১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

দশমীতে তরুণীর শ্লীলতাহানিকে ঘিরে ধুন্ধুমার রায়গঞ্জে, আটক টিএমসিপি নেতা

Published by: Sulaya Singha |    Posted: October 9, 2019 11:31 am|    Updated: October 9, 2019 4:40 pm

An Images

ছবি: প্রতীকী

শংকর কুমার রায়, রায়গঞ্জ: দশমীর রাতে এক তরুণীর শ্লীলতাহানির ঘটনাকে কেন্দ্র করে তুলকালাম উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জের বকুলতলায়। ঘটনাকে ঘিরে থানায় চড়াও হন টিএমসিপি ছাত্রনেতারা। থানায় ভাঙচুর চালানোয় আহত হন সন্দীপ চক্রবর্তী-সহ তিন পুলিশ কর্মী।

[আরও পড়ুন: বিসর্জন দেখতে গিয়ে নৌকাডুবি, মালদহের বৈষ্ণবনগরে মৃত ৩ শিশু]

মঙ্গলবার দশমীতে মা’কে বিদায় জানাতে এ বাংলার প্রতিটা নদীর ঘাটেই ভিড় উপচে পড়েছিল। ব্যতিক্রম ছিল না রায়গঞ্জও। প্রতিমা নিরঞ্জন দেখতে ভিড়ের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এক তরুণীও। অভিযোগ, রাত সাড়ে এগারোটা নাগাদ এক যুবক তরুণীর শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। তাঁর ওড়না ধরে টানাটানি করে। পিঠে ঘুসিও মারে। প্রতিবাদে যুবককে চড় কষান তরুণী। এরপরই নিজেকে রক্ষা করতে তরুণী সেখান চলে যান। খানিক পরই টিএমসিপি ছাত্রপরিষদের সদস্যদের নিয়ে  বিবেকানন্দ মোড়ের কাছে পৌঁছান রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের আক্রান্ত ওই ছাত্রী। এক যুবককে অভিযুক্ত হিসেবে চিহ্নিত করেন তিনি। তারপরই টিএমসিপি কর্মী ও ছাত্রনেতারা ওই যুবকের উপর হামলা চালায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সেই সময় ওই এলাকায় উপস্থিত পুলিশ লাঠিচার্জ করে বলে খবর। পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে আহত হন বেশ কয়েকজন ছাত্রনেতা। দলের এক কর্মীকে আটকও করা হয়।

police

ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই ক্ষুব্ধ। এরপরই প্রতিবাদী টিএমসিপি কর্মীর পাশে দাঁড়িয়ে থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন দলের প্রায় শ’পাঁচেক কর্মী-সদস্যরা।চলে ভাঙচুর। দশমীর রাতে রীতিমতো ধুন্ধুমার পরিস্থিতিতে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে রায়গঞ্জ থানা চত্বর। ঘটনায় সন্দীপ চক্রবর্তী-সহ তিনজন পুলিশ কর্মী জখম হন। তাঁদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। আপাতত তাঁরা সুস্থ।

[আরও পড়ুন: যমুনা দূষণ রোধে অভিনব উদ্যোগ, মন্দির প্রাঙ্গণেই প্রতিমা বিসর্জন দিল্লিতে]

 রায়গঞ্জ পুলিশ সুপার সুমিত কুমার বলেন, “সন্দেহের বশে যুবকটিকে মারধর করা হচ্ছিল। তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে লাঠি চার্জ করা হয়। গোটা ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।” এদিকে টিএমসিপির জেলা সভাপতি অনুপ কর বলেন, “তরুণীকে উদ্ধার করতে গিয়ে পুলিশের লাঠিচার্জের মুখে পড়তে হয়। ঘটনার প্রতিবাদ করছি। থানায় অভিযোগ দায়ের করব।” যদিও তাঁদের তরফে এখনও কোনও অভিযোগ দায়ের হয়নি। তবে তরুণীর পরিবার থানায় লিখিত অভিযোগ জানিয়েছে। ঘটনায় এখনও পর্যন্ত শ্লীলতাহানির অভিযোগে কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement