BREAKING NEWS

১৫  আষাঢ়  ১৪২৯  বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

ভোটার কার্ড সঙ্গে নেই? জামাইষষ্ঠীর আনন্দ মাটি সীমান্তবর্তী গ্রাম চরমেঘনায়

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: June 8, 2019 9:01 pm|    Updated: June 8, 2019 9:01 pm

'No voter card,no entry' at a border village in Nadia

নিজস্ব সংবাদদাতা, তেহট্ট: নিয়ম যতই পালন করুন, শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার আগে যতই দু’হাত ভরে বাজার করে নিয়ে যান, ভোটার কার্ডটি সঙ্গে না থাকলে জামাইষষ্ঠীর আনন্দই মাটি৷ গ্রামে স্রেফ ‘নো এন্ট্রি’ হয়ে যাবে৷  

[আরও পড়ুন: চৌকিদারের পালটা আগলদার, বিধানসভার প্রস্তুতিতে নয়া দাওয়াই অনুব্রতর]

নদিয়ার হোগলবেড়িয়া থানার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া পেরিয়ে ওপারের গ্রাম চরমেঘনা৷ ভোটার কার্ড ছাড়া এই গ্রামে জামাইষষ্ঠীতে যাওয়া যায় না৷ আসলে সীমান্ত এলাকা বলে নিরাপত্তা একটু কড়াকড়ি৷ কাঁটাতারের গেটে সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কাছে ভোটের পরিচয়পত্র জমা দিয়ে এবং তাঁদের খাতায় নাম লিখিয়ে তবে চরমেঘনায় প্রবেশের অনুমতি মেলে৷ গ্রামের বাসিন্দা অমিত মাহাতোর কথায়, ‘কাঁটাতারের গেট হওয়ার পর জামাইষষ্ঠী বা অন্যান্য সামাজিক অনুষ্ঠানে বাইরের অতিতিরা ভোটার কার্ড না থাকার কারণে ফিরে গিয়েছেন৷ তাই বিশেষত জামাইরা এই গ্রামে আসার আগে বারবার বলে দেওয়া হয়, তাঁরা যেন সঙ্গে পরিচয়পত্র নিয়ে আসেন৷’ গ্রামের মেয়ে স্বপ্না বলছে, ‘এই গ্রামে বড় হয়েছি৷ তাই কাঁটাতারের এপারের গ্রামের আসতে বা গ্রাম থেকে যেতে সীমান্তের কিছু নিয়ম মেনে চলতে হয়৷ বছর খানেক আগে কল্যাণীর লিটন বিশ্বাসের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়৷ আগের বছর পরিচয়পত্র নিতে ভুলে গিয়েছিলাম৷ বাবার বাড়ি আর যেতে পারিনি৷’

সেই অভিজ্ঞতা থেকে এবার আর ভুল করেননি৷ শ্বশুরবাড়ি থেকে বেরিয়ে বাসে ওঠার আগে একই ভুল আর করেননি স্বপ্না। দই, মিষ্টি, কাপড় নেওয়া হোক বা না হোক – ভোটার কার্ডটা আগে থেকে ব্যাগে ঢুকিয়ে নিয়েছেন। একই অভিজ্ঞতার কথা জানালেন দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার ক্যানিংয়ের বাসিন্দা স্বপন বিশ্বাস৷ স্ত্রী নমিতাকে নিয়ে এবারেও জামাইষষ্ঠী করতে গিয়েছেন চরমেঘনায়। তাঁর কথায়, ‘গত শনিবার স্ত্রী ও একমাত্র ছেলেকে নিয়ে এখানে চলে এসেছি। আসার সময় প্রতিবারের মত এবারও গেটে সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর কাছে ভোটের পরিচয়পত্র জমা দিয়ে এসেছি। রবিবার পর্যন্ত শ্বশুরবাড়ি থাকব, তাও তাদের জানিয়ে এসেছি।’

[আরও পড়ুন: আর্থিক কেলেঙ্কারির অভিযোগ, গ্রামবাসীদের বিক্ষোভে একঘরে পঞ্চায়েত প্রধান]

গ্রামের বাসিন্দারা জানান, একশো বাহাত্তরটি পরিবারের বাস সেখানে। সন্ধের পরে কাঁটাতারের গেট বন্ধ হয়ে যায়। সারা বছরের মতো জামাইষষ্ঠীতেও মেয়ে-জামাইকে এখানে প্রবেশের আগে নিয়মমতো তাঁদের পরিচয়পত্র জমা দিতে হয়। আগে এমনও হয়েছে যে, ভোটার কার্ড সঙ্গে না থাকায় নতুন মেয়ে-জামাইকে গ্রামে আসার অনুমতি দেয়নি বিএসএফ। ব্যাগ-প্যাঁটরা নিয়ে মেয়ে-জামাই গেটে আটকে রয়েছে, শুনে বাড়ি থেকে নিজেদের পরিচয়পত্র নিয়ে শ্বশুর-শাশুড়িকে ছুটতে হয়েছে। শেষে জামিনদারের মতো শ্বশুর-শাশুড়ির জিম্মায় ঢুকতে দেওয়া হয়েছে নবদম্পতিকে।

তবে এও তাঁরা বলছেন, এখন সীমান্তের গেটে আগের মতো সমস্যা নেই। বছর পনেরো আগে সীমান্তের কড়াকড়ির জন্য গ্রামের মেয়েদের বিয়ে দেওয়া কঠিন ছিল৷ এখন বিএসএফ-এর মানবিক ব্যবহার বিষয়টিকে অনেক সহজ করেছে। সীমান্তরক্ষী বাহিনীর আধিকারিক জানান, দেশের নিরাপত্তার জন্য এটাই নিয়ম। মানুষ তাঁর নিজের সঠিক পরিচয়পত্র দেখিয়ে গ্রামে যাবে, এটাই নিয়ম৷ ‌‌

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে