১০ আষাঢ়  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

পলাশ পাত্র, তেহট্ট: দাদা ঝাড়ফুঁক করেছে, তাই সংসারে অনটন। এই সন্দেহের বশেই পিসতুতো দাদাকে শাবল দিয়ে কুপিয়ে খুনের অভিযোগ উঠল নদিয়ার এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। মৃতের নাম রমজান শেখ। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে চাপড়া থানার পুলিশ। পলাতক অভিযুক্ত। 

[আরও পড়ুন: তৃণমূল থেকে কেন দলে নেওয়া হচ্ছে? কোচবিহারে নিশীথকে ঘিরে বিক্ষোভ বিজেপি কর্মীদের]

নদিয়ার চাপড়া থানার আলফা মুসলিম পাড়ার বাসিন্দা বছর ষাটেকের রমজান শেখ। জানা গিয়েছে, তাঁর বাড়ির পাশেই থাকতেন তাঁর তুতো ভাই জালাল হালসানা। জানা গিয়েছে, কিছুদিন ধরেই আর্থিক অনটনে ভুগছিলেন জালাল। ফলে দিন দিন স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হতে শুরু করে। হঠাৎই জালালের বদ্ধমূল ধারণা তৈরি হয় যে, তার জীবনের অশান্তির জন্য দাদা রমজানই দায়ী। এই নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে অশান্তিতে জড়িয়ে পড়ে জালাল। বচসা তীব্র আকার নিলে সন্তানদের নিয়ে ভাসুর রমজানের বাড়িতেই আশ্রয় নেন জালালের স্ত্রী। অভিযোগ, এরপর থেকেই গ্রামের বাসিন্দারা জালালকে উসকানি দিতে শুরু করে। রমজান তার বাড়িতে তুকতাক করেছে, এমনটাই জালালকে বোঝান স্থানীয়রা। এতেই রমজানের বিরুদ্ধে ক্ষোভ তৈরি হয় জালালের৷ 

[আরও পড়ুন: শিক্ষক বদলি সিদ্ধান্তের বিরোধিতা, দ্বিতীয় দিনেও শিকেয় জেনকিন্স স্কুলের পড়াশোনা]

জানা গিয়েছে, এরপর থেকে রমজানকে খুনের ছক কষতে শুরু করে জালাল। বেশ কিছুদিন ধরেই রমজানকে নজরে রাখছিল সে। পরে মঙ্গলবার সকালে নমাজ পড়ে বাড়ি ফেরার সময় হঠাৎই রমজানকে আক্রমণ করে জালাল। শাবল দিয়ে এলোপাথাড়ি কোপানো হয় ওই প্রৌঢ়কে। রক্তাক্ত অবস্থায় সেখানে লুটিয়ে পড়েন তিনি। এরপর স্থানীয়রা তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করে। খবর পেয়ে দেহটি ময়নাতদন্তে পাঠায় চাপড়া থানার পুলিশ। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, সন্দেহের বশেই দাদাকে খুন করেছে জালাল। পুলিশ সূত্রে খবর, এখনও পলাতক অভিযুক্ত। জালালের সন্ধানে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।    

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং