BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

শতবর্ষের আলোকে সত্যজিৎ, প্রচুর পরিকল্পনা থাকলেও করোনার জন্য স্থগিত উদযাপন

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: May 2, 2020 9:54 am|    Updated: May 2, 2020 9:54 am

An Images

নির্মল ধর: আজ ২ মে। বিশ্বের অন‌্যতম সেরা সিনেমা পরিচালক মানুষটির আজ শততম জন্মদিন। বাংলার রেনেসাঁ সময়ের এক শেষ ও  উজ্জ্বলতম প্রতিভা সত্যজিৎ রায়। এই নামটুকুই যথেষ্ট।

শুধু বাংলা সিনেমার বেড়াজালে নয়, ভারতীয় তো বটেই, আন্তর্জাতিক সিনেমাতেও তাঁর পরিচিতি ওই এক উচ্চারণেই। তাঁর ‘নেই দেশে’ চলে যাওয়ার এত বছর পরও ভারতীয় সিনেমার একমাত্র পরিচয় সত্যজিতের সিনেমাকে ঘিরেই। বাঙালি হিসেবে সেটা কম গর্ব ও শ্লাঘার বিষয় নয়! বাংলা সিনেমাকে শুধু সাগরপারের মানুষের কাছে জনপ্রিয় করা নয়, নিজের মাটিতে দাঁড়িয়ে বাংলা সিনেমাকে গর্বিত করে তোলার প্রথম ভগীরাথ সত্যজিৎ রায়।

২৮টি ফিচার ও ৮টি ছোট দৈর্ঘ্যের তথ্যচিত্র ও শর্ট ফিল্ম তাঁর দীর্ঘ ৪২ বছরের ফিল্ম কেরিয়ারের ফসল। শুধু এটুকুতেই তাঁর কাজের পরিমাপ হয় না। এমন তো আরও অনেকেই করেছেন। কিন্তু সত্যজিতের কাজের প্রকৃত মূল্যায়ন তাঁর ছবির বিশাল ব্যাপ্তি নিয়ে। উপরন্তু রয়েছে সত্যজিতের সাহিত্য ভাণ্ডার। ফেলুদা ও প্রফেসর শঙ্কু সিরিজের গল্পগুলো শুধু আনন্দের খনি নয়, জ্ঞানেরও। সেগুলি চিরকালীন জনপ্রিয় সাহিত্যের আলমারিতে। তারও উপর রয়েছে সত্যজিতের ক্যালিগ্রাফির কাজ। তাঁর আঁকা ছবি ও প্রচ্ছদ। এক কথায় তিনি রবীন্দ্র পরবর্তী যুগের সেরা বাঙালি প্রতিভা। অস্কার, বার্লিনের ভল্লুক, ভেনিসের সিংহ দিয়ে যার হদিশ মেলে না। তাঁকে ছোঁয়ার মতো দীর্ঘ মানুষ এই মুহূর্তে সারা পৃথিবীতে আছে কিনা সন্দেহ!

[আরও পড়ুন: ৩৩ বছর পর পুনঃসম্প্রচারিত হয়েও বিশ্বরেকর্ড গড়ল রামানন্দ সাগরের ‘রামায়ণ’]

বাংলা সিনেমা ও বাঙালিকে তিনি বিশ্বের দরজায় পৌঁছেই দেননি, সম্মানের আসনে বসিয়ে দিয়েছেন। তাঁকে ঘিরে আজ থেকেই শুরু হবে সারা বছরব্যাপী নানা উৎসব, প্রদর্শনী, আলোচনা, প্রকাশনা, ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, আরও কত কী! বার্লিন থেকেই শুনে এসেছি আগামী বছর ‘চারুলতা’ (সেরা পরিচালক) ও ‘নায়ক’ (সেরা ছবি)-র সাফল্যকে উদযাপনের পরিকল্পনা রয়েছে উৎসবে। কান উৎসবও ‘পথের পাঁচালী’র স্বীকৃতিকে স্মরণ করবে। কিন্তু এ বছর তো কান হচ্ছেই না। ভেনিসে ‘প্রতিদ্বন্দ্বী’র পুরস্কার পাওয়া নিয়ে অনুষ্ঠান হত। সেটাও বাতিল। করোনা ভাইরাসের আক্রমণে আন্তর্জাতিক কিছু অনুষ্ঠান হতে না পারলেও তাঁর এই জন্মশহর তাঁকে ভুলবে কী করে! সেটা সম্ভব নয়। রে সোসাইটি একগুচ্ছ কাজের পরিকল্পনা নিয়ে রেখেছে। সাময়িক বাধা সরে গেলেই সত্যজিৎ শতবার্ষিকী পালন হবে ধুমধাম করেই। তাঁকে শ্রদ্ধা জানানোর অর্থই হল বাংলা ছবির সেলিব্রেশন। বাংলা সিনেমার এই দুর্দিনতম দিনে সত্যজিৎ রায় একমাত্র আশা, স্বপ্ন ও ভবিষ্যতের উজ্জ্বল দীপশিখা।

[আরও পড়ুন: ‘কিছু গল্প না বলাই রয়ে গেল’, ঋষির সঙ্গে কাজ না করতে পারার আক্ষেপ শিবপ্রসাদের কণ্ঠে]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement