BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

নিজেকে ‘টিম পিকে’র সদস্য বলে দাবি, তৃণমূল নেতার থেকেই তোলা আদায়ের চেষ্টায় ধৃত যুবক

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: September 1, 2020 3:49 pm|    Updated: September 1, 2020 3:58 pm

An Images

চন্দ্রশেখর চট্টোপাধ্যায়, আসানসোল: ‘টিম পিকে’র (Prashant Kishor) নামে জালিয়াতির মারাত্মক অভিযোগ তুললেন তৃণমূল নেতা। তাঁর অভিযাগের ভিত্তিতে আসানসোলের কল্যাণেশ্বরী থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এক যুবককে। ঘটনা জানাজানি হতে বেশ চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। দলের যেসব গলদ চিহ্নিত করে তা সংশোধন করার দায়িত্ব মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অর্পণ করেছে টিম প্রশান্ত কিশোরের কাঁধে, সেখানেই কি না তোলাবাজির মতো বিস্ফোরক অভিযোগ! এ নিয়ে কানাঘুষো শুরু হয়ে গিয়েছে।

দিন কয়েক আগে কুলটি থেকে মৃত্যুঞ্জয় সিং নামে এক যুবক ফোন করেছিলেন যুব তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে। তিনি নিজেকে ‘টিম পিকে’র সদস্য বলে পরিচয় দেন। বিশ্বজিৎবাবু জানান, ”কয়েকদিন ধরেই আমাকে ফোন করে বিভিন্ন অভাব-অভিযোগ শোনাতো মৃত্যুঞ্জয়। হঠাৎ করেই সোমবার টাকার দাবি করে। লকডাউনে কমিউনিটি কিচেনের জন্য সে নগদ টাকা চায়। আমার সন্দেহ হয়। টিম পিকের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানতে পারি, বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগে ওই যুবককে ৬ মাস আগেই বের করা দেওয়া হয়েছে।” এরপরই বিশ্বজিৎবাবু কুলটি থানায় মৃত্যুঞ্জয়ের নামে তোলাবাজির অভিযোগ দায়ের করেন।

[আরও পড়ুন: সকাল থেকেই আকাশের মুখ ভার, দফায় দফায় বৃষ্টিতে ভিজছে গোটা বাংলা]

যুব তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদকের অভিযোগ পেয়ে তদন্তে নামে কুলটি থানার পুলিশ। কুলটির কল্যাণেশ্বরী থেকে মৃত্যুঞ্জয়কে গ্রেপ্তার করে চৌরঙ্গী ফাঁড়ির পুলিশ। এই ঘটনা জেনে তার দাদা ধনঞ্জয় সিংয়ের প্রতিক্রিয়া, ”শুনেছি ভাই নাকি চিটিংবাজি করেছে। পুলিশ তদন্ত করে দেখুক। প্রশাসনের ওপর পূর্ণ আস্থা রয়েছে।”

রাজ্যের শাসকদলের নেতা, কর্মীদের বারবার দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়া এবং দলের ইমেজ নষ্টের মতো ঘটনা রুখতে নির্বাচনী কৌশলী হিসেবে প্রশান্ত কিশোরকে কাজে লাগিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় (Mamata Banerjee)। প্রশান্ত কিশোর রীতিমত টিম তৈরি করে দুর্নীতি রুখে নেতাদের স্বচ্ছ ভাবমূর্তিকে সামনে আনার কাজে নেমেছেন। ভোটকৌশল হিসেবে একেই তিনি সবচেয়ে শক্তিশালী হাতিয়ার করতে চান। অথচ সেই টিমের নাম করে তোলাবাজির মতো বড়সড় অভিযোগে জড়ালেন সেখানকারই প্রাক্তন কর্মী! 

[আরও পড়ুন: ধর্মের ঊর্ধ্বে মানবতা, অতিমারীতে অসহায় হিন্দু বৃদ্ধার মুখে খাবার তুলে দিচ্ছেন মুসলিমরা]

এ নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়েছে বিরোধী রাজনৈতিক শিবিরে। অনেকের বক্তব্য, সম্প্রতি ‘টিম পিকে’র কাজে বিস্তর গাফিলতি দেখা যাচ্ছে। নইলে কি আর দীর্ঘদিনের সিপিএম নেতাদের ফোন করে তৃণমূলে আসার প্রস্তাব দিতে পারেন? কুলটিতে তাঁর দলের নাম করে যুবকের তোলা আদায়ের চেষ্টাও সেই গাফিলতির আরেকটা নমুনা বলে মনে করছে সংশ্লিষ্ট মহলের একাংশ। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement