BREAKING NEWS

১০ কার্তিক  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

পণের দাবিতে অন্তঃসত্ত্বাকে খুনের অভিযোগ, চণ্ডীপুরে উত্তেজনা

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 9, 2017 7:42 am|    Updated: August 9, 2017 7:42 am

Woman killed for dowry in East Midnapore

সৈকত মাইতি, পূর্ব মেদিনীপুর: পণের দাবিতে নিয়মিত অত্যাচার। শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বাকে বিষাক্ত রাসায়নিক খাইয়ে খুন। এই অভিযোগে তোলপাড় পূর্ব মেদিনীপুরের চণ্ডীপুরের কোর্টবাড়ি এলাকা। তমলুক জেলা সদর হাসপাতালে মৃত্যু হয় বধূ রুবিনা বিবির। ঘটনার পরই গা ঢেকে দেয় রুবিনার শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

[রাজ্যসভার ভোটে চূড়ান্ত নাটক, আহমেদ প্যাটেলের মাত শেষ রাতে]

চণ্ডীপুরের নারায়ণদাড়ি এলাকার বাসিন্দা শেখ রবিউলের মেয়ে রুবিনা। মাস আটেক আগে রবিউল চণ্ডীপুরেরই কোর্টবাড়ি এলাকার যুবক শেখ রেজাউলের সঙ্গে মেয়ের বিয়ে দিয়েছিলেন। অভিযোগ, বিয়ের পর থেকে নানা অছিলায় পণের কথা তুলে রুবিনার ওপর অত্যাচার চালাতে থাকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন। মানসিক নিগ্রহের পাশাপাশি শারীরিকভাবে হেনস্তাও করা হত সমানে। শ্বশুরবাড়িতে অপদস্থ হওয়ার কথা বাপেরবাড়িতে জানিয়েছিল রুবিনা। এই নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে কথা হলেও ছবিটা এতটুকু বদলায়নি। সম্প্রতি সন্তানসম্ভবা হয়ে পড়েন ওই বধূ। অভিযোগ, একই দাবিতে মঙ্গলবার তাঁকে মারধর করা হয়। এতেই শেষ হয়নি অত্যাচার। এরপর ঘরে থাকা বিষাক্ত রাসায়নিক রুবিনাকে জোর করে খাইয়ে দেওয়া হয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা ওই বধূকে নিয়ে যাওয়া হয় তমলুক জেলা সদর হাসপাতালে। সেখানেই লড়াই শেষ হয়ে যায় রুবিনার।

[নম্বর বাড়ানোর টোপ, ফাঁস ছাত্রীদের সঙ্গে শিক্ষকের সেক্স টেপ]

বিপদ বুঝে ঘটনার পর থেকেই বেপাত্তা হয়ে যায় রুবিনার শ্বশুরবাড়ির লোকজন। তাদের বিরুদ্ধে চণ্ডীপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে রুবিনার আত্মীয়রা। মৃতের মা শাকির বিবি অভিযোগ, সকালেই তাঁর মেয়েকে বিষ খাওয়ানো হয়। বিষয়টি নিয়ে শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে কথা বলেও কোনও কাজ হয়নি। অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে তারা সরব হয়েছেন। চণ্ডীপুর থানার পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্তরা পলাতক। অভিযোগের তদন্ত শুরু হয়েছে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement