BREAKING NEWS

৭ মাঘ  ১৪২৮  শুক্রবার ২১ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

দু’চাকায় পা রেখেই স্বনির্ভর, দুর্গাপুরের প্রথম মহিলা অ্যাপ বাইক চালক সুস্মিতা দত্ত

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: August 4, 2019 8:25 pm|    Updated: August 4, 2019 8:26 pm

Meet first female bike rider in Durgapur Susmita Dutta

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দু’হাতে আগলে রাখা সংসার৷ আবার সেই দু’হাতেই ধরা থাকে দু-চাকার বাহনের নিয়ন্ত্রণ৷ এভাবেই তো নারী হয়ে ওঠেন দশভুজা৷ এমনই এক দশভুজার সঙ্গে সম্প্রতি সাক্ষাৎ হয়েছে দুর্গাপুরবাসীর৷ তিনি বছর পঁয়তাল্লিশের সুস্মিতা দত্ত৷ শহরের প্রথম মহিলা অ্যাপ বাইক চালক৷ স্কুটি নিয়ে যাত্রীকে পৌঁছে দেন গন্তব্যে৷

[ আরও পড়ুন: পর্যবেক্ষকের সামনেই বিবাদে জড়ালেন তৃণমূল বিধায়করা, পুরুলিয়ায় প্রকট গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব]

গোড়া থেকেই স্বনির্ভর হতে চেয়েছিলেন৷ স্বামী, শাশুড়ি, মেয়েকে নিয়ে ভরা সংসারে এনিয়ে প্রচুর বিরোধিতা ছিল৷ শাশুড়ি, স্বামী কথা বলা বন্ধ করে দিয়েছিলেন৷ তবু হার মানেননি সুস্মিতা৷ নিজের পায়ে দাঁড়ানোর লক্ষ্যে অবিচল ছিলেন৷ স্কুটি চালাতে পারতেন৷ সেটাই ছিল অস্ত্র৷ সেটাই এনে দিয়েছিল আত্মবিশ্বাস৷ কিন্তু একে কাজে লাগিয়েই যে আত্মনির্ভর হবেন, সেটা ভাবলেন কীভাবে? এই প্রশ্নের উত্তরে সুস্মিতা জানিয়েছেন, একদিন তিনি এক বন্ধুকে দেখেন এক সংস্থার স্টিকার লাগানো বাইক৷ তখন তিনি গোটা বিষয়টি জানতে চান৷ অ্যাপ বাইকের কথা জানতে পারেন৷

এরপরই তিনি নিজের স্কুটিটিকে এভাবে কাজে লাগানোর কথা ভাবেন৷ যোগাযোগ করেন ওই সংস্থার সঙ্গে৷ স্থানীয় অফিসে গিয়ে কথা বলেন, সেখান থেকে আবেদনপত্র সংগ্রহ করে পরীক্ষানিরীক্ষার মাধ্যমে নিজের যোগ্যতার প্রমাণ দিয়ে তবেই এই চাকরির দুয়ারে পা রাখেন৷ এখন তাঁর দৈনন্দিন জীবন অন্যরকম৷ সকালে বাড়ির কাজকর্ম সেরেই বেরিয়ে পড়েন দু চাকা নিয়ে৷ সাড়ে আটটা থেকে শুরু হয় তাঁর যাত্রী পরিষেবা৷ চলে দুপুর একটা পর্যন্ত৷ এরপর মেয়েকে স্কুল থেকে ফিরিয়ে এনে খাওয়াদাওয়া, বিশ্রাম৷ বিকেলে ফের বেরিয়ে পড়েন৷ রাত পর্যন্ত চলে তাঁর বাইক পরিষেবা দিয়ে ঘরে ফিরে আসা৷ তাতেই যা রোজগার হওয়ার হয়৷ সেই টাকা সংসারের কাজে লাগান সুস্মিতা৷

[ আরও পড়ুন: ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচিতে দলের নেতার বিরুদ্ধেই নালিশ, প্রহৃত দুর্গাপুরের তৃণমূল কর্মী]

কিন্তু তিনি যে দুর্গাপুরের প্রথম মহিলা অ্যাপ বাইক চালক, তা কি জানেন? সুস্মিতার জবাব, তিনি প্রথমে জানতেন না৷ পরে সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে জেনেছেন৷ তাহলে এবার কি দুর্গাপুর থেকে আরও বড় শহর কলকাতায় পরিষেবা দেওয়ার কথা ভাববেন সুস্মিতা? এর উত্তরে অবশ্য তাঁকে ততটা আত্মবিশ্বাসী দেখাল না৷ জড়সড় হয়ে বললেন, কলকাতার ভিড় এড়িয়ে তাঁর পক্ষে বাইক চালানো বেশ কঠিন হবে৷ হোক না কঠিন, সব প্রতিকূলতা পার করে ঠিক একদিন তিনি আরও ভাল জায়গায় পৌঁছবেন৷ সুস্মিতাকে কুর্নিশ এবং আন্তরিক শুভেচ্ছা৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে