২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: টুইটার বিশ্ব থেকে চিরবিদায় নিলেন বলিউড পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ। কেন স্বেচ্ছায় নির্বাসন নিলেন অনুরাগ? সেই দীর্ঘ বক্তব্য অবশ্য তাঁর শেষ ২টি টুইটে লিখে গিয়েছেন তিনি। কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে উগরে দিয়েছেন ক্ষোভ। দেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে ফের কি অসহিষ্ণুতা ইস্যুকে উসকে দিলেন অনুরাগ?

হিংসার রাজত্ব শুরু হয়েছে। ঠগবাজরাই রাজত্ব করবে এবং ঠগরাজই নতুন জীবনের দিশা হয়ে উঠেছে। নতুন ভারতে সকলকে শুভেচ্ছা।

পরিচালকের মন্তব্য স্পষ্ট। সাফ কথা বলার দায়ে একাধিকবার তাঁর পরিবারকে হুমকির মুখে পড়তে হয়েছে। আর হচ্ছেও। কখনও অনলাইনে মেসেজ করে মেয়েদের ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হচ্ছে তো কখনও আবার ফোন করে। তাই যেখানে স্পষ্টভাবে মুখ খোলার অধিকার নেই, সেখান থেকে বিদায় নেওয়াই শ্রেয়, এমনটাই মত পরিচালকের। অনুরাগ লিখেছেন, “যখন আপনি দেখছেন, সরকার বিরোধী কথা বললেই আপনার বাবা-মাকে লাগাতার ফোনে শাসানো হচ্ছে, আপনার সন্তানকে ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হচ্ছে, তখন আপনাকে বুঝতে হবে যে আপনি কথা বলুন এটা কেউ চাইছে না। হিংসার রাজত্ব শুরু হয়েছে। ঠগবাজরাই রাজত্ব করবে এবং ঠগরাজই নতুন জীবনের দিশা হয়ে উঠেছে। নতুন ভারতে সকলকে শুভেচ্ছা। আশা করছি আপনারা আরও সমৃদ্ধ হবেন।”

[আরও পড়ুন:  ঝুলিতে ২ টি জাতীয় পুরস্কার, ‘উরি’ প্রসঙ্গে কথা বললেন সাউন্ড ডিজাইনার বিশ্বদীপ চট্টোপাধ্যায়]

এরপরই অনুরাগ তাঁর বিদায়ী টুইট ছাড়েন। “প্রত্যেককে শুভকামনা জানাই। এটাই আমার শেষ টুইট। কারণ টুইটার থেকে বিদায় নিচ্ছি আমি। নির্ভয়ে মনের কথা বলার যদি কোনও অধিকারই না থাকে, তাহলে কথা না বলাই শ্রেয়। বিদায়”, শনিবার রাতে নিজের টুইটারে এমনটাই লিখলেন পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ। এই টুইট বার্তার সঙ্গে যে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তাঁর ক্ষোভও উগরে দিয়েছেন পরিচালক, তা স্পষ্ট।

[আরও পড়ুন:  দেশের প্রথম আইটি দম্পতির প্রেমকাহিনি নিয়ে বলিউড ছবি, পরিচালনায় অশ্বিনী]

অনুরাগ কাশ্যপ সবর্দাই স্পষ্টবক্তা হিসেবে পরিচিত। সোশ্যাল মিডিয়ায় মতামত প্রকাশের জন্য মাশুলও গুনতে হয়েছে তাঁকে। সম্প্রতি ধর্মীয় অসহিষ্ণুতা ইস্যু নিয়ে মোদি সরকারের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছিলেন তিনি। জম্মু-কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিলের বিরুদ্ধেও সরব হতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। এরপরই অনুরাগকে ঘিরে ট্রোল এবং হুমকি আরও জোরদার হয়ে ওঠে। কিছুদিন আগে জনৈক ব্যক্তি পরিচালককে প্রাণের হুমকি দিয়ে নিজের বন্দুক পরিষ্কার করার কথা লিখেছিলেন অনুরাগের টুইটের উত্তরে। তাই মতপ্রকাশের অধিকার হারিয়ে ক্রমাগত ট্রোল, হুমকির মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হয়েই অনুরাগ টুইটার থেকে বিদায় নিয়েছেন একপ্রকার।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং