BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

লকডাউনের জেরে খরচে রাশ, কর্মী ছাঁটাই শুরু দক্ষিণ-পূর্ব রেলে  

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: April 24, 2020 10:42 am|    Updated: April 24, 2020 10:42 am

An Images

সুব্রত বিশ্বাস: লকডাউনের জেরে কর্মী ছাঁটাই শুরু হল রেলে। প্রথম ছাঁটাই পর্ব শুরু হয়েছে দক্ষিণ-পূর্ব রেলে। কলকাতায় ওই রেলের সদর দপ্তরে কর্মরত ৯১ জন নন-গেজেটেড ও দু’জন গেজেটেড কর্মীকে ছাঁটাই করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

[আরও পড়ুন: কোয়ারেন্টাইনের নিয়ম ভেঙেছে ৬ মাসের শিশু! মামলা রুজু পুলিশের]

জানা গিয়েছে, ছাঁটাই তালিকায় নাম থাকা দুই গেজেটেড কর্মী অপারেশন বিভাগে কর্মরত। এঁদের মধ্যে নিতাই কুমার নামে এক কর্মী গার্ডেনরিচে কর্মরত। অন্যজন উদয় কুমার খড়গপুরে পোস্টেড। এই ছাঁটাই হওয়া কর্মীদের  প্রত্যেকেই অবসরপ্রাপ্ত। তাঁদের ফের নিয়োগ করা হয়েছিল। দক্ষিণ-পূর্ব রেল এই কর্মী ছাঁটাই সম্পর্কে জানিয়েছে, এই মুহূর্তে কাজের তেমন চাপ নেই। পাশাপাশি ষাট বছরের উপর বয়স হওয়ায় তাঁদের আর কাজে রাখা যাবে না। ২২ এপ্রিল ওই রেলের পার্সোনাল বিভাগ নির্দেশে জানিয়েছে, হোয়াটসঅ্যাপ, এসএমএস বা ইমেলের মাধ্যমে কর্মীদের এই নির্দেশ পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

দক্ষিণ-পূর্ব রেলে পুনর্নিয়োগ প্রাপ্ত এই কর্মীদের ছাঁটাই করলেও অন্য রেল এখনও এই ধরনের  ছাঁটাই শুরু করেনি। পূর্ব রেলে এধরনের প্রায় দেড় হাজার নন-গেজেটেড কর্মী ও কিছু সংখ্যক গেজেটেড কর্মী রয়েছে। এই ধরনের কর্মীদের পুনর্বহালের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে কর্মী সংগঠন। মেনস ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক অমিত ঘোষ বলেন, “যখন দেশে শিক্ষিত বেকারদের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে, তখন অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের ফের নিয়োগ দেওয়া উচিত নয়। আমরা বরাবর এ ধরনের নিয়োগের বিরোধী। আজও এর বিরোধিতা করছি। অবসর নেওয়া কর্মীরা পঞ্চাশ শতাংশ পেনশন পান। এই নিয়োগে অবসরের সময় যা বেতন পেতেন তার অর্ধেক। অর্থাৎ পেনশন ও পুনর্নিয়োগ-এর বেতন মিলিয়ে মাইনের পুরো টাকাটাই পান এই কর্মীরা। অথচ দেশে বেকারদের সংখ্যা লাফিয়ে বাড়ছে।” এই ছাঁটাই পর্বকে সাধুবাদ জানিয়েছেন রেল কর্মীরাই। লকডাউনের ফেরে খরচ কমানোর উদ্দেশ্যে রেল যে সমস্ত পরিকল্পনা নিয়েছে কর্মী ছাঁটাই তার মধ্যে একটি।

এদিকে বৃহস্পতিবার রেলের বর্ধিত মহার্ঘ ভাতা এক বছরের জন্য বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। ১৭ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা চলতি বছরে বেড়ে ২১ শতাংশ হওয়ার কথা ছিল। যা এবার আর হবে না। অল ইন্ডিয়া রেল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এম রাঘভাইয়া এই ডিএ নির্দেশ তাড়াতাড়ি রিলিজ করার দাবি তুলেছেন। তিনি বলেন উপভোক্তা মূল্যসূচক বৃদ্ধি পাওয়ায় এই বর্ধিত ভাতা দিতে হবে। যা ২০১৯ এর ১ জুলাই থেকে ৩১ ডিসেম্বর পিরিয়ডের জন্য দেওয়া হচ্ছে। কর্মীদের বঞ্চিত করা চলবে না।

[আরও পড়ুন: অবশেষে করোনামুক্ত ত্রিপুরা, চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীদের ধন্যবাদ জানালেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement