BREAKING NEWS

১৫  আষাঢ়  ১৪২৯  বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

গুরুংয়ের আমলের দিন যেন ফিরে না আসে, বন্‌ধমুক্ত নতুন দার্জিলিং গড়ে তুলতে চায় হামরো পার্টি

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: March 7, 2022 5:35 pm|    Updated: March 7, 2022 5:38 pm

Hamro Party in Darjeeling assures people to make new city of Strike free area after winning in Municipal Election | Sangbad Pratidin

অভ্রবরণ চট্টোপাধ্যায়, শিলিগুড়ি: শৈলশহরকে কর্মনাশা বন্‌ধ থেকে মুক্তি দিতে চান অজয় এডওয়ার্ড। পর্যটনের শহর এবার পুরোপুরি ধর্মঘটহীন করতে বদ্ধপরিকর তাঁর হামরো পার্টি (Hamro Party)। এককভাবে দার্জিলিং পুরসভা দখলের পর এটাই প্রধান লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন দলের সভাপতি অজয়। রবিবার দার্জিলিং (Darjeeling) শহরের বাসিন্দাদের ধন্যবাদ জানিয়ে মিছিল বের করে হামরো পার্টি। মিছিল শেষে অজয় বলেন, “আমরা চাই পাহাড় ধর্মঘটমুক্ত (Strike) হোক। উন্নয়নের কাজে প্রতিটি দলের মতামতকেই গুরুত্ব দেওয়া হবে।”

তিনমাস আগে নতুন দল গড়ে দার্জিলিং পুরসভা (Darjeeling Municipality) দখল করে এবার তাক লাগিয়েছে হামরো পার্টি। রবিবার ‘ধন্যবাদ পাহাড়বাসী’ লেখা প্ল্যাকার্ড হাতে মিছিল করেন দলের সদস্যরা। পাশাপাশি প্রার্থীদের বলা হয়েছে, নিজেদের ওয়ার্ডে প্রত্যেকের বাড়িতে গিয়ে ধন্যবাদ জানাতে। কারণ, প্রথমবার দল গড়েই পুরভোটে লড়াই করে গ্লেনারিজের (Glenary’s)মালিক অজয় এডওয়ার্ডের দল। দার্জিলিং পুরসভার ৩২টি আসনের মধ্যে ১৮টিতেই জিতেছেন দলের প্রার্থীরা। আবার অনেক ওয়ার্ডে সামান্য ব্যবধানে হেরেছেন তাঁরা।

[আরও পড়ুন: লুটপাটে বাধা দিয়ে দুষ্কৃতীদের হাতেই খুন একাকী বৃদ্ধা, রাতদুপুরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ইছাপুরে]

পাহাড়বাসী একটি নতুন দলকে ভরসা করে সমর্থন দেওয়ার জন্য আমজনতাকে ধন্যবাদজ্ঞাপনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে প্রার্থীদের। এদিন তাঁরা মিছিল করে শহরের বিভিন্ন এলাকা পরিক্রমা করেন। পরে দলের সভাপতি অজয় এডওয়ার্ড বলেন, “পাহাড়ের মানুষ দুর্নীতির বিপক্ষে এবং শান্তির পক্ষে ভোট দিয়েছেন। তাই তাঁদের আস্থার মর্যাদা রাখতে আমাদের প্রথম পদক্ষেপ হবে পাহাড়কে পুরোপুরি ধর্মঘট মুক্ত রাখা।” তিনি জানান, বিজয়ী প্রার্থীদের বলা হয়েছে নিজের ওয়ার্ডে গিয়ে বাসিন্দাদের ধন্যবাদ জানাতে।

[আরও পড়ুন: বঙ্গ বিজেপিতে ডামাডোল অব্যাহত, দলের বিক্ষুব্ধ শিবিরের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে লকেট]

বছর পাঁচেক আগেও দার্জিলিং এলাকায় গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার (GJM) নানা বিক্ষোভ, অবরোধে উত্তাপ বাড়ছিল পাহাড়ের। বাড়ছিল অশান্তিও। তবে পরবর্তীতে বিমল গুরুং ফেরার হওয়া, বিনয় তামাং-অনীত থাপাদের তৃণমূলের সঙ্গে যোগাযোগ বৃদ্ধির জেরে পরিস্থিতি শান্ত হয়েছে অনেকটাই। কিন্তু বিমল গুরুং, বিনয় তামাংদের আমলের সেই অশান্তির আর পুনরাবৃত্তি চান না মানুষ। অজয় এডওয়ার্ডের দল পাহাড়বাসীর সেই ইচ্ছেপূরণেই বদ্ধপরিবার।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে