×

২ চৈত্র  ১৪২৫  সোমবার ১৮ মার্চ ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
নিউজলেটার

২ চৈত্র  ১৪২৫  সোমবার ১৮ মার্চ ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শত বোঝানো, আশ্বাস দেওয়া সত্ত্বেও ধরে রাখা যায়নি দলের অন্যতম ডাকাবুকো বিধায়ক, সংগঠককে৷ স্রেফ লোকসভা ভোটে লড়বেন বলে এতদিনের দল ছেড়ে পা রেখেছেন অন্য শিবিরে৷ দলের এমন সদস্যকে নিয়ে মাথাব্যথা নেই বলেই দাবি তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বের৷ তাই অর্জুন সিংয়ের বিজেপিতে যোগদানের বিষয়কে অত গুরুত্বই দিচ্ছেন না কেউ৷ সকলেই বলছেন, বিজেপিতে গিয়ে বিশেষ সুবিধা করতে পারবেন না অর্জুন৷

ইসলামপুরে আক্রান্ত বিজেপি নেতা, অভিযোগ তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে

যাঁর সঙ্গে ভাটপাড়ার বিধায়কের এত লড়াই, বারাকপুরের সেই বিদায়ী সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদী বিষয়টিকে রীতিমতো তুচ্ছতাচ্ছিল্য করেছেন৷ বরং একদা রাজনৈতিক সতীর্থকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তিনি৷ তারপর তাঁর কটাক্ষ, ‘কে সুবিধাবাদী, তা সবাই বুঝেছেন৷’ একইভাবে অর্জুন সিংকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন বারাকপুরের বিধায়ক শীলভদ্র দত্তও৷ তাঁর মতে, ‘অর্জুন সিং থাকুন বা চলে যান, দলের কিছু যাবে,আসবে না৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জনপ্রিয়তায় কেউ ভাঁটা ফেলতে পারবে না৷ এখানে দীনেশ ত্রিবেদী হাসতে হাসতে জিতবেন৷ আমরা সবাই তাঁর জন্য লড়ছি৷ মমতার উন্নয়ন বনাম মোদির অপশাসনের লড়াই এটা৷’ দলের যুব সভাপতি তথা ডায়মন্ড হারবারের বিদায়ী সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথায়, ‘বারাকপুর থেকে বিজেপির টিকিটে অর্জুন সিং দাঁড়ালে, গোহারা হেরে যাবেন৷দীনেশ ত্রিবেদীর কাছে অন্তত ২ লক্ষ ভোটে পরাজিত হবেন৷’ দলের আরেক শীর্ষনেতা তথা রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম অবশ্য বেশ ক্ষোভপ্রকাশ করেছেন৷ তাঁকে ‘বেইমান’ বলে ফিরহাদ হাকিমের তোপ, শুধুমাত্র ব্যক্তিগত স্বার্থে যাঁরা দল করছেন, তাঁদের দলের বাইরে বেরিয়ে যাওয়াই ভাল৷’ একই প্রতিক্রিয়া বীজপুরের তৃণমূল বিধায়ক মুকুলপুত্র শুভ্রাংশু রায়ের৷ তাঁর সাফ কথা, ‘বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে বীজপুর বিধানসভা থেকে সবচেয়ে বেশি ভোটে এগিয়ে থাকবেন দীনেশ ত্রিবেদী৷ জিতবেন ২ লক্ষেরও বেশি ভোটে৷’ বাবা দল ছেড়ে চলে গিয়েছেন অনেকদিন হল৷ ছেলেও কি বাবার পথে হাঁটবেন? এসব গুঞ্জন আগেও ছিল, অর্জুন সিংয়ের দলবদলের পর তা ফের উসকে উঠেছে৷ এই প্রসঙ্গে উঠতেই শুভ্রাংশুর স্পষ্ট জবাব, ‘যতদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থাকবেন, ততদিন আমিও তৃণমূলেরই৷ যিনি চলে গিয়েছেন, তাঁকে নিয়ে ভাবার দরকার নেই৷ নেত্রী যখন যাঁকে ভোটে লড়াইয়ের নির্দেশ দেবেন, তা গ্রহণ করে নেব আমরা৷’ এনিয়ে নিজেদের পারিবারিক এবং রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের কথাও আর চেপে রাখলেন না শুভ্রাংশু৷

ঐতিহাসিক ১৪ মার্চে শ্রদ্ধা জানিয়ে নন্দীগ্রাম থেকে প্রচার শুরু তৃণমূলের

এদিকে, ভাটপাড়ার বিধায়কের পাশাপাশি ওই পুরসভার চেয়ারম্যানও অর্জুন সিং৷ তিনি নিজে দলবদলের সময়ে অন্তত ২২জন কাউন্সিলরকে সঙ্গে নিয়ে বেরিয়েছেন বলে দাবি বিজেপির৷ ফলে ৩৫ আসন বিশিষ্ট পুরসভার সংখ্যাগরিষ্ঠ কাউন্সিলরই বিজেপিতে চলে যাওয়ায়, অঙ্কের হিসেবে ভাটপাড়া পুরসভাটিই বিজেপির দখলে যাচ্ছে৷ এই সংকটজনক পরিস্থিতি নিয়ে চিন্তা বেড়েছে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বের৷ পুরসভার বাকি তৃণমূল কাউন্সিলরদের নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসেন জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক৷ সঙ্গে ছিলেন তাপস রায়, নির্মল ঘোষ৷ জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, ‘শুধু টিকিট পাননি বলে দল ছেড়ে চলে গেলেন অর্জুন সিং৷ এতে দলের কী করার আছে?’ তবে মুখে এত কিছু বললেও, ভাটপাড়া পুরসভার ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে তৃণমূল নেতৃত্বের৷ বারাকপুর শিল্পাঞ্চলে ভোটে দলের অন্যতম নির্ভরযোগ্য নেতার এভাবে সরে যাওয়াও কম ধাক্কা নয় বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং