১৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১ ডিসেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মানুষের নৃশংসতার কোপে অবলা, কুকুরছানাকে আগুনে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা যুবকের!

Published by: Tanumoy Ghosal |    Posted: May 7, 2019 4:12 pm|    Updated: May 7, 2019 4:14 pm

An Images

সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, দুর্গাপুর: ভরদুপুরে কুকুরছানার গায়ে কেরোসিন তেল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিল এক যুবক! এমনই অমানবিক ঘটনার সাক্ষী থাকল শিল্পনগরী দুর্গাপুর। শেষপর্যন্ত অবলা প্রাণীটিকে উদ্ধার করে চিকিৎসার করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। এই নৃশংস ঘটনা যে ঘটিয়েছে, তার বিরুদ্ধে দুর্গাপুর থানার এফআইআর করেছেন পশুপ্রেমী সংগঠনের সদস্যরা।

[আরও পড়ুন: সিকিম থেকে ভুটানে প্যাঙ্গোলিন পাচারের চেষ্টা, গ্রেপ্তার ইঞ্জিনিয়ার-সহ ৫]

অভিযুক্তের নাম তুহিন মল্লিক। বাড়ি, দুর্গাপুর ইস্পাতনগরীর রাজেন্দ্র অ্যাভিনিউতে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, গত ১ মে ভরদুপুরে পাড়ারই কুকুরছানার গায়ে কেরোসিন তেলে ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয় তুহিন। অবলা প্রাণীটির চিৎকার শুনে ছুটে আসেন আশেপাশের লোকজন। কুকুরছানাটি উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। এদিকে এই অমানবিক ঘটনার খবর দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ে শহরে। অভিযুক্ত তুহিন মল্লিকের শাস্তির দাবি তুলেছেন দুর্গাপুরের বিভিন্ন পশুপ্রেমী সংগঠনের সদস্য। ঘটনার বেশ কয়েকটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায়ও আপলোড করেন তাঁরা। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে ঘটনাটি জানতে পেরে দুর্গাপুরে যান বর্ধমানের একটি পশুপ্রেমী সংগঠনের সদস্যরাও। বিস্তারিত খোঁজখবর নিয়ে অভিযুক্ত তুহিন মল্লিকের বিরুদ্ধে দুর্গাপুর থানার এফআইআর করেছেন তাঁরা। সংগঠনের সম্পাদক অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ‘কেরোসিন তেল ঢেলে একটি কুকুর ছানাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। আমরা সোশাল মিডিয়াতে এই ঘটনা দেখে দুর্গাপুরে গিয়ে স্থানীয় পশুপ্রেমীদের সহযোগিতা নিই। খোঁজ নিয়ে থানায় অভিযুক্ত তুহিন মল্লিকের নামে অভিযোগ দায়ের করেছি। অভিযুক্তের শান্তি নিশ্চিত করতে আইনজ্ঞদের পরামর্শ নেওয়া হচ্ছে।’  অভিযোগ খতিয়ে দেখে দোষীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন আসানসোল-দুর্গাপুর কমিশনারেটের ডিসি-১ অভিষেক মোদি।

DogDurgapur
ছবি: উদয়ন গুহরায়

গত জানুয়ারি মাসে কলকাতার এনআরএস হাসপাতালে ১৬টি কুকুরছানাকে পিটিয়ে মারা ঘটনার শোরগোল পড়েছিল রাজ্যে। নার্সিং পড়ুয়াদের হস্টেলের পিছনে কুকুরছানাদের পিটিয়ে মারা ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। এনআরএস নার্সিং স্কুলের অভিযুক্ত দুই ছাত্রীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে অবশ্য জামিন পেয়ে যান তাঁরা।

[আরও পড়ুন: বিয়ের উপহার রক্তদান, অভিনব আয়োজনে সচেতনতার বার্তা নবদম্পতির]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement