২৭ কার্তিক  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ১৪ নভেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২৭ কার্তিক  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ১৪ নভেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

আকাশনীল ভট্টাচার্য, বারাকপুর: ভোট পরবর্তী হিংসা অব্যাহত ভাটপাড়ায়। ভোটের পরদিনও শান্তি ফেরেনি কাঁকিনাড়া-সহ একাধিক এলাকায়। রবিবার সারারাত এবং সোমবারও বিকেল পর্যন্ত সেখানে হয় বোমাবাজি। তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি, দুই দলের বিরুদ্ধেই উঠেছে বোমাবাজি ও গুলি চালানোর অভিযোগ। এলাকায় মোতায়েন রয়েছে ব়্যাফ। এদিকে, এই ঘটনার জেরে এদিন সন্ধেয় এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন৷ 

রবিবার ভোট পর্ব চলাকালীন কাঁটাপুকুর এলাকায় মুড়ি-মুড়কির মত বোমাবাজি চলে। তৃণমূলবিজেপি দুপক্ষই একে অপরের বিরুদ্ধে বহিরাগতদের এলাকায় নিয়ে এসে সন্ত্রাস করার অভিযোগ তোলে। রবিবার রাতে মেঘনা মোড়ে অর্জুন সিংয়ের বাড়ি লক্ষ্য করে বোমাবাজি ও গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। যদিও তৃণমূলের পক্ষ থেকে সেই অভিযোগ উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ, ওইদিন রাতে চালতা রোড এলাকায় দুষ্কৃতীরা ব্যাপক বোমাবাজি ও সাধারণ মানুষের বাড়ি ভাঙচুর করেছে দুষ্কৃতীরা। এমনকী ওই দুষ্কৃতীরা এলাকার বেশ কয়েকটি বাড়িতে আগুনও ধরিয়ে দেয়।

[ আরও পড়ুন: বৃহস্পতিবারের মধ্যে শহরে ফিরছে কুন্তল কাঁড়ার ও বিপ্লব বৈদ্যের দেহ ]

এদিকে ভাটপাড়ার আর্যসমাজ এলাকা ফের রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছে। বিজেপি ও তৃণমূল, দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক বোমাবাজি চলছে। প্রাণ বাঁচাতে সাধারণ মানুষ নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে। ব়্যাফ ও কমব্যাট ফোর্সের জওয়ান-সহ এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। মোটের উপর গতকালের উপনির্বাচন ঘিরে এখনও চাপা উত্তেজনা রয়েছে ভাটপাড়া এলাকায়। কার্যত বন্ধের চেহারা নিয়েছে গোটা এলাকা। সমস্ত দোকানপাট বন্ধ করে দিয়েছে ব্যাবসায়ীরা। এদিকে ঘোষপাড়া রোডে যানচলাচল পুরোপুরি বন্ধ। এলাকায় মোতায়েন বিশাল পুলিশ বাহিনী। চলছে আধা সামরিক বাহিনীর জওয়ানদের টহল।

সংঘর্ষের জেরে কাঁকিনাড়ার পানপুর মোড় ও জগদ্দলের বাসুদেবপুর মোড়ে কল্যাণী এক্সপ্রেসওয়ে অবরোধ করেন বিজেপি সমর্থকরা। এছাড়া স্থানীয় বাসিন্দারা সোমবার সকালে চালতা রোড সংলগ্ন ঘোষপাড়া রোড অবরোধ করেন। অবরুদ্ধ রেলপথও। ঘটনাস্থলে ভাটপাড়া তদন্তকেন্দ্রের পুলিশ ও রেল পুলিশ উপস্থিত হয়। সকাল সাড়ে ন’টা নাগাদ পুলিশের আশ্বাসে অবরোধকারীরা অবরোধে তুলে নেন।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং