BREAKING NEWS

২৭ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

জন্মের পর মৃত ঘোষণা করা হয়েছিল, সেই নূপুরই কেবিসি-তে জিতলেন ১২ লক্ষ

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: August 29, 2019 5:47 pm|    Updated: August 29, 2019 5:52 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  ভাগ্য কখন কার উপর কীভাবে সুপ্রসন্ন হয়, তা বলা দায়! জন্মের পরই তাঁকে মৃত সন্তান বলে ঘোষণা করেছিলেন চিকিৎসকেরা। শুধু তাই নয়, ‘মৃত সন্তান’ বলে আবর্জনার স্তূপেও ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া হয়েছিল সেই খুদে প্রাণকে। আসলে দোষটা ছিল অন্য। ‘কন্যা সন্তান জন্মেছে’- এটাই ছিল মূল কারণ। তাই জন্মের পর ডাক্তাররা মৃত সন্তান বললেও সে জীবন্ত কি মৃত, তা সেভাবে আর আমল দেননি পরিবারের লোকেরা। আর আজ সেই মেয়েই ‘কৌন বনেগা ক্রোড়পতি’র মতো রিয়ালিটি শোয়ের মঞ্চে দাঁড়িয়ে জিতে নিলেন ১২ লক্ষ টাকা।

[আরও পড়ুন: মানবিক মীর, এগিয়ে এলেন ওঁদের জন্য যাঁরা কোনও দিন শিল্পীকে শোনেননি]

সেই মেয়েরই বয়স এখন ২৯। নাম নূপুর চৌহান। আদতে উন্নাওয়ের এক কৃষক পরিবারের জন্ম নেন তিনি। বর্তমানে শিক্ষকতা করেন। কেবিসি’র মঞ্চে সঞ্চালক অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে দাঁড়িয়ে নূপুর গোটা দেশের দর্শকদের সঙ্গে ভাগ করে নেন তাঁর জীবন কাহিনি। তাঁর কথায়, “জন্মের পর ময়লায় স্তূপে ফেলে দিয়ে এসেছিলেন হাসপাতালের কর্মীরা। কিন্তু এক তাঁরই এক আত্মীয় সেই মরা সন্তানের মধ্যে প্রাণের লক্ষণ দেখতে পেয়েছিলেন। তড়িঘড়ি নিজের উদ্যোগে আবর্জনা থেকে তুলে আনেন নূপুরকে। ঘটনাটি ঘটেছিল কানপুর হাসপাতালে।”

কেবিসি’র মঞ্চে অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে নূপুর চৌহান

তারপর এত বছর পরে কেমন আছেন নূপুর এখন? তিনি জানান, সেসময়ে চিকিৎসকদের গাফিলতির জেরে সারা জীবনের জন্য বিশেষভাবে সক্ষম হয়ে গিয়েছেন। তবে থেমে থাকেনি তাঁর জীবন। এই ঘটনার ২৯ বছর পর সেই মেয়ে নূপুর চৌহান সাড়ে ১২ লক্ষ টাকা জয় করলেন দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় রিয়ালিটি গেম শো ‘কৌন বনেগা ক্রোড়পতি’র হট সিটে। অপরপ্রান্তে শোয়ের সঞ্চালক অমিতাভ বচ্চন। সেই বিশেষ পর্বে নূপুর মোট ১২টি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে সাড়ে ১২ লক্ষ টাকা জিতে নিয়েছেন। 

[আরও পড়ুন: মানবিক মীর, এগিয়ে এলেন ওঁদের জন্য যাঁরা কোনও দিন শিল্পীকে শোনেননি]

উন্নাওয়ের বিঘাপুরে চাষী রামকুমার সিং ও কল্পনা সিংয়ের ঘরে নূপুরের জন্ম। আপ্লুত মা কল্পনার কথায়, “নূপুর এত বাধা সত্ত্বেও বরাবর দারুণ একজন ছাত্রী ছিল। একবারে বি.এড পড়ার সুযোগও পেয়েছিল ও। এখন একটি স্কুলে পড়ায় নূপুর।” তিনি আরও জানান, বরাবরই কেবিসির ফ্যান নূপুর। সব সময়ই প্রতিযোগীদের উত্তরের আগেই নিজে নিজে উত্তর দিতেন। কেবিসির মঞ্চে এভাবে জয় পেয়ে গ্রামের তারকা এখন ‘জন্মেই মৃত’ নূপুর চৌহান। ভাগ্য কখন কার উপর সুপ্রসন্ন হয়, তা বলা যায় না! বাংলার রানু মণ্ডলের কথাই ধরুন। রানাঘাটের স্টেশন চত্বর থেকে পৌঁছে গেলেন সোজা মুম্বইয়ে হিমেশের স্টুডিওতে। রানু মারিয়া মণ্ডল এখন ভাইরাল। ঠিক সেরকমই এক গল্প নূপুর চৌহানের। ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন নূপুর এবং রানু, প্রার্থনা নেটিজেনদের।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement