিরাপত্তার পরোয়া না করে পরিষেবা দিয়ে গিয়েছেন। অথচ ওই চারজনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়নি। লালারস পরীক্ষা করেই ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। সোয়াব টেস্টের রিপোর্টও মেলেনি এখনও। ফলে তাঁরাও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন কি না, তা জানা যায়নি। তাঁদের থেকে অন্যদের শরীরেও সংক্রমণ ছড়াতে পারে, এই আশঙ্কায় কাঁটা গ্রুপ ডি অস্থায়ী কর্মীরা। করোনা রোগীর পরিষেবা দেওয়া স্বাস্থ্যকর্মীদের নিরাপত্তার প্রতি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তেমন নজর দিচ্ছে না বলে অভিযোগ চতুর্থ শ্রেণির কর্মীদের একাংশের। আর এর প্রতিবাদেই তাঁরা কাজ বয়কট করছেন বলে জানা গিয়েছে। এনিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফে এখনও কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি। তবে এদিন দু’শোরও বেশি অস্থায়ী কর্মী এভাবে কাজ বয়কট করায় হাসপাতালের পরিষেবা বেশ ব্যাহত হয়েছে।

[আরও পড়ুন: খরচ কমানোই লক্ষ্য, জুলাই থেকে বন্ধ হচ্ছে হাওড়া, শিয়ালদহের ১৭ জোড়া ট্রেন]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement