BREAKING NEWS

১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  রবিবার ২৯ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

মাদারের জীবনই একটা ‘মিরাকল’, বিশ্বাস কলকাতাবাসীর

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 26, 2016 5:52 pm|    Updated: August 26, 2016 5:59 pm

Her Works made her saint, believes Kolkata

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিশ্বাসে মিলায় বস্তু তর্কে বহুদূর- এ যুক্তি মেনে নিয়েও বলতে হয়, আজও এ পৃথিবীতে কখনও সখনও ঘটে অলৌকিক ঘটনা৷ সেরকমই দু’দুটি অলৌকিক ঘটনার সাক্ষী থেকেছে সাম্প্রতিক দুনিয়া৷ প্রতিবারই না থেকেও উপস্থিত তিনি৷ সারাজীবন অসহায়কে কোলে তুলে নিয়েছেন৷ চলে যাওয়ার পরও তার ব্যতিক্রম নেই৷ সেই অলৌকিকের সম্মানেই তাঁকে সেন্ট উপাধি দেবেন পোপ৷ তবে কলকাতাবাসীর বিশ্বাস, তাঁদের আপন মাদারের জীবনটাই মিরাকল৷ তাঁর কাজ বহু আগেই রাজ্যবাসীর কাছে তাঁকে সন্ত করে তুলেছে৷

চলতি বছরের ৪ সেপ্টেম্বর সপ্তাহব্যাপী অনুষ্ঠানে ক্যাথলিক চার্চ মাদারের ‘সেন্টহুড’ ঘোষণা করবে৷ কিন্তু এ স্বীকৃতির বহু আগেই কলকাতা যেন চিনেছে ‘সেন্ট’ মাদারকে৷ স্বাধীনতা পূর্ব   ভারতে একদা যে দেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন বিবেকানন্দ, যে ভাবনায় ভাবিত হয়ে এ দেশে এসেছিলেন আর এক CqBBu8aWYAA1yK7বিদেশীনি মার্গারিটা, হয়ে উঠেছিলেন নিবেদিতা, স্বাধীনতা উত্তর সময়ে সেই স্বপ্নের ভারতবর্ষের খোঁজ মিলেছিল মাদারের সেবা ও ত্যাগের ধর্মেই৷ মাদার যে তাঁর কর্মস্থান হিসেবে কলকাতাকেই বেছে নিয়েছিলেন, এ কারণে নিজেদের সৌভাগ্যবান বলেই মনে করে শহরবাসী৷ একদা দেশে প্লেগ প্রতিরোধ করতে নিবেদিতার সেবা ও শ্রমের কথা আজও শ্রদ্ধায় স্মরণ করে বাঙালি৷ স্বাধীনতা পরবর্তীকালে রাজনীতি ও ধর্মনিরপেক্ষ আর এক নিবেদিতার খোঁজ দেশবাসী যেন পেয়েছিল মাদারের মধ্যেই৷ বিদেশিনী অ্যাগনেস নিজে খ্রীস্টান ধর্মাবলম্বী ছিলেন ঠিকই, কিন্তু ভারতের মতো বহু ধর্মে বিভাজনের দেশে তিনি এমন এক ধর্ম তুলে ধরতে পেরেছিলেন যেখানে কোনও বিভাজন নেই৷ সেবা-শ্রম-ত্যাগ-তিতিক্ষার যে ধর্ম তিনি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন সেখানে মানুষ হয়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর থেকে বড় ধর্ম আর কিছু নেই৷ আর তাই তাঁর তিরোধানের পরের অলৌকিকত্ব নিয়ে নয়, রাজ্যবাসী স্মরণ করে তাঁর কাজ৷ এক দেশ হিসেবে ভারতের মাথা তুলে দাঁড়ানোর পথে কখনও অন্তরায় হয়েছে ধর্মের রাজনীতি, তো কখনও জাতপাতের বিভাজন৷ বিপণন, পুঁজির বিকেন্দ্রীকরণ, বিশ্বায়ন ইত্যাদির জেরে ধনী ও দরিদ্রের মধ্যে দেখা দিয়েছে বিস্তর প্রভেদ৷CqxPG_hXgAE9ogG সাম্যের স্বপ্ন যখন স্রেফ পুঁথির পাতায় ঠাঁই পাওয়া এক শব্দ হয়ে উঠেছে, তখন দেশ দেখল এমন এক মা-কে, যাঁর স্নেহে সব বিভাজন মুছে যেতে পারে নিমেষে৷ জাত-পাত, ধর্ম, রাজনীতির থেকে অনেক দূরে দাঁড়িয়ে তিনি চিনিয়ে দেন এমন এক দেশকে, যে দেশে একজন আর একজনকে সত্যিকারের ভাই বলে চিনতে পারে৷ বহু তত্ত্ব, তথ্য যেখানে ব্যর্থ হয়, বহু প্রজ্ঞা যেখানে বিফল হয় সেখানেই জ্বলে ওঠে সেবার নির্মল আলোক৷ আর শুধু অনাথ সন্তানরাই নয়, আপামর দেশবাসীই চিনে নেয়, সকলের জন্যই আছেন একজন মা৷ কোনও ক্ষমতা বিস্তার না করে এই একতা, এই সার্বভৌমত্ব যিনি প্রতিষ্ঠা করতে পারেন, তিনি যে সত্যিই অলৌকিকের কাণ্ডারী তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না৷ আর তাই ক্যাথলিক চার্চের ঘোষণার বহু আগে থেকেই শহরবাসী বিশ্বাস করেন তিনি সেন্ট৷

আজ তাঁর ১০৬ তম জন্মতিথি৷ আজ তাঁকে স্মরণ করতে করতে রাজ্যবাসীর আশা, জ্বলে ওঠা শ্রদ্ধার মোমবাতিতে যেন জেগে থাকে তাঁর সেবার দর্শনও৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে