৩০ আশ্বিন  ১৪২৬  শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংগ্রাম সিংহ রায়, শিলিগুড়ি: আসন্ন রথযাত্রায় ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি ফর কৃষ্ণ কনশাসনেস (ইসকন) এর শিলিগুড়ি শাখার নতুন চমক। এই শহরের ভক্তদের জন্য আমদানি হচ্ছে হাইড্রোলিক রথ। তাও একটি নয়, একসঙ্গে দু’টি এমন রথ আত্মপ্রকাশ করতে চলেছে শহরে। সঙ্গে পুরনো রথটি তো থাকছেই। এ খবর জানিয়েছেন ইসকনের শিলিগুড়ি শাখার জনসংযোগ আধিকারিক নামকৃষ্ণ দাস স্বয়ং। তিনি বলেন, “এতদিন কাঠের রথ এই শহরে পরিভ্রমণ করত। এবার দু’টি হাইড্রোলিক রথের বরাত দেওয়া হয়েছে। সেই দু’টো রথ একসঙ্গে শহরের পথ পরিভ্রমণ করবে এমনটাই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে মন্দির কমিটির তরফ থেকে।”

কেমন হবে সেই হাইড্রোলিক রথ, তার একটা ধারণাও দিয়েছেন নামকৃষ্ণবাবু। তিনি জানান, হাইড্রোলিক রথ দু’টি সুইচ এবং রিমোট কন্ট্রোলের সাহায্যে চালানো হবে। ইচ্ছেমতো রথের চূড়া ছোট-বড় করা যাবে। বিশেষ করে পথ চলতে গিয়ে বড় কোনও গেট বা গাছের কাছাকাছি চলে এলে চূড়া ইচ্ছেমতো ছোট করে, এলাকা পার করে দেওয়া যাবে। পুনরায় সেই রথের চূড়া আবার আগের মতো আকারে পৌঁছে দেওয়া যাবে। এই হাইড্রোলিক রথের গতিও সাধারণের তুলনায় একটু বেশি হবে বলে জানা গিয়েছে।

[ আরও পড়ুন: ভোটে হেরে সোশ্যাল মিডিয়ায় দুঃখপ্রকাশ বর্ধমান পূর্বের বিজেপি প্রার্থীর ]

দু’টি রথ তৈরি করতে কয়েক লক্ষ টাকা খরচ করা হচ্ছে। যার পুরোটাই ভক্তদের দানের ভিত্তিতে সংগ্রহ করা হয়েছে বলে ইসকন মন্দির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। শহরেরই সেবক রোডের একটি গাড়ি কারখানায় এই রথ দু’টি তৈরি করা হচ্ছে। যিনি তৈরি করছেন তিনি নিজেও একজন ভক্ত। রথের সর্বোচ্চ উচ্চতা ইসকনের পুরনো রথের মতোই কুড়ি থেকে পঁচিশ ফুট রাখা হবে। নতুন রথ, ইসকনের রথের মেলার আকর্ষণ আরও বৃদ্ধি করবে বলে আশা করা হচ্ছে। পাশাপাশি নতুন দু’টি রথের জন্য নতুন রুটের সন্ধান করা হচ্ছে।

সাধারণত ইসকন থেকে পুরনো রথটি বেরিয়ে ইসকন রোড থেকে সেবক রোড ধরে, হিলকার্ট রোডে পড়ে। সেখান থেকে হাসমিকচক হয়ে বিধান রোড ঘুরে ইসকন মন্দিরে চলে আসে। কিন্তু গত বছর থেকে মূল বিগ্রহ গাড়ি করে শিবমন্দিরে এক ভক্তের বাড়িতে রাখা হচ্ছে। এবারও নিয়মের কোনও অন্যথা হবে না। সেভাবেই জগন্নাথের মাসির বাড়ি হিসেবে শিবমন্দিরে বিগ্রহ রাখা হবে বলে ঠিক করা হয়েছে। তবে নতুন দু’টি রথ কোন কোন রুটে ঘুরবে, তা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে কথা হচ্ছে। সেখান থেকে অনুমতি মিললে তাঁরা চূড়ান্ত রুট ঘোষণা করবেন।

[ আরও পড়ুন: দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায় ভূমিকম্প, ছুটির দিন সকালে ছড়াল আতঙ্ক ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং