BREAKING NEWS

১৯ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ৫ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

‘দেশকে আত্মনির্ভর করুন’, মোদির মন্ত্রেই আনলক ওয়ানের সমর্থনে বিজ্ঞাপন অক্ষয়ের

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: June 3, 2020 3:50 pm|    Updated: June 3, 2020 3:50 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: “করোনা ভাইরাসের সঙ্গে আমাদের লড়াই জারি থাকবে। তবে ভয় পেয়ে নয়, বরং করোনাকে মোকাবিলা করতে হবে পুরোপুরি সাবধানতা অবলম্বন করেই। থেমে থাকা জীবনকে এগিয়ে নিয়ে যান। দেশকে ‘আত্মনির্ভর’ বানান”, জনস্বার্থে প্রচারিত নতুন এক বিজ্ঞাপনে ফের মোদি-বন্দনায় মাতলেন অক্ষয় কুমার।

জুন মাসের পয়লা দিন থেকেই শুরু হয়েছে পঞ্চম দফার ‘লকডাউন’। তবে ‘লকডাউন’ না বলে ‘আনলক ওয়ান’ বলাই সঙ্গত। কারণ, দেশ করোনামুক্ত না হলেও অর্থনৈতিক পরিকাঠামো বজায় রাখতে ধীরে ধীরে বন্ধন শিথিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাড়া অফিস-কাছাড়ি সবকিছুরই দরজা খুলছে। রাস্তায় বাস, অটো নেমেছে। ছন্দে ফিরছে দেশ। তবে শিকেয় উঠেছে সামাজিক দূরত্ব। ইতিমধ্যেই স্পেন, জার্মানিকে ছাপিয়ে আক্রান্তের পরিসংখ্যানের হারে সপ্তম স্থানে চলে এসেছে ভারত। দেশ আনলক হওয়ার পর প্রতিদিন স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া নয়া পরিসংখ্যান দেখে চিন্তার ভাঁজ ক্রমাগত প্রশস্ত হচ্ছে বিশেষজ্ঞদের কপালে। এমতাবস্থায়, আমজনতার মনোবল বৃদ্ধি করতে সরকারি উদ্যোগে নতুন বিজ্ঞাপন আনলেন অক্ষয় কুমার।

লকডাউন চলাকালীন জনস্বার্থে কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্যোগে একটি বিজ্ঞাপনের শুটিং করেছিলেন অক্ষয়। আর বালকি পরিচালিত মিনিট দেড়েকের সেই বিজ্ঞাপন সদ্য মুক্তি পেয়েছে। প্রেস ইনফর্মেশন ব্যুরোর তরফেও সেই বিজ্ঞাপনী ভিডিও শেয়ার করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন সোনু সুদ! রাজনীতি নিয়ে মুখ খুললেন অভিনেতা]

এক গ্রামের যুবকের কাজে ফেরার গল্পের মাধ্যমেই পুরো বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। গ্রামের রাস্তা দিয়ে হেঁটে আসছেন অক্ষয়। তখনই মোড়ল এসে জিজ্ঞাসা করেন, মহামারী এখনও যায়নি কিন্তু লকডাউন উঠতেই কেন তিনি বাইরে বেরিয়েছেন? মোড়ল মশাই অক্ষয়কে জিজ্ঞেস করেন, “করোনা ভাইরাসকে ভয় পান না তিনি?” প্রত্যুত্তরে অক্ষয় বলেন, “গোড়ার দিকে আমারও খুব ভয় করছিল। কিন্তু এখন বুঝতে পেরেছি, সঠিক সাবধানতা অবলম্বন করলে সংক্রামিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। যেমন- মুখে মাস্ক পরে কাজে বেরনো, দিনে বারবার হাত ধোওয়া, কাজের জায়গায় একে অপরের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখার মতো নির্দেশিকাগুলি মেনে চলে নিজেকে, নিজের পরিবার আর অন্যকেও সুরক্ষিত রাখা যায়।”

সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞাপনে স্বাস্থ্যকর্মীদের কুর্নিশ জানিয়ে অক্ষয়কে এও বলতে শোনা যায় যে, “যদি তাঁরা আমাদের জীবন বাঁচানোর জন্য এতটা ঝুঁকি নিতে পারেন, তাহলে আমাদেরও তো সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। এটা দুশ্চিন্তা করার সময় নয়। পরস্পরের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়াই এখন মূল কর্তব্য। কোনও কারণে আমাদের শরীরে সংক্রমণ ঘটলে সরকার আমাদের চিকিৎসার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা করে রেখেছে।”

[আরও পড়ুন: ছেলের মৃত্যুর পরদিনই এল দুঃসংবাদ, করোনা আক্রান্ত ওয়াজিদ খানের মা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement