BREAKING NEWS

১১ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  সোমবার ২৫ মে ২০২০ 

Advertisement

করোনা যুদ্ধে শামিল নাইজেল, স্যানিটাইজেশন মেশিন হাতে পথে নামলেন অভিনেতা

Published by: Bishakha Pal |    Posted: April 8, 2020 12:11 pm|    Updated: April 8, 2020 8:15 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনা। এই মারণ ভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে চেষ্টার কোনও কসুর করছে না কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার। স্বাস্থ্য পরিকাঠামো আরও উন্নত করার পাশাপাশি জায়গায় জায়গায় চলছে স্যানিটাইজ করার কাজ। এই কাজে এবার রাজ্য সরকারের পাশে দাঁড়ালেন অভিনেতা নাইজেল আকারা। কলকাতা ফেসিলিটিজ ম্যানেজমেন্ট নামে একটি সংস্থা রয়েছে তাঁর। যে সংস্থা মূলত জেল থেকে মুক্তি পাওয়া কারাবাসীদের নিয়েই কাজ করে। এই সংস্থারই কয়েকজনকে নিয়ে স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে মিলিতভাবে বিধাননগরের কয়েকটি এলাকা স্যানিটাইজ করলেন অভিনেতা।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টা নাগাদ স্যানিটাইজ করার মেশিন হাতে নিজেই পথে নেমে পড়েন নাইজেল। তাঁকে সাহায্য করার জন্য কলকাতা ফেসিলিটি ম্যানেজমেন্ট থেকে বেছে নেন কয়েকজনকে। বিধাননগর সেক্টর ওয়ানের কয়েকটি ব্লকে, মূলত ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে এই অভিযান চালান তাঁরা। ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও চেয়ারপার্সন অনিতা মণ্ডল এ ব্যাপারে তাঁদের সাহায্য করেন বলে জানিয়েছেন অভিনেতা। প্রশাসন ও অভিনেতার কলকাতা ফেসিলিটিজ ম্যানেজমেন্ট নামে একটি সংস্থা একত্রে গোটা এলাকা স্যানিটাইজ করে। ভিডিওয় অভিনেতা দেশবাসীকে সরকারের দেওয়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ করেন। বলেন, এই সময় ঘরে থাকা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। তবেই ঠেকানো যাবে করোনাকে। জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যাঁরা যুক্ত, তাঁদের বাইরে বেরোতেই হবে। কিন্তু বাকিদের বাড়িতে থাকতে অনুরোধ করেছেন অভিনেতা। পাশাপাশি তিনি এও জানিয়েছেন, তিনি নিজে আজ করোনা যুদ্ধে শামিল। তাঁর পক্ষে যতটা সম্ভব, সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবেন।

[ আরও পড়ুন: আত্মপ্রচারবিমুখ আমির, নিঃশব্দেই PM CARES-সহ একাধিক ত্রাণ তহবিলে দান অভিনেতার ]

কিছুদিন আগে ‘সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল’কে নাইজেল জানিয়েছিলেন, “আমার কোম্পানির ৮০ শতাংশ কর্মীদেরই ছুটি দিয়েছি। বর্তমানে তাঁরা হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। কিন্তু ২০ শতাংশ কর্মীরা যাঁরা জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত তাঁরা প্রত্যেকেই করোনা আতঙ্কের মাঝেও কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন হাসিমুখে। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি দু-চারজনকে নিয়ে আমি নিজেই রাস্তা স্যানিটাইজেশনের কাজে নেমে পড়ব। যাঁরা আমার সঙ্গে যাবেন, তাঁদের প্রত্যেককেই স্যানিটাইজেশন পদ্ধতির ট্রেনিং দেওয়া হয়েছে। আর যারা কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ওদের ডেকে আমি বিপদে ফেলতে পারব না। আপাতত বিধাননগর পুরসভার কয়েকটা এলাকা দিয়েই এই কাজ শুরু করছি। পরবর্তীতে অন্য কোনও এলাকা স্যানিটাইজেশনের জন্য যদি আমাকে ডাকা হয়, সেখানেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেব।”

[ আরও পড়ুন: করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত বব ডিলানের অন্যতম প্রিয় গীতিকার জন প্রাইন ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement