৩ কার্তিক  ১৪২৬  সোমবার ২১ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  দিন কয়েক আগেই ২৯ সেপ্টেম্বর শুরু হয়েছে ভারতীয় টেলিভিশনের অন্যতম জনপ্রিয় রিয়ালিটি শো ‘বিগ বস’। এবারে ‘বিগ বস’-এর ঘরের অতিথি হিসেবে রয়েছেন একঝাঁক চেনা মুখ। এক সপ্তাহ যেতে না যেতেই রীতিমতো জমে উঠেছে শো। আর এর মাঝেই বিতর্কে জড়ালো ‘বিগ বস’-এর নয়া মরসুম। শো বন্ধ করার দাবি তুলে কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকে এক চিঠি পাঠানো হয়েছে দ্য কনফেডারেশন অফ অল ইন্ডিয়া ট্রেডার্সের (সিএআইটি) তরফে।

[আরও পড়ুন: আর্থিক দুরাবস্থা, গয়না বিক্রি করে সংসার চালাতে হচ্ছে এই অভিনেত্রীকে ]

ঠিক কোন কারণে ‘বিগ বস’ নিষিদ্ধ করার দাবি উঠল? এই শোয়ে কোনওরকম যৌনতামূলক কন্টেন্ট না থাকলেও দ্য কনফেডারেশন অফ অল ইন্ডিয়া ট্রেডার্সের অভিযোগ, এই শোয়ের প্রতিযোগীরা নিজেদের মধ্যে এমন কিছু বিষয়ে আলোচনা করে, যা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে একসঙ্গে বসে দেখা যায় না। ভারতীয় ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতিরও বিরোধী। তাঁদের অভিযোগ, আমাদের মতো দেশে এরকম ধরনের শো কখনওই অনুমোদন যোগ্য নয়। ওই চিঠিতে আরও লেখা হয়েছে যে টিআরপি বাড়ানোর লোভে শোয়ের নির্মাতার বোধহয় নিজেদের ঐতিহ্য-সংস্কৃতি সবই ভুলতে বসেছেন। সিএআইটি’র অভিযোগের তীর মূলত ‘বেড ফ্রেন্ড ফরেভার’ নামক ‘বিগ বস’-এ যে পর্ব দেখানো হয়েছে, তার দিকে। তাঁদের মতে, ভারতীয় সংস্কৃতি নিয়ে তা  জনগণের কাছে ভুল বার্তা দিচ্ছে।

সূত্রের খবর, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকরকে পাঠানো ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, “বেড ফ্রেন্ড ফরেভার-এর এই ধারণাটি অত্যন্ত আপত্তিজনক এবং তা টেলিজগতের মূল্যবোধকে বিশেষভাবে আঘাত করে। এই শোয়ের নির্মাতারা বোধহয় ভুলে গিয়েছেন যে প্রাইমটাইমে যখন টিভিতে এই শো দেখানো হয় তখন পরিবারের সব বয়সের সদস্যরাই একসঙ্গে বসে এই শো দেখে থাকেন। কিন্তু বর্তমানে এই শো সীমা ছাড়িয়ে গিয়েছে।” 

[আরও পড়ুন: অপর্ণা সেনদের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদ, মোদিকে ফের চিঠি বিদ্বজনদের ]

ট্রেড বডির সেক্রেটারি জেনারেল প্রবীণ খান্ডেলওয়াল এপ্রসঙ্গে জানান, “ওই শোয়ের প্রত্যেকটি এপিসোড সেন্সর বোর্ডের খুঁটিয়ে দেখা উচিত। ওখানে যা হচ্ছে তা একেবারেই ঠিক নয়। বাড়ির সকলের সঙ্গে বসে এই শো দেখা যায় না।” 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং