১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

দেবের মন্তব্যে মেজাজ হারিয়ে ফেসবুকে ক্ষোভ উগরে দিলেন কবীর সুমন

Published by: Bishakha Pal |    Posted: April 5, 2019 5:14 pm|    Updated: April 5, 2019 5:59 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রেগে লাল কবীর সুমন। পরিচালক অনিকেত চট্টোপাধ্যায় ও প্রযোজক দেবের উপর যে তিনি প্রচণ্ডই অসন্তুষ্ট, তাঁর ফেসবুক পোস্টই তার প্রমাণ। ফেসবুকে নিজের ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন প্রবাদপ্রতিম এই সংগীতশিল্পী। দু’টি খোলা চিঠিতে তিনি নিজের যাবতীয় অভিযোগের কথা তুলে ধরেছেন। বলাই বাহুল্য, সেই চিঠি দু’টিতে শুধু ঝুড়ি ঝুড়ি আক্ষেপের কথাই রয়েছে।

কবীর সুমনের ক্ষোভ হয়েছে প্রযোজক দেবের ‘হবুচন্দ্র রাজা গোবুচন্দ্র মন্ত্রী’ ছবিটি নিয়ে। এই ছবিতেই সংগীত পরিচালনার দায়িত্ব সামলাচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু একটি অনুষ্ঠানে দেব বলেছিলেন, “কবীর সুমনকে handle করা কঠিন।” আর এই থেকেই যত অসন্তোষের সৃষ্টি। কবীর সুমন ফেসবুকে লিখেছেন, এতে তিনি যথেষ্ট অপমানিত বোধ করেছেন। সরাসরি লেখেন “গায়ে পড়ে এই অপমান আপনারা আমায় করলেন।” তিনি বলেছেন, দেবের সঙ্গে তিনি আগে কাজ করেননি। কিন্তু অনিকেত চট্টোপাধ্যায়ের ‘শঙ্কর মুদি’ ছবিতে কাজ করেছেন। কখনও একফোঁটাও কাজে ফাঁকি দেননি। অথচ দেবের ওই মন্তব্যের পর একাধিক সাংবাদিক তাঁকে “handle করা কঠিন” নিয়ে প্রশ্ন করেছেন। সেদিনের মতো সেসব মুখ বুজে সামলেছেন তিনি। কিন্তু ধৈর্যের বাঁধ এবার ছিঁড়ে গিয়েছে তাঁর। এমন মন্তব্যের জন্য তাঁর পেশাগত জীবনে ক্ষতি হতে পারে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

[ আরও পড়ুন: অকালমৃত্যুর পথে আরও এক ‘সিনেমাওয়ালা’! মিত্রার পর এবার বন্ধ হবে রক্সি? ]

কবীর সুমন এও বলেছেন, সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ হয়েছে তিনি নাকি ছবিতে একটি বিশেষ চরিত্রে রয়েছে। সংগীতশিল্পী খোলসা করেছেন, এই ‘অফার’-টি তাঁকে পরিচালক অনিকেত চট্টোপাধ্যায়ই করেছিলেন। এও বলেছিলেন, তাঁর গাওয়া বাংলা খেয়ালগুলিতে তিনিই লিপ দেবেন। তাই তিনি রাজি হয়েছিলেন। এর জন্য একটি টাকাও চাননি।

অভিযোগের চিঠি এখানেই শেষ হয়নি। আরও একটি চিঠিতে তিনি বলেন, শিশুশিল্পীদের নিয়ে তিনি ‘বোম্বাগড়ের রাজা’ গানের রেকর্ড করেছিলেন। কিন্তু রেকর্ডিংয়ের সময় প্রযোজক দেব বা পরিচালক অনিকেত একবারও খোঁজ নেননি। তবু তিনি আশাবাদী বলে জানিয়েছেন কবীর সুমন। তিনি আশা করেন, এই ঘটনাগুলির জন্য দেব তাঁকে ফোন করবেন। সমস্ত ঝামেলা ঠিক মিটে যাবে।    

[ আরও পড়ুন: মাল্টিপ্লেক্সের দাপট, দর্শকের অভাবে বন্ধ হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী মিত্রা ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement