৪ ভাদ্র  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ২২ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কেরিয়ারের ‘হাই পয়েন্ট’ বলতে ‘সা-রে-গা-মা-পা’-তে তৃতীয় স্থান দখল। বাংলাদেশে বেশ জনপ্রিয় হলেও, এখনও প্রথম সারির গায়কদের মধ্যে নাম লেখাতে পারেননি মাঈনুল আহসান নোবেল। কিন্তু, তাতে কী? ‘সা-রে-গা-মা-পা’-এর সাফল্যের পরই যেন সাপের পাঁচ পা দেখেছেন তিনি। ইতিমধ্যেই তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথকে অপমান করার। এবার তাঁর আরও একটি মন্তব্যে বিতর্ক ছড়াল। তিনি সিনেমার প্লে-ব্যাকে ডুয়েট গাইতে চান না। যে কোনও গায়িকাদের সঙ্গে তো নয়ই। ডুয়েট গাইলে হয় গাইবেন হয় লেডি গাগা’র সঙ্গে, নয় শ্রেয়া ঘোষালের সঙ্গে। যে রিয়েলিটি শো-এর জন্য এপার বাংলা এবং ওপার বাংলা দুই বাংলাতেই তিনি সুপরিচিত হয়েছেন সেই রিয়েলিটি শো-এর বিচারক মোনালি ঠাকুরের সঙ্গেও ডুয়েট গাইতে চান না বাংলাদেশি গায়ক। বাংলাদেশের প্রথম সারির এক দৈনিকে দেওয়া সাক্ষাৎকার এমনটাই বলেছেন নোবেল। যা নিয়ে জোর বিতর্ক শুরু হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

[আরও পড়ুন: ভারতে নিষিদ্ধ করা হোক নোবেলকে, বার্তায় ছয়লাপ সোশ্যাল মিডিয়া]

আসলে সিনেমার প্লে-ব্যাকে গাওয়ার ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি শর্ত আছে নোবেলের। প্রথমত তিনি প্লে-ব্যাকে সোলো গান গাইতে চান। ডুয়েট গাইতেই চান না। আবার গাইলেও তাঁর শর্ত এক্কেবারে প্রথম সারির গায়িকাদের সঙ্গে গান গাওয়ার সুযোগ দিতে হবে। তাঁর কথায়,’যদি লেডি গাগা হয় তাহলে তাঁর সঙ্গে ডুয়েট গাইতে পারি। উপমহাদেশে আমার প্রিয় শ্রেয়া ঘোষাল, তাঁর সঙ্গেও গাইতে পারি। বাংলাদেশ বা ভারতের কারও সঙ্গে ডুয়েট করব না।’ প্রশ্ন করা হয়, ‘সা-রে-গা-মা-পা’-এর বিচারক মোনালি ঠাকুরের সঙ্গে তিনি গাইবেন কিনা? তাতেও নোবেলের উত্তর, ‘না’। শুধু তাই নয়, সোলো গানের ক্ষেত্রেও শর্ত রয়েছে তাঁর। তিনি জানিয়েছেন, বাংলাদেশের সিনেমার প্লে-ব্যাকের ক্ষেত্রেও নিজের ব্যান্ড ছাড়া অন্য কোনও গীতিকার বা সুরকারের গান গাইবেন না তিনি। তবে, টলিউড বা অনুপম রায়দের মতো সুরকার যদি তাঁকে দিয়ে সোলো গান করাতে চান সেক্ষেত্রে কোনও আপত্তি নেই।

[আরও পড়ুন: সাক্ষাৎকারে রবীন্দ্রনাথকে ‘অপমান’, বাংলাদেশি গায়ক নোবেলকে একহাত নিলেন ইমন]

সম্প্রতি জি বাংলার রিয়ালিটি শো ‘সা-রে-গা-মা-পা’ শেষ হয়েছে৷ তাতে তৃতীয় হয়েছেন বাংলাদেশের প্রতিযোগী নোবেল৷ তবে তাঁর গুণমুগ্ধরা এই ফলাফলে মোটেও খুশি নন৷ অনেকের দাবি, নোবেলের সঙ্গে নাকি দুর্ব্যবহার করেছে ওই চ্যানেল কর্তৃপক্ষ৷ কৃতীদের যোগ্যতা নির্ণয়ও সঠিকভাবে হয়নি বলেই দাবি নোবেলের অনুরাগীদের৷ এ প্রসঙ্গে তাঁর মন্তব্য, ভক্ত-দর্শকরা মানতে পারছেন না, আমি তৃতীয় হয়েছি। নোবেলের এ হেন মন্তব্যকে ঔদ্ধত্য হিসেবেই দেখছেন নেটিজেনরা। কেউ কেউ বলছেন, সামান্য সাফল্যের মুখ দেখেই সাপের পাঁচ পা দেখেছেন বাংলাদেশি গায়ক। আবার কেউ বলছেন, এই মন্তব্য করে আসলে উপমহাদেশের অসংখ্য কণ্ঠশিল্পীকে অপমান করেছেন নোবেল।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং