BREAKING NEWS

৭ মাঘ  ১৪২৮  শুক্রবার ২১ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চান রুদ্রনীল, ঠিক এমন পাত্রীই চাই অভিনেতার!

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: September 29, 2019 3:38 pm|    Updated: September 29, 2019 7:21 pm

Renowned Tollywood actor Rudranil Ghosh wants to tie knot

সন্দীপ্তা ভঞ্জ:  মাস দুয়েক আগেই ‘বিবাহ অভিযান’ সেরেছেন রুদ্রনীল ঘোষ। তবে, ‘রিল লাইফে’। পরিচালক বিরসা দাশগুপ্তের হাত ধরে। তা রিয়েল লাইফে অর্থাৎ বাস্তবে কবে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছেন রুদ্রনীল? সেই প্রশ্নের সম্মুখীন অবশ্য ‘বিবাহ অভিযান’ ছবি মুক্তির সময়েই হতে হয়েছে তাঁকে। তবে তখন সেভাবে খোলসা করেননি। এবার সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল-এর সঙ্গে একান্ত আড্ডায় রুদ্রনীল শেয়ার করলেন তাঁর বিয়ের পরিকল্পনা। শুধু তাই নয়, কেমন পাত্রী চাই তাঁর? সে কথাও জানালেন রুদ্রনীল ঘোষ

[আরও পড়ুন: ‘এখনই বিয়ে নয়’, জানালেন পাঁচ মাসের সন্তানসম্ভবা কালকি! ]

সত্যান্বেষী ব্যোমকেশ’-এ অজিতের ভূমিকায় রয়েছেন রুদ্রনীল ঘোষ। শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের দৌলতে সাহিত্যপ্রেমীরা জানেন যে অজিত চিরন্তন ‘চিরকুমার’। বিয়ে-থা করেননি। একান্ত বন্ধু ব্যোমকেশের সংসারেই তাঁর ঠাঁই। তা রুদ্রনীল ঘোষও কি অজিতের মতোই ব্যাচেলর জীবনযাপন করবেন? একদমই না! সাফ জানালেন অভিনেতা।

“আমি শুধু ৮০ টাকার মালা আর ২৫০ টাকার ধুতি নিয়ে বসে পড়ব বিয়ের পিঁড়িতে…”

এবার আসা যাক, শ্যামলা-ফরসা, সুশ্রী, ছিপছিপে, প্রকাণ্ড ডিগ্রিধারী… ‘পাত্রী চাই’-এর ক্রাইটেরিয়ায় কত কিছুই না থাকে। কেমন পাত্রী চাই রুদ্রনীল ঘোষের? বিয়ের দায়িত্বটা তিনি বরং তাঁর বান্ধবীদের হাতেই দিয়ে দিয়েছেন। বছর চারেক ধরে কোনও কমিটেড সম্পর্কে নেই তিনি, জানিয়েছেন অভিনেতা। রুদ্রনীলের কথায়, “৪ বছরে আমার কোনও ‘কট্টর প্রেমিকা’ নেই। যাঁকে ফোন করে অবলীলাক্রমে খেয়েছ-পড়েছ, ওগো আমার সঙ্গে কেউ ছিল না গো… গোছের কথা বলা যায়! আর এই ধরনের কথোপকথনে আমি বাবা খুব ভয় পাই। সেইজন্য আমি আমার সব বান্ধবীদেরই বলেছি, তোমরা বাবা চাইলে আমাকে বিয়ে করতেই পার।” “আমি শুধু ৮০ টাকার মালা আর ২৫০ টাকার ধুতি নিয়ে বসে পড়ব বিয়ের পিঁড়িতে। বাকি খাওয়ানো-দাওয়ানোর খরচা তোমার”, মজাচ্ছলে বললেন তিনি।  

[আরও পড়ুন: দেবীপক্ষের সূচনাতেই হাজির ‘অসুর’, টিজারে নজর কাড়লেন জিৎ-নুসরত]

তা এরকম প্রস্তাব দেওয়ার পর কাউকে পেলেন কী? তিনি বলেন, আমি দেখতে পেলাম, সবাই ভীষণ স্বার্থপর। আমার এই ক্রাইটেরিয়া শুনেই পালাল সব বান্ধবীরা। চিন্তায় পড়ে গিয়েছেন অভিনেতা, যে সেসব বান্ধবীরা কাকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন তাঁকে তাঁর ব্যাংক ব্যালেন্সকে! সহাস্যে জানালেন রুদ্রনীল। তবে হ্যাঁ, মাথার ঘাম পায়ে ফেলে উপার্জন করা মহিলাদের তিনি সম্মান করেন, একথা জানিয়েছেন। তাহলে কি এর মধ্য দিয়েই কোনও ইঙ্গিত দিলেন অভিনেতা?

দেখে নিন সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল-এর সঙ্গে রুদ্রনীল ঘোষের এক্সক্লুসিভ আড্ডা।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে