BREAKING NEWS

১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  শনিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২০ 

Advertisement

পুজোর সপ্তাহে রাজ্যে মারাত্মক হারে করোনা সংক্রমণ, চিন্তা বাড়িয়ে কমল সুস্থতাও

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: October 19, 2020 8:30 pm|    Updated: October 19, 2020 8:40 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পুরোপুরি উৎসবের মরশুমে প্রবেশ করেছেন রাজ্যবাসী। তবে দুর্গাপুজোর আনন্দে তাল কেটে দিচ্ছে করোনা  (Coronavirus) সংক্রমণের উচ্চ হার। স্বাস্থ্যদপ্তরের নতুন বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় এ রাজ্যে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩৯৯২জন, মৃত্যু হয়েছে ৬৩ জনের। এ নিয়ে রাজ্যে মোট করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা ৩ লক্ষ ২১ হাজার পেরল। মৃতের সংখ্যা ৬১০০এর বেশি। এতদিন সুস্থতার হার করোনা লড়াইয়ে কিছুটা আশা জাগালেও চলতি সপ্তাহে তাও খানিকটা কমল, ৮৭.৪৮ শতাংশ।

গত সপ্তাহে স্বাস্থ্যদপ্তরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, রাজ্যে করোনা লড়াইয়ে সুস্থতার হার ছিল ৮৮ শতাংশের কাছাকাছি। এরপর তা কমে প্রায় সাড়ে ৮৭ শতাংশ হয়। আর নতুন সপ্তাহে তা আরও কমে গেল। উলটোদিকে বাড়ল করোনা পজিটিভের সংখ্যা। এই মুহূর্তে সংক্রমণের শীর্ষে কলকাতা (Kolkata) এবং উত্তর ২৪ পরগনা। কলকাতায় এই মুহূর্তে সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা ৭৩৪৩ আর সংলগ্ন জেলা উত্তর ২৪ পরগনায় এই সংখ্যাটা সামান্য কম – ৭২০১। অন্য কোনও জেলাই সংক্রমণের নিরিখে এর ধারেকাছে নেই। গত ২৪ ঘণ্টায়  নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৪৩,৬১৯। এর মধ্যে পজিটিভ ৮. ০৬ শতাংশের।

[আরও পড়ুন: করোনার প্রকোপ কমলেই কার্যকর হবে CAA, নির্বাচনের দামামা বাজিয়ে ঘোষণা নাড্ডার]

বাঙালির প্রাণের উৎসব দুর্গাপুজোয় গা ভাসিয়ে সকলে বেরিয়ে পড়লে পরবর্তী সময়ে করোনা পরিস্থিতির চরম অবনতি হতে পারে রাজ্যে, বিশেষজ্ঞদের এই সাবধানবাণী ছিলই। তা মাথায় রেখে করোনা বিধি মেনেই পুজোর আয়োজনে অনুমতি দেয় রাজ্য সরকার। ভিড় নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব ছিল পুলিশের। কিন্তু এই পরিস্থিতিতে পুজোয় জনসমাগম অধিক হলে কীভাবে তা সামাল দেওয়া হবে, এই প্রশ্ন তুলে কলকাতা হাই কোর্টে দায়ের হওয়া জনস্বার্থ মামলার প্রেক্ষিতে রায় দিয়ে আদালত স্পষ্ট জানায়, দর্শকশূন্য মণ্ডপেই পুজো করতে হবে, কোথাও কোনও দর্শক প্রবেশ করতে দেওয়া যাবে না। করোনা সংক্রমণ রুখে দিতেই এই রায় বলে জানায় আদালত। পরিস্থিতি যে কতটা খারাপ হতে পারে, সপ্তাহের প্রথম দিনেই তার ইঙ্গিত স্পষ্ট। পুজোর সপ্তাহে হাই কোর্টের এই রায়ে সংক্রমণ কি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে? প্রশ্নটা থাকছেই।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement