BREAKING NEWS

২৬ শ্রাবণ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

মাকে খুনের পর পিঠ বাঁচাতে নিখোঁজ ডায়েরি ছেলের, পুলিশি জেরায় ফাঁস সন্তানের কুকীর্তি

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: June 23, 2020 5:39 pm|    Updated: June 23, 2020 5:42 pm

An Images

অঙ্কন: সুযোগ বন্দ্যোপাধ্যায়

চন্দ্রজিৎ মজুমদার, কান্দি: বিধবা মাকে পিটিয়ে খুন করে ঘরের মধ্যে রেখে ছেলে থানায় গিয়েছিলেন। ভেবেছিলেন, নিখোঁজ ডায়েরি করে ঘটনার মোড় অন্যদিকে ঘুরিয়ে নিজেকে বাঁচাবেন। কিন্তু বিধি বাম। থানায় অভিযোগ করতে গিয়ে পুলিশের জেরার মুখে পড়ে নিজের কুকীর্তির কথা ফাঁস করে দিলেন ছেলে। মুর্শিদাবাদের সালারের ঘটনায় গুণধর পুত্রকে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার রাতে সালার থানার প্রসাদপুর গ্রামে বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে মাকে খুন করে কার্তিক পাল নামে এক যুবক। এরপর রাতেই মায়ের নিখোঁজ ডায়েরি করতে সে চলে যায় সালার থানায়। পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করতেই কিছুক্ষণের মধ্যে থতমত খেয়ে সব কিছু প্রকাশ করে দেয়। সম্ভবত বাঁশ জাতীয় কিছু দিয়ে পিছন থেকে মায়ের মাথায় আঘাত করে খুন করা হয়েছে। মৃতদেহ বাড়ি থেকে উদ্ধার করে পুলিশ, ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

[আরও পড়ুন: করোনায় মৃত্যু ব্যবসায়ীর, আক্রান্ত আরও কয়েকজন, আতঙ্কে ফের বন্ধ শিলিগুড়ির হংকং মার্কেট]

মাকে খুনের অভিযোগে ভাইয়ের সাজা চেয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ করেছেন দিদি কৃষ্ণা পাল। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে, বছর আটষট্টির সন্ধ্যারানি পালের সঙ্গে থাকতেন ছেলে কার্তিক। বিষয়-সম্পত্তি নিয়ে প্রায়ই ঝগড়া হতো মা-ছেলের। সোমবার রাতেও কথা কাটাকাটি হয়েছিল। তারপরই সম্ভবত পিটিয়ে মা-কে খুন করে কার্তিক। এই ঘটনায় কার্তিকের দিদি কৃষ্ণার অভিযোগ, ”ভাই কিছুদিন ধরে মানসিকভাবে ভারসাম্য হারিয়েছিল। ডাক্তার দেখানো হচ্ছিল। আমরা মায়ের কাছে এলে আমাদেরও মারধর করা হতো। আমরা ভয়ে কেউ আসতাম না। আজ সকালে এই ঘটনা শুনে ছুটে আসি।”

[আরও পড়ুন: চিকিৎসাধীন বধূর শ্লীলতাহানির অভিযোগ স্বাস্থ্যকর্মীর বিরুদ্ধে, উত্তপ্ত জঙ্গিপুর হাসপাতাল]

কার্তিকের কীর্তি দেখে হতবাক প্রতিবেশীরা। মা-ছেলের নিত্য অশান্তির কথা তাঁরা সকলেই জানতেন। কিন্তু রাগের বশে যে মাকে খুন করে ফেলবে কার্তিক, তা ভাবতেই পারছেন না কেউ। আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন তাঁরাও। খুনির দ্রুত সাজা চাইছেন সকলে। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement