BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘অ্যাপ ব্যান করলেই কি শহিদদের প্রাণ ফিরবে?’ নুসরতের সুরেই এবার সরব অভিনেতা সোহম

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: July 2, 2020 10:36 pm|    Updated: July 2, 2020 10:36 pm

An Images

সম্যক খান, মেদিনীপুর: কেন্দ্রীয় সরকারের চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করা নিয়ে বিকল্প পথ সন্ধান করার জন্য ইতিমধ্যেই সওয়াল করেছেন তৃণমূল সাংসদ তথা অভিনেত্রী নুসরত জাহান। তবে জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে তিনি সমর্থন জানিয়েছেন টিকটক ব্যান করার সিদ্ধান্তকে। এবার, নুসরতের সুরেই খানিক সুর মিলিয়ে অভিনেতা তথা তৃণমূল যুবশক্তির রাজ্য কো-অর্ডিনেটর সোহম চক্রবর্তীর (Soham Chakraborty) মন্তব্য, “চিন নোংরা রাজনীতি করেছে। গোটা বিশ্ব তাদের জন্য সংকটে। তার বিরোধিতা করতেই হবে। কিন্তু, কিছু অ্যাপ বন্ধ করলেই কি ভারতীয় সৈন্যরা যাঁরা শহীদ হয়েছেন, তাঁদের প্রান ফিরে আসবে?”

এর পাশাপাশি “কেন্দ্রে মোদি সরকার আসার সঙ্গে সঙ্গেই পশ্চিমবঙ্গে করোনা চলে এসেছে”, বলে কটাক্ষ করলেন অভিনেতা সোহম চক্রবর্তী। তিনি বলেছেন, “সারা পৃথিবী এখন করোনা সংকটে ভুগছে কিন্তু ৬ বছর আগে কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকার প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকেই টার্গেট করেছে বাংলাকে। আর ‘সেই সব করোনার’ বিরুদ্ধে নিরন্তর লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন মমতা বন্দোপাধ্যায়।” বাংলার যুবশক্তির কর্মসূচীতে বৃহস্পতিবার মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রামে এসে যুবশক্তির সদস্যদের নিয়ে সভা করেন সোহম চক্রবর্তী। সেখানেই চিনা অ্যআপ নিষিদ্ধ প্রসঙ্গে একথা বললেন তিনি।

যুবকর্মীদের উদ্দেশে সোহম জানিয়েও দিয়েছেন যে, কোনওভাবেই তাঁরা যাতে ব্যক্তিস্বার্থকে দলের ঊর্দ্ধে না আনেন। তিনি এও স্মরণ করিয়ে দেন যে, যিনি বিরোধিতা করছেন তিনি মনে করবেন যে স্বয়ং মমতা বন্দোপাধ্যায়ের বিরোধিতা করছেন।

soham

[আরও পড়ুন: TikTok নিষিদ্ধ হওয়ায় বেকার হল অনেক মানুষ! ‘বিকল্প’ চেয়ে ট্রোলড নুসরত জাহান]

বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির প্রতি কটাক্ষ করে সোহম এও বলেন যে, “যারা মিডিয়াতে মাইলেজ নেওয়ার চেষ্টা করে তাদের সেখানেই থাকতে দিন। ডিজিটালাইজেশনের দিকে আমরা এগিয়ে চলেছি। সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমাদের কাজ করতে হবে। জবাব দিতে হবে বিরোধীদের।” এক্ষেত্রে সোশ্যাল মিডিয়া যে একটা বড় ভূমিকা নিচ্ছে সেকথাও তিনি একাধিকবার স্মরণ করিয়ে দেন। সোহম আরও বলেন, “আত্মসমালোচনা মানে নিজেদের দুর্বল করা নয়। মমতা বন্দোপাধ্যায়ের আদর্শ থেকে কিছুটা হলেও যাদের বিচ্যুতি ঘটেছে, তাদেরকে ফিরিয়ে আনাটাই মূল লক্ষ্য। “

এদিনের সভায় উপস্থিত ছিলেন সাংসদ মানস ভুঁইয়া, সভাধিপতি উত্তরা সিংহ, জেলা তৃণমূল সভাপতি অজিত মাইতি, জেলা যুব সভাপতি প্রসেনজিৎ চক্রবর্তী, কার্যকরী সভাপতি নির্মাল্য চক্রবর্তী প্রমুখ। অপরদিকে, ঝাড়গ্রামের একটি বেসরকারি লজে আয়োজিত একটি সভায় অন্যান্যদের মধ্যে হাজির ছিলেন জেলা তৃণমূল সভানেত্রী বীরবাহা সোরেন, যুব সভাপতি দেবনাথ হাঁসদা প্রমুখ।

[আরও পড়ুন: ‘বুলবুল’ ছবিতে ‘কলঙ্কিনী রাধা’ গানে হিন্দুধর্মের অপমান! Netflix বয়কটের ডাক হিন্দুত্ববাদীদের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement