২৮ আশ্বিন  ১৪২৬  বুধবার ১৬ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারার অবলুপ্তি ঘটানোর পর থেকেই ভারতের বিরুদ্ধে সরব পাকিস্তান৷ ইমরান সরকার ও পাক সেনার পাশাপাশি, নয়াদিল্লির বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা গিয়েছে পাক সাংস্কৃতিক জগতের একাংশকে৷ ভারতীয় সিনেমা নিষিদ্ধ করেছে ইসলামাবাদ৷ এবার যার প্রতিবাদ করল ভারতীয় শিল্পী ও তাঁদের সংগঠন৷ এবার পাক শিল্পীদের নিষিদ্ধ করার দাবিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে সরাসরি চিঠি লিখল অল ইন্ডিয়া সিনে ওয়ার্কার্স অ্যাসোসিয়েশন৷ সংগঠনের তরফে সাফ জানাল হল, পাক শিল্পীদের পুরোপুরি ভারতে প্রবেশ বন্ধ না করলে, কাজ করবেন না তাঁরাও৷

[ আরও পড়ুন: যিশুকে নিয়ে প্রতীমের নতুন ছবি ‘লাভ আজ কাল পরশু’]

জানা গিয়েছে, কাশ্মীরের বর্তমান ইস্যুকে কেন্দ্র করে যে ভাষায় ভারতকে আক্রমণ শানিয়েছে আতিফ আসলাম, বীণা মালিকের মতো শিল্পীরা, তাতে স্তম্ভিত ভারতের সিনেমহল৷ তাঁদের বক্তব্য, একটা সময় পেট চালানোর জন্য যাঁরা ভারতে এসেছে৷ বিশ্বের অন্যতম বড় সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করে যাঁরা পরিচিতি পেয়েছে৷ যাঁদের কলা পৌঁছে গিয়েছে অগণিত মানুষের কাছে৷ কাশ্মীর ইস্যুকে কেন্দ্র করে, তাঁরাই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভারতকে বেআব্রু করার খেলায় মেতেছে৷ তাই এই বিষয়ে হস্তক্ষেপের দাবিতে এবার সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর দ্বারস্থ হয়েছে অল ইন্ডিয়া সিনে ওয়ার্কার্স অ্যাসোসিয়েশন৷ চিঠিতে নিজেদের দাবি স্পষ্ট করে তুলে ধরেছে সংগঠনটি৷ বলা হয়েছে, যতক্ষণ না পাক শিল্পীদের ভারতে কাজের উপর পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে, ততক্ষণ কাজে যোগ দেবে না, সমগ্র সিনেমা মহল ও সিনেমা কর্মীরা৷

[ আরও পড়ুন: চুমু বিতর্কের জের, পাপনের গান ছবি থেকে বাদ দিলেন পরিচালক প্রতীম ]

বৃহস্পতিবারই পাকিস্তানের প্রেক্ষাগৃহগুলিতে ভারতীয় সিনেমা নিষিদ্ধ করে সেদেশের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রক৷ প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিশেষ সহকারী ফিরদৌস আশিক আওয়ান সরকারের নির্দেশিকা সংবাদমাধ্যমে এই তথ্য প্রকাশ করে৷ পাকিস্তানের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী চৌধুরি ফাওয়াদ হুসেন জানান, ‘‘ভারতীয় ছবিকে বয়কট করেছে পাকিস্তান। এছাড়া পাকিস্তান ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া রেগুলেটরি অথরিটিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, ভারতে তৈরি কোনও বিজ্ঞাপন যেন তারা টেলিকাস্ট না করে।’’

[ আরও পড়ুন: কর্মজীবনের ২৫ বছর পূর্তি, যাত্রাপথ ফিরে দেখলেন মীর ]

প্রসঙ্গত, পূর্বেও বিভিন্ন কারণে সিনেমা, বিজ্ঞাপন, টেলিভিশন চ্যালেন-সহ একাধিক ভারতীয় অনুষ্ঠান নিষিদ্ধ করেছে পাকিস্তান সরকার। চলতি বছরের প্রথমার্ধে বালাকোটে ভারতীয় বায়ুসেনার বিমান হামলার জেরে পাকশিল্পীদের নিষিদ্ধ করা হয়েছিল ভারতীয় সিনেদুনিয়ার তরফে। এমনকী, পাকিস্তানের কোনও শিল্পীর সঙ্গে কাজ করা আইনের চোখে অপরাধ বলে গণ্য হবে একথাও বলা হয়েছিল। বালাকোট-পুলওয়ামা ইস্যুর রেশে ভারতের এই সিদ্ধান্তের পাশাপাশি সেই সময়ে বেশ কয়েকটি সিনেমাও নিষিদ্ধ করে দিয়েছিল পাকিস্তান সরকার।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং