BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনা পজিটিভ রোগীর সংস্পর্শে এসে আক্রান্ত নার্স, সিল করে দেওয়া হল হাসপাতাল

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: May 9, 2020 8:57 pm|    Updated: May 9, 2020 8:57 pm

An Images

সম্যক খান, মেদিনীপুর: ক্ষীরপাইয়ের করোনা পজিটিভ বৃদ্ধের সংস্পর্শে আসা মেদিনীপুরের এক বেসরকারি হাসপাতালের নার্সের শরীরেও এবার করোনার সংক্রমণ ধরা পড়েছে। মেদিনীপুরের এক বেসরকারি হাসপাতালে মাত্র একদিন ভরতি ছিলেন তিনি। সেখানেই তাঁর সংস্রবে থাকা ১৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। বাকিগুলির রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও এক নার্সের পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক গিরিশচন্দ্র বেরা বলেছেন, করোনা পজিটিভ ওই নার্সকে বড়মা করোনা হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে। এর পাশাপাশি ওই বেসরকারি হাসপাতালকে আপাতত পুরোপুরি বন্ধের নোটিস দেওয়া হয়েছে। এতদিন আংশিক বন্ধ রাখা হয়েছিল।

উল্লেখ করা যেতে পারে, গত ১ মে বুকে পেস মেকারের সমস্যা নিয়ে মেদিনীপুরের ওই নার্সিংহোমে ভর্তি হয়েছিলেন ক্ষীরপাইয়ের ৮৪ বছরের ওই বৃদ্ধ। পরদিন তাঁকে কলকাতার বাঙ্গুর হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে তাঁর নমুনা পরীক্ষায় করোনার সংক্রমণ মেলে। বর্তমানে তিনি সেখানেই চিকিৎসাধীন। ওই বৃদ্ধের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসার পর মেদিনীপুরে ওই বেসরকারি হাসপাতালেও আতঙ্ক বাড়ে। স্বাস্থ্য দপ্তরের পরামর্শেই ওই রোগীর সংস্পর্শে থাকা ডাক্তার, নার্স ও কর্মীদের কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়। শুক্রবারই তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। ওই বেসরকারি হাসপাতালের অন্যতম কর্ণধার ডাঃ কাঞ্চন ধাড়া বলেছেন, বাকি সবার রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও একজনের পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। তার সংস্রবে আর কারা কারা এসেছেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। জানা গিয়েছে, যে ওই নার্স শহরেরই একটি মেসে থাকতেন। এই ঘটনায় ফের নতুন করে আতঙ্ক ছড়িয়েছে সারা শহরে।

[আরও পড়ুন: হাওড়ার শ্যামপুরের তরুণীর শরীরে করোনার থাবা, কোয়ারেন্টাইনে গোটা পরিবার]

এদিকে, জেলায় আজমের শরিফ ফেরত সকল তীর্থযাত্রীর করোনা পরিক্ষার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর। শনিবারই তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। উল্লেখ করা যেতে পারে, আজমের থেকে বিশেষ ট্রেনে এরাজ্যের যেসব তীর্থযাত্রীরা ফিরেছেন তাঁদেরকে থার্মাল স্ক্রিনিং করেই হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সম্প্রতি মালদায় আজমের ফেরত চারজনের শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। তারপরই এ জেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ওই তীর্থযাত্রীদের করোনা পরিক্ষার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক গিরিশচন্দ্র বেরা বলেছেন, এই জেলার বিভিন্ন ব্লকে আজমের ফেরত মোট ১২১ জন তীর্থযাত্রী আছেন। তাঁদের এদিনই সংশ্লিষ্ট কালেকশন সেন্টারে এনে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement