৫ মাঘ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১৯ জানুয়ারি ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

মালদহ জেলা তৃণমূল সভানেত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিচ্ছেন? মুখ খুললেন মৌসম বেনজির নূর

Published by: Sayani Sen |    Posted: December 5, 2020 6:32 pm|    Updated: December 5, 2020 6:43 pm

An Images

বাবুল হক, মালদহ: শুভেন্দু অধিকারী (Subhendu Adhikary) মন্ত্রিত্ব ত্যাগ করার পর থেকে ঘাসফুল শিবিরে বাড়ছে বেসুরোদের সংখ্যা। মালদহের তৃণমূল জেলা সভানেত্রীর পদ থেকে মৌসম বেনজির নূরের পদত্যাগের ইচ্ছাপ্রকাশের গুঞ্জনও শোনা গিয়েছিল। তবে শনিবার দুপুরে মালদহ শহরের স্টেশন রোডে নিজের দপ্তরে সাংবাদিক বৈঠক করে জল্পনা ওড়ালেন মৌসম নূর। তিনি বলেন, “আমি তৃণমূলে আছি এবং তৃণমূলে থাকব। মমতা বন্দ্যোপাধ‍্যায় (Mamata Banerjee) আমার নেত্রী। তাঁর নেতৃত্বেই মালদহ জেলার সংগঠনকে আরও শক্তিশালী করব। আগামী বিধানসভা নির্বাচনে ভাল ফল করে আমরা বিরোধীদের বুঝিয়ে দেব।” এই সাংবাদিক বৈঠকে অবশ্য কোর কমিটির মোয়াজ্জেম-অম্লানরা উপস্থিত ছিলেন না। উপস্থিত ছিলেন জেলা তৃণমূলের দুই মুখপাত্র শুভময় বসু ও সুমলা আগরওয়াল এবং দলের জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক দেবপ্রিয় সাহা ও সৌমিত্র রায়।

জেলা তৃণমূলের অভিযোগ, বেশ কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার চলছে, মৌসম নূর নাকি দলের জেলা সভানেত্রীর পদ ছাড়তে চান। শুধু তাই নয়, বৈষ্ণবনগরের এক তৃণমূল নেতার ঘনিষ্ঠরা এই গুজবটি এলাকায় মাইকে প্রচার করেছে বলে অভিযোগ। এতে রীতিমতো ক্ষুব্ধ মৌসম নূর। দুর্নীতিবাজ ও সমাজবিরোধীদের তাড়িয়ে দলের দায়িত্ব স্বচ্ছ লোকদের দিতে উদ‍্যোগ নিয়েছিলেন মৌসম বেনজির নূর (Mausam Benazir Noor)। কিন্তু সূত্রের খবর, তাতেই বেঁকে বসেন পাঁচজনের কোর কমিটিতে থাকা দু-একজন। এদিন মৌসম নূর বলেন, “সরকার এবং দলকে বদনাম করার চেষ্টা করা হচ্ছে। এর পিছনে বিজেপির উসকানিও থাকতে পারে। বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখছি। প্রয়োজনে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

[আরও পড়ুন: কৃষ্ণগঞ্জের তৃণমূল বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাস খুনে চার্জশিট পেশ, ‘মূল ষড়যন্ত্রকারী’ মুকুল রায়]

মৌসম নূর আরও বলেন, “গত সপ্তাহে মালদহ (Maldah) জেলার তৃণমূল নেতৃত্বকে নিয়ে কলকাতায় কোর কমিটির বৈঠক ডেকেছিলেন দলের সর্বভারতীয় যুব সভাপতি অভিষেক বন্দ্যােপাধ্যায়। সেই বৈঠকে আমি উপস্থিত থাকতে পারিনি। তার কারণ আমার জ্বর হয়েছিল। যেহেতু কোর কমিটির বৈঠকে উপস্থিত হতে পারিনি তাই কেউ বা কারা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল করে দেয় আমি নাকি দলের উপর বীতশ্রদ্ধ। সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করতে চাইছি। কিন্তু এটা সর্বাত্মক মিথ্যা। দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ‍্যায় আমাকে মালদহ জেলার দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি সেই দায়িত্ব এখনও পালন করে চলেছি। নেত্রীর নির্দেশে এই দলকে আরও শক্তিশালী করা হচ্ছে। জেলা ও ব্লক কমিটি গঠন করা হয়েছে। যুব তৃণমূল কংগ্রেস কমিটি করা হয়েছে। আগামী বিধানসভায় আমরা ভাল ফল করব। জেলার ১২টি আসনে তৃণমূলের জয় হবে।”

[আরও পড়ুন: ‘জানুয়ারি থেকেই বাংলাদেশি শরণার্থীদের দেওয়া হবে নাগরিকত্ব’, ভোটের মুখে ঘোষণা কৈলাসের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement