BREAKING NEWS

২৪ বৈশাখ  ১৪২৮  শনিবার ৮ মে ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

Bengal Poll Results: পরিবর্তন নয় প্রত্যাবর্তন, ২০০'র বেশি আসন নিয়ে বাংলার মসনদে ফের মমতা-ই

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: May 2, 2021 8:02 am|    Updated: May 3, 2021 8:22 am

An Images

বঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে আট দফার ভোটের ফলপ্রকাশ হল। ২৯২ টি আসনে ভোটগণনা হল। বাকি ২টি আসনে প্রার্থীর মৃত্যুতে সেখানে ভোট হয়নি। কোভিডবিধি মেনে, প্রত্যেক গণনাকর্মী, রাজনৈতিক দলের এজেন্টদের স্বাস্থ্যপরীক্ষা করে তবেই কেন্দ্রে প্রবেশের অনুমোদন দেওয়া হয়। কড়া নিরাপত্তায় জেলার প্রশাসনিক ভবনগুলিতে হয় ভোটের গণনা।  মোতায়েন  ছিল২৪২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। কোন কেন্দ্রে কোন প্রার্থীর কেমন রেজাল্ট আপডেট: 

রাত ১১.২৬: বাংলায় পরিবর্তনের হাওয়া নয়, প্রত্যাবর্তনেই আস্থা রাখল বঙ্গবাসী। দুশোর বেশি আসন নিয়ে বাংলার মসনদে বসছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

সকাল ১১.২০: নন্দীগ্রামে পুনর্গণনার দাবি খারিজ করল কমিশন। এ বিষয়ে রিটার্নিং অফিসারও কমিশনের সঙ্গে সহমত হন। ‘সুপার ওভারে’ শেষপর্যন্ত জয় পান বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী।

রাত ৯.৫২: বিপুল জয়ের জন্য তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে শুভেচ্ছা জানালেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীররঞ্জন চৌধুরী। তাঁর কথায়, জনমোহিনী নীতি এবং প্রশান্ত কিশোরের সুচারু রণকৌশলের জেরেই বিরাট ব্যবধানে জয় পেল তৃণমূল। একইসঙ্গে তাঁর সমালোচনা, “তৃণমূলের বিকল্প হয়ে উঠতে পারেনি সংযুক্ত মোর্চা।”

রাত ৯.৪২: তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তামিলনাড়ুর ভাবী মুখ্যমন্ত্রী তথা ডিএমকে নেতা স্ট্যালিনের সঙ্গে কথা বললেন কংগ্রেসের অন্তর্বর্তীকালীন সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। 

 

রাত ৯.৪১: নন্দীগ্রামের ফাইনাল রেজাল্ট শিটে স্বাক্ষর করতে নারাজ তৃণমূল। 

রাত ৯.৩৪: নন্দীগ্রামের গণনায় কারচুপি নিয়ে নির্বাচন কমিশনে চিঠি দিল তৃণমূল। 

রাত ৯.২৮: হলদিয়ার গণনাকেন্দ্রের বাইরে উত্তেজনা। পুনর্গণনার দাবিতে অনড় তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী ফের গণনাকেন্দ্রে পৌঁছতেই উত্তেজনা ছড়ায়। গাড়ি ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখান তৃণমূল কর্মীরা। রাস্তায় বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন তৃণমূল কর্মীরা। অভিযোগ, তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এজেন্টকে কেন্দ্রীয় বাহিনী মারধর করেছে।   

রাত ৯.২৪: থেমে গেল গেরুয়া ঝড়! মমতাতেই আস্থা রাখল জঙ্গলমহল। ১১ টি আসনের মধ্যে ৯ টিতে জয় তৃণমূলের।

রাত ৯.২১: কলকাতায় সবুজ ঝড়। ১১টি আসনেই বিপুল ব্যবধানে জয়ী তৃণমূল। 

রাত ৯.১৫: আলিপুরদুয়ারে পাঁচ আসনে জিতল বিজেপি। 

রাত ৯.০৬: আগামিকাল সন্ধেয় রাজভবনে রাজ্যপাল-মমতা বৈঠক। 

রাত ৮.৪৩: নন্দীগ্রামে পুনর্গণনার দাবি নিয়ে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ তিন সদস্য। নন্দীগ্রামে পুনর্গণনা হবে কিনা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে কমিশন। 

রাত ৮.১৬: টানাপোড়েন শেষ। নন্দীগ্রামে শেষ হাসি হাসলেন বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী। ১৭৩৬ ভোটে জয় পেলেন তিনি। পুনর্গণনার পর ঘোষণা করেছেন রিটার্নিং অফিসার। টুইট করে ফলাফল জানান বিজেপি প্রার্থী নিজেই। নন্দীগ্রামবাসীকে ধন্যবাদ জানালেন শুভেন্দু।

 

সন্ধে ৭: কোভিডবিধি মেনে সংকটকালে সাবধানে পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভার ফলাফল প্রকাশিত হওয়ায় খুশি রাজ্যপাল। রাজ্য সরকারের ভূমিকার প্রশংসায় টুইট জগদীপ ধনকড়।  

সন্ধে ৬.৪৮: দিনহাটা কেন্দ্র থেকে মাত্র ৬৯ ভোটে বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিকের কাছে হারলেন তৃণমূল প্রার্থী উদয়ন গুহ। গণনায় কারচুপির অভিযোগে ফের গণনার দাবি তুললেন তিনি। 

সন্ধে ৫.৪৫: নন্দীগ্রামের ভোটের গণনায় অস্বচ্ছতা, কারচুপির অভিযোগ। পুনর্গণনার দাবি জানাল তৃণমূল। হলদিয়ার গণনাকেন্দ্রে যাচ্ছেন তাঁর নির্বাচনী এজেন্ট।

সন্ধে ৬.১৫: নন্দীগ্রাম আসনে ফলপ্রকাশ নিয়ে টানাপোড়েনে ক্ষুব্ধ মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। তাঁকে জয়ী ঘোষণা করার পরও জয়ের দাবি শুভেন্দু অধিকারীর। কারচুপি হয়েছে বলে অভিযোগ তুলে সুপ্রিম কোর্টে দ্বারস্থ হওয়ার ঘোষণা তৃণমূল নেত্রীর। দাবি, ১৯৫৩ ভোটে জিতেছেন শুভেন্দু। 

সন্ধে ৬.১০: নন্দীগ্রামে শেষ মুহূর্তে পট পরিবর্তন। শেষ রাউন্ডের গণনায় জয়ী শুভেন্দু, হারলেন মমতা। ভোটের ব্যবধান ১৯৫৩। ‘মানুষের রায় মাথা পেতে নিলাম’, বললেন মমতা।

সন্ধে ৬.০৫: ”বাংলার জয়, বাংলার মানুষের জয়। টার্গেট ছিল ২২১ আসনে জয়। রাজ্যে ঘাসফুল ঝড় বয়ে গিয়েছে, তার কৃতিত্ব মানুষের।” সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  কমিশনের আচরণ নিয়ে ফের ক্ষোভপ্রকাশ করলেন তিনি। কবে শপথ, জানাবেন পরে। কোভিড সংকট কাটলে বিজয় মিছিল হবে ব্রিগেডে, জানালেন তৃণমূল নেত্রী।

বিকেল ৫.৫৯: শালবনি থেকে তৃণমূল প্রার্থী শ্রীকান্ত মাহাতো জয়ী ৩২,৬৮২ ভোটে। গড়বেতায় তৃণমূলের উত্তরা সিংহ হাজরা জিতলেন ১০ ৬৮২ ভোটে। 

বিকেল ৫.৫৭: বহরমপুরে পরাজিত হলেন কংগ্রেসের মনোজ চক্রবর্তী। জয়ী হলেন বিজেপির সুব্রত মৈত্র। 

বিকেল ৫.৫৪: ডেবরায় প্রায় ৪৩ হাজার ভোটে জিতলেন তৃণমূল প্রার্থী প্রাক্তন আইপিএস হুমায়ুন কবীর।

বিকেল ৫.৪৭: ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি কেন্দ্রে হারলেন রাজ্যের বিদায়ী মন্ত্রী গৌতম দেব। জিতলেন বিজেপির শিখা চট্টোপাধ্যায়।

বিকেল ৫.৩৬:  বঙ্গে বিজেপির শোচনীয় ফল। এই ব্যর্থতার কারণ খুঁজতে আত্মসমীক্ষার প্রয়োজন, মনে করেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। নতুনদের দলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত সঠিক নয়, হারের দায় চাপালেন দিলীপ ঘোষ।

বিকেল ৫.২৫: জোড়াসাঁকো কেন্দ্রে জয়ী তৃণমূলের প্রার্থী বিবেক গুপ্ত। বারাকপুরে জয়ী তৃণমূলের তারকা প্রার্থী রাজ চক্রবর্তী।

বিকেল ৫.১৭: খড়দহ কেন্দ্রে প্রয়াত তৃণমূল প্রার্থী কাজল সিনহা ২৮ হাজার ৪১ভোটে জয়ী। এই কেন্দ্রে উপনির্বাচন হবে।

বিকেল ৫.০৬: প্রথম কাজ হবে কোভিড মোকাবিলা।  মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে দলীয় সমর্থকদের জমায়েতে এসে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বার্তা মমতার। বললেন, ”এখন বিজয় মিছিল নয়, বরং কোভিডে অনেকে আক্রান্ত, তাঁদের জন্য কিছু করুন।” জয়ের জন্য সবাইকে অভিনন্দন জানালেন নেত্রী। 

বিকেল ৫: জয়ের পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন অখিলেশ যাদব, অরবিন্দ কেজরিওয়াল, হেমন্ত সোরেনরা। পাশাপাশি শুভেচ্ছাবার্তা পাঠিয়েছেন রাজনাথ সিং, নির্মলা সীতারমণও।

বিকেল ৪.৪২: বিধাননগরে জয়ী সুজিত বসু। গোহারা হারলেন সব্যসাচী দত্ত। রাজারহাট-গোপালপুর থেকে জয়ী অদিতি মুন্সি।  পাণ্ডবেশ্বর থেকে হারলেন জিতেন্দ্র তিওয়ারি।

বিকেল ৪.৩৪: তৃণমূলের প্রাপ্ত ভোট ৪৮.৫ শতাংশ, বিজেপির ঝুলিতে এল ৩৭.৮ শতাংশ। 

বিকেল ৪.২২: শেষবেলায় বাজিমাত। দড়ি টানাটানির খেলায় নন্দীগ্রামে শেষ হাসি হাসলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ই। ১২০০ ভোটে জয়ী হয়ে হুইলচেয়ার ছেড়ে হেঁটে বাড়ি থেকে বেরলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। 

বিকেল ৪.১৮: বারাসত থেকে ২৩ হাজার ভোটে জয়ী চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তী। কাশীপুর-বেলগাছিয়া কেন্দ্র থেকে ৩৪ হাজারের বেশি ভোটে জিতলেন অতীন ঘোষ।

বিকেল ৪.১২: দার্জিলিংয়ে জয়ী বিজেপি সমর্থিত GNLF প্রার্থী নীরজ জিম্বা। হাওড়ার শ্যামপুরে পরাজিত বিজেপির তারকা প্রার্থী তনুশ্রী চক্রবর্তী। ডোমজুড় থেকে হার রাজীব বন্দ্য়োপাধ্য়ায়।

বিকেল ৪.০৫: চৌরঙ্গি কেন্দ্রে জয়ী তৃণমূল প্রার্থী নয়না বন্দ্যোপাধ্যায়। ক্যানিং পূর্ব থেকে জিতলেন শওকত মোল্লা।

দুপুর ৩.৫৭: ষোড়শ রাউন্ড গণনা শেষে ৮২০ ভোটে এগিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

দুপুর ৩.৫৩: সিঙ্গুরে প্রায় ২৬ হাজার ভোটে জয়ী বেচারাম মান্না। শোচনীয় হার ‘মাস্টারমশাই’ রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য। সোনারপুর দক্ষিণে জয়ী লাভলি মৈত্র। সোনারপুর উত্তরে জিতলেন ফিরদৌসি বেগম।

দুপুর ৩.১২: খড়গপুর সদর কেন্দ্র থেকে পিছিয়ে থেকেও শেষ মুহূর্তে জয়ী বিজেপির তারকা প্রার্থী হিরণ চট্টোপাধ্যায়।

দুপুর ৩.০৫: আট হাজার ভোটে এগিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  

দুপুর ৩: সার্ভার সমস্যা। উত্তর ২৪ পরগনার বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে বন্ধ ভোটগণনা। বারাসত, বারাকপুরে প্রায় ৪০ মিনিট বন্ধ গণনা।

দুপুর ২.৫৩: ১৫ রাউন্ড শেষে নন্দীগ্রামে ৩৮০০ ভোটে এগিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

দুপুর ২.৪০: রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় পিছিয়ে পড়তেই ডোমজুড়ে অশান্তি। জামুড়িয়ায় বিজেপি প্রার্থীর গাড়িতে ভাঙচুরের অভিযোগ। পরিস্থিতি সামলাতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর লাঠিচার্জ। আহত ২।

দুপুর ২.৩০: ১২ রাউন্ডের শেষে নন্দীগ্রামে প্রায় ৪৭০০ ভোটে এগিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

দুপুর ২.২০: ভাঙড়ে জয়ী আইএসএফ প্রার্থী নওসাদ সিদ্দিকি। 

দুপুর ২.০৫: জামুড়িয়ায় পরাজিত তরুণ সিপিএম প্রার্থী ঐশী ঘোষ। জিতলেন তৃণমূল প্রার্থী হরেরাম সিং। শিবপুরে জিতলেন তৃণমূলের মনোজ তিওয়ারি।

দুপুর ১.৫৮: নন্দীগ্রামে ১১ রাউন্ড গণনার শেষে শুভেন্দু অধিকারীকে পিছনে ফেলে ৩,৩২৭ ভোটে এগিয়ে গেলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

দুপুর ১.৫৫: বাংলায় বিজেপির ফলাফল নিয়ে হতবাক বিজেপি নেতৃত্ব। কৈলাস বিজয়বর্গীয়র বক্তব্য,  ”জয় হলে মমতার জয়। কিন্তু বিজেপির নিশ্চিত আসনে কেন হার, সেটা আশ্চর্যের বিষয়। বাবুল, লকেট, রাহুলদের পিছিয়ে থাকাটা আশ্চর্যজনক।”

দুপুর ১.৫২: নৈহাটিতে জয়ী তৃণমূল প্রার্থী পার্থ ভৌমিক। সুজাপুরে জয়ী তৃণমূলের আবদুল গনি। উলুবেড়িয়া পূর্বে জয়ী বিদেশ বসু। অন্যদিকে, শিলিগুড়িতে জয়ী বিজেপি প্রার্থী শংকর ঘোষ। পরাজিত বামপ্রার্থী অশোক ভট্টাচার্য। 

দুপুর ১.৪৩: পশ্চিম বর্ধমানের কুলটিতে বিজেপির অজয় পোদ্দার জিতলেন ২৭৫ ভোটে। পরাজিত তৃণমূলের তিন বারের বিধায়ক উজ্জ্বল চট্টোপাধ্যায়।

দুপুর ১.৩৮: পূর্ব বর্ধমানের ১৬টি বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে ১৪টিতে এগিয়ে তৃণমূল। ২টিতে বিজেপি এগিয়ে।

দুপুর ১.৩৫: পুরুলিয়ার বাঘমুন্ডিতে আচমকাই ট্রেন্ড বদল। পঞ্চম রাউন্ড শেষে বাঘমুন্ডি বিধানসভায় বিজেপি সমর্থিত আজসু প্রার্থী আশুতোষ মাহাতো ১৯৬০ ভোটে এগিয়ে।

দুপুর ১.২৮: ফলাফল ঘোষণা শুরু। হাওড়ার উদয়নারায়ণপুরে জয়ী তৃণমূল প্রার্থী সমীর পাঁজা।

দুপুর ১.২৫: সার্ভার সমস্যার কারণে নন্দীগ্রামে ভোটগণনার কাজ ব্যাহত। নন্দীগ্রাম ১ ব্লকে গণনাই শুরু হতে পারেনি। জানাল কমিশন। কিছুক্ষণ পর অবশ্য সমস্যা মিটে শুরু হয় গণনা।

দুপুর ১: বিজয় মিছিলের আগেই নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল নির্বাচন কমিশন। কিন্তু ভোটের ফলাফলের ট্রেন্ডে তৃণমূল কর্মী, সমর্থকদের বিজয়োল্লাসের ছবি প্রকাশ্যে আসতেই আরও কড়া।সংশ্লিষ্ট এলাকার থানার ওসিদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করার নির্দেশ কমিশনের।

দুপুর ১২.৪৭: দুপুর গড়াতেই আরও জমজমাট লড়াই মমতা-শুভেন্দুর। প্রথম থেকে পিছিয়ে থাকার পর ১৫০০ ভোটে সামান্য এগিয়েও পিছিয়ে গেলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে কর্মীদের চাঙ্গা করতে তাঁর বার্তা, ‘নন্দীগ্রামে ফল বদলাবেই’। 

দুপুর ১২.৪০: বাঁকুড়ায় এগিয়ে তৃণমূলের তারকা প্রার্থী সায়ন্তিকা বন্দ্যোপাধ্যায়। ক্যানিং পূর্ব ও ভাঙড়ে এগিয়ে আইএসএফ। 

দুপুর ১২.৩০: রাজারহাট-নিউটাউনে তৃণমূল প্রার্থী তাপস চট্টোপাধ্যায় এগিয়ে ১৯ হাজার ভোটে। রাজারহাট-গোপালপুরে অদিতি মুন্সি এগিয়ে ১০ হাজারেরও বেশি ভোটে।

দুপুর ১২.১৬: নন্দীগ্রামে অষ্টম রাউন্ড শেষে বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী এগিয়ে ১০,০১১ভোটে। 

দুপুর ১২.১০: দিকে দিকে তৃণমূল প্রার্থীদের এগিয়ে থাকার খবর মিলতেই কালীঘাটে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ির সামনে অনুরাগীদের ঢল, সবুজ আবির নিয়ে খেলা। 

দুপুর ১২.০৫: পূর্ব বর্ধমানের ১৬ টি আসনের মধ্যে ১৩ টিতে এগিয়ে তৃণমূল, ৩টি আসনে বিজেপি। জলপাইগুড়ির ৭ আসনের মধ্যে ৭টিতেই এগিয়ে বিজেপি।

দুপুর ১২: রাসবিহারী কেন্দ্রে এগিয়ে দেবাশিস কুমার। দিনের শুরু থেকেই এই কেন্দ্রে এগিয়েছিলেন বিজেপি প্রার্থী প্রাক্তন সেনাকর্তা সুব্রত সাহা।

বেলা ১১.৪৮: নন্দীগ্রামে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পিছিয়ে থাকলেও পূর্ব মেদিনীপুরে সামগ্রিকভাবে ঘাসফুল ঝড়। ১০-৬এ এগিয়ে তৃণমূল। পশ্চিম মেদিনীপুরে ১২-৩এ এগিয়ে শাসকদল।

বেলা ১১.৪৫: ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি কেন্দ্রে পিছিয়ে  রাজ্য়ের বিদায়ী গৌতম দেব। মন্তেশ্বর কেন্দ্র থেকে পিছিয়ে রাজ্য়ের আরেক মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী।

বেলা ১১.৪২: মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে পৌঁছলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

বেলা ১১.৩৫: ডেবরায় দুই আইপিএসের লড়াই জমজমাট। ভারতী ঘোষকে পিছনে ফেলে এগিয়ে হুমায়ুন কবীর।

বেলা ১১.৩২: ষষ্ঠ রাউন্ড গণনা শেষে নন্দীগ্রামে ৭ হাজারেরও বেশি ভোটে এগিয়ে শুভেন্দু অধিকারী।চাপ বাড়ছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। 

বেলা ১১.৩০: বিধাননগরে পঞ্চম রাউন্ড গণনা শেষে ফের এগিয়ে তৃণমূল প্রার্থী সুজিত বসু, পিছিয়ে সব্যসাচী দত্ত। নাটাবাড়ি কেন্দ্রে পিছিয়ে বিদায়ী মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ, এগিয়ে বিজেপির মিহির গোস্বামী।

বেলা ১১.২৪: সিঙ্গুরে এগিয়ে তৃণমূল প্রার্থী বেচারাম মান্না। পিছিয়ে ‘মাস্টারমশাই’ রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য।

বেলা ১১.১৯: ছ’ রাউন্ড গণনায় পিছিয়ে থেকে কার্যত হার মানলেন শিলিগুড়ির হেভিওয়েট সিপিএম প্রার্থী অশোক ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, ”লোকসভা নির্বাচনে যে ভোট আমরা হারিয়েছি, শিলিগুড়িতে তা মনে হচ্ছে আমরা ফিরিয়ে আনতে পারিনি। হারের কারণ দল পর্যালোচনা করবে।” এই কেন্দ্রে এগিয়ে বিজেপির শংকর ঘোষ।

বেলা ১১.১০: ঝাড়গ্রামের চারটি বিধানসভা কেন্দ্রের চারটিতেই এগিয়ে তৃণমূল। আরামবাগ কেন্দ্রে এগিয়ে তৃণমূল প্রার্থী সুজাতা মণ্ডল খাঁ। 

বেলা ১১.০৫: টালিগঞ্জে ৮৫০০ ভোটে বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়র থেকে এগিয়ে তৃণমূল প্রার্থী অরূপ বিশ্বাস। 

বেলা ১১: নন্দীগ্রামে ফের ব্যবধান কমালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। চতুর্থ রাউন্ড শেষে শুভেন্দু অধিকারীর থেকে ৪০০০ ভোটে পিছিয়ে তিনি। 

সকাল ১০.৫৭: চাপদানি থেকে পিছিয়ে বিদায়ী বিরোধী দলনেতা তথা কংগ্রেস প্রার্থী আবদুল মান্নান।

সকাল ১০.৫০: বেহালা পূর্ব ও পশ্চিম – দুই কেন্দ্রেই পিছিয়ে বিজেপির দুই তারকা প্রার্থী পায়েল সরকার ও  শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। এগিয়ে তৃণমূলের রত্না চট্টোপাধ্যায়, পার্থ চট্টোপাধ্যায়। কাশীপুর-বেলগাছিয়ায় এগিয়ে অতীন ঘোষ। 

সকাল ১০.৩৯: খড়দহে এগিয়ে প্রয়াত তৃণমূল প্রার্থী কাজল সিনহা। ষষ্ঠ দফায় এই কেন্দ্রে ভোটের পরেরদিনই করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় তাঁর। 

সকাল ১০.৩৬: মালদহ, মুর্শিদাবাদে দলের ফলাফলে খুশি তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, খবর দলীয় সূত্রে। 

সকাল ১০.৩৪: প্রথম রাউন্ড গণনা শেষে রাজারহাট-গোপালপুর থেকে তৃণমূল প্রার্থী অদিতি মুন্সি  এগিয়ে ৩১০০ ভোটে। ডোমজুড়ে পিছিয়ে বিজেপির রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়।

সকাল ১০.৩০: দ্বিতীয় রাউন্ড শেষে সিঙ্গুরের তৃণমূল প্রার্থী বেচারাম মান্না ১২০০ ভোটে এগিয়ে বিজেপি প্রার্থী রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যর থেকে। চুঁচুড়ার তৃণমূল প্রার্থী অসিত মজুমদার বিজেপির লকেট চট্টোপাধ্যায়ের থেকে ৩৩০০ ভোটে এগিয়ে।

সকাল ১০.২৬: চণ্ডীপুরে তৃণমূলের তারকা প্রার্থী সোহম চক্রবর্তী এগিয়ে প্রথম রাউন্ড গণনা শেষে।

সকাল ১০.২০: প্রথম রাউন্ড শেষে উত্তরপাড়ার তৃণমূল প্রার্থী কাঞ্চন মল্লিক প্রায় ১২০০ ভোটে এগিয়ে, পিছিয়ে বিজেপি প্রার্থী প্রবীর ঘোষাল। 

সকাল ১০.১৬: তারকেশ্বরে এগিয়ে বিজেপি প্রার্থী স্বপন দাশগুপ্ত। কসবা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী জাভেদ খান এগিয়ে ২৭ হাজার ভোটে। 

সকাল ১০: কামারহাটি কেন্দ্রে এগিয়ে তৃণমূলের মদন মিত্র। বারাকপুরে এগিয়ে রাজ চক্রবর্তী। রাসবিহারী কেন্দ্রে পিছিয়ে তৃণমূল প্রার্থী দেবাশিস কুমার। ভবানীপুর কেন্দ্রে পিছিয়ে বিজেপির তারকা প্রার্থী রুদ্রনীল ঘোষ।

সকাল ৯.৫৪: কৃষ্ণনগর উত্তরে পিছিয়ে তৃণমূলের তারকা প্রার্থী কৌশানি মুখোপাধ্যায়। ১৪০০র বেশি ভোটে এগিয়ে মুকুল রায়। বীজপুর কেন্দ্রে শুভ্রাংশু রায়। 

সকাল ৯.৫০: শীতলকুচিতে এগিয়ে তৃণমূল প্রার্থী পার্থপ্রতিম রায়। এই কেন্দ্রেই ভোটের দিন কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। ২৯ এপ্রিল এই কেন্দ্রে ফের ভোট হয়। 

সকাল ৯.৪৬: দ্বিতীয় রাউন্ড গণনা শেষে নন্দীগ্রামে আরও বেশি ব্যবধানে এগিয়ে গেলেন শুভেন্দু অধিকারী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পিছিয়ে প্রায় ৫০০০ ভোটে। 

সকাল ৯.৪২: ভাঙড়ে এগিয়ে তৃণমূলের রেজাউল করিম। শালবনিতে পিছিয়ে সুশান্ত ঘোষ।

সকাল ৯.৪০: প্রথম রাউন্ড গণনা শেষে বিধাননগরে এগিয়ে তৃণমূলের সুজিত বসু, রাজারহাট-নিউটাউনে এগিয়ে তাপস চট্টোপাধ্যায়।

সকাল ৯.৩৮: যাদবপুরে পিছিয়ে সংযুক্ত মোর্চা প্রার্থী সুজন চক্রবর্তী। এগিয়ে তৃণমূলের দেবব্রত মজুমদার। শিলিগুড়িতে পিছিয়ে সিপিএমের অশোক ভট্টাচার্য। বিজেপি প্রার্থী প্রায় ৮০০০ ভোটে এগিয়ে আছে।

সকাল ৯.৩৫:ভবানীপুর কেন্দ্রে ২২০০ ভোটে এগিয়ে তৃণমূলের শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। কলকাতা বন্দরে ৬২০০ ভোটে এগিয়ে ফিরহাদ হাকিম।

সকাল ৯.৩১: মেদিনীপুরে এগিয়ে তৃণমূলের সেলিব্রিটি প্রার্থী জুন মালিয়া। চণ্ডীতলায় পিছিয়ে সংযুক্ত মোর্চার মহঃ সেলিম, বিজেপির তারকা প্রার্থী যশ দাশগুপ্ত।  

সকাল ৯.২৬: হাইভোল্টেজ নন্দীগ্রামে পোস্টাল ব্যালট গণনা শেষে পিছিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ১৪৯৭ ভোটে এগিয়ে বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী।  

সকাল ৯.১৪: আসানসোল দক্ষিণ কেন্দ্রে এগিয়ে তৃণমূলের সেলিব্রিটি প্রার্থী সায়নী ঘোষ। পিছিয়ে বিজেপির অগ্নিমিত্রা পল। 

সকাল ৯: উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জ, কালিয়াগঞ্জে এগিয়ে বিজেপি। ইটাহার, করণদিঘি, হেমতাবাদ,
গোয়ালপোখর এবং চোপড়ায় এগিয়ে তৃণমূল। জলপাইগুড়িতে ২ টি আসনে এগিয়ে বিজেপি, একটিতে তৃণমূল। 

সকাল ৮.৫৩: সোনারপুর দক্ষিণে এগিয়ে তৃণমূলের সেলিব্রিটি প্রার্থী লাভলি মৈত্র। টালিগঞ্জে এগিয়ে বাবুল সুপ্রিয়। কলকাতা বন্দরে এগিয়ে ফিরহাদ হাকিম। শিবপুর কেন্দ্রে এগিয়ে মনোজ তিওয়ারি। 

সকাল ৮.৪৬: বিধাননগরে এগিয়ে সব্যসাচী দত্ত, বোলপুরে এগিয়ে  তৃণমূলের চন্দ্রনাথ সিনহা।

সকাল ৮.৪০: পোস্টাল ব্যালট গণনায় নন্দীগ্রামে এগিয়ে শুভেন্দু অধিকারী।  পুরুলিয়া, রঘুনাথপুরে এগিয়ে বিজেপি প্রার্থীরা। বালিগঞ্জে এগিয়ে সুব্রত মুখোপাধ্যায়। বাঘমুন্ডি আসনে এগিয়ে সংযুক্ত মোর্চা প্রার্থী নেপাল মাহাতো। 

সকাল ৮.৩৬: দমদমে পিছিয়ে তৃণমূলের হেভিওয়েট প্রার্থী ব্রাত্য বসু। দমদম উত্তরে এগিয়ে বিজেপি। মানিকতলায় এগিয়ে সাধন পাণ্ডে। 

সকাল ৮.৩২: জামুড়িয়ায় এগিয়ে সংযুক্ত মোর্চা প্রার্থী ঐশী ঘোষ। বারাকপুর, ভাটপাড়া, হাবড়া, বনগাঁ উত্তর, বনগাঁ দক্ষিণে এগিয়ে বিজেপি। 

সকাল ৮.২৮:পোস্টাল ব্যালট গণনায় হাসন, সুজাপুরে এগিয়ে সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থীরা।

সকাল ৮.২০: দাঁতন, মুরারই, মঙ্গলকোট, খড়গপুর সদর, রানাঘাট দক্ষিণে এগিয়ে তৃণমূল। রানিগঞ্জ, কেশিয়াড়ি, চন্দ্রকোণা, আলিপুরদুয়ার, দিনহাটা, মাদারিহাটে  এগিয়ে বিজেপি। 

সকাল ৮.১২: পোস্টাল ব্যালট গণনার শুরুতে ৬ আসনে এগিয়ে বিজেপি, ৩ আসনে এগিয়ে তৃণমূল। কেতুগ্রাম, আসানসোল উত্তর, সবং, নলহাটিতে এগিয়ে তৃণমূল, মেমারি, সিউড়ি, দুবরাজপুরে বিজেপি এগিয়ে।  

সকাল ৮.০৪: গণনার শুরুতেই পানিহাটিতে অসুস্থ কংগ্রেসের এজেন্ট। গরমে হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি। হাসপাতালে ভরতি করাতে হল। এই গণনাকেন্দ্রে কোভিড বিধি মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ। গণনা ঘিরে শুরুতেই গন্ডগোল। 

সকাল ৮: ভোটগণননা শুরু রাজ্যের ২৯২টি বিধানসভা কেন্দ্রে। ২ টি কেন্দ্রে ভোট হয়নি। প্রথম আধঘণ্টা পোস্টাল ব্যালটের গণনা। তারপর হবে ইভিএমের ভোটগণনা।

সকাল ৭.৫২: কলকাতার ৫ টি কেন্দ্রের ভোটগণনা হবে নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে। কড়া নিরাপত্তার বেড়াজালে সেখানে প্রবেশ করতে হচ্ছে সাংবাদিকদের। 

সকাল ৭.৪০: তৃণমূলের প্রতিনিধি ছাড়াই খোলা হবে স্ট্রংরুমের তালা। বিস্ফোরক অভিযোগ ভবানীপুর কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের। তিনি কমিশনে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

সকাল ৭.৩৬: সকাল থেকে গণনাকেন্দ্রের বাইরে দেখা গেল প্রার্থীদেরও। ভবানীপুর কেন্দ্রের গণনাকেন্দ্র শাখাওয়াত মেমোরিয়াল গার্লস স্কুলের বাইরে ওই কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী শোভনদেব চট্টোপাধ্য়ায়। বললেন, ‘লড়াইয়ে হার-জিত আছেই।’

সকাল ৭.৩০: বালিগঞ্জে ভোটগণনা শুরুর আগে অশান্তি। গণনাকেন্দ্রে বিজেপির এজেন্টকে বসতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ। পুলিশ পক্ষপাতিত্ব করছে বলে অভিযোগ বিজেপির। 

সকাল ৭.২৩: মাল কলেজে শুরু হতে চলেছে ভোটগণনা। কোভিডবিধি মেনে চলছে ভোটকর্মীদের স্বাস্থ্যপরীক্ষা।

সকাল ৭.২০: শিলিগুড়ি কলেজে হবে উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং কেন্দ্রের ভোটগণনা। নিরাপত্তায় মোতায়েন আধাসেনা বাহিনীর জওয়ানরা। চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি।

 

সকাল ৭.১৫: বীরভূমের বোলপুর, লাভপুর এবং নানুর বিধানসভার গণনা হতে চলেছে বোলপুর কলেজে।

সকাল ৭.১২: জলপাইগুড়ি জেলার সাতটি বিধানসভা আসনের মধ্যে পাঁচটি অর্থাৎ জলপাইগুড়ি সদর, ধূপগুড়ি, ময়নাগুড়ি, রাজপগঞ্জ এবং ডাবগ্রাম ফুলবাড়ি কেন্দ্রের ভোটগণনা হবে জলপাইগুড়ি র উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় ক্যাম্পাসে। কঠোর নিরাপত্তা সেই সঙ্গে কোভিড বিধি মেনে গণনার জন্য চূড়ান্ত প্রস্তুতি শেষ প্রশাসনের। 

৭.০৫: রাজ্যের সবচেয়ে হাইভোল্টেজ নন্দীগ্রাম কেন্দ্রের গণনা হবে হলদিয়া সরকারি কলেজে। সকলের নজর সেদিকেই। ইতিমধ্যে গণনার চূড়ান্ত প্রস্তুতি সেখানে। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার ১৬ টি বিধানসভার ভোট গননার জন্য মোট ৬ সেন্টার করা হয়েছে- হলদিয়া গভর্নমেন্ট স্পনসর্ড হাইস্কুল, কোলাঘাট কেটিপিপি হাইস্কুল ও কোলাঘাট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, কাঁথি প্রভাত কুমার কলেজ, এগরা ঝাটুলাল হাইস্কুল, বাজকুল মিলনী মহাবিদ্যালয়।

সকাল ৭: রাজ্যের ১০৮ টি কেন্দ্রে চলছে ভোটগণনার চূড়ান্ত প্রস্তুতি। কোভিডবিধি মেনে স্বাস্থ্যপরীক্ষা করে কেন্দ্রে প্রবেশের ছাড়পত্র মিলছে। গণনাকেন্দ্রের বাইরে ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তা। রয়েছে আধাসেনাও।

সকাল ৬.৩৭: ভোটগণনার আগে রাজ্য়ের বিভিন্ন জায়গায় অশান্তি। বেলেঘাটায় বিজেপি বুথ এজেন্টকে বাড়ি লক্ষ্য করে বোমাবাজি। অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। কোচবিহারের মাথাভাঙায় উদ্ধার তাজা বোমা।  

[আরও পড়ুন: কড়া নিয়মবিধির মাঝে রাজ্যে আরও কয়েকটি পরিষেবায় ছাড়, নয়া বিজ্ঞপ্তি নবান্নের

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement