BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

পাশবিক! মধ্যপ্রদেশে নাবালিকাকে ধর্ষণের পর চোখ খুবলে নিল দুষ্কৃতী

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: April 23, 2020 8:36 pm|    Updated: April 23, 2020 10:31 pm

An Images

ছবিটি প্রতীকী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনাসুরের তাণ্ডবের জেরে হাহাকার চলছে বিশ্বজুড়ে। মৃত ও আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। এর সংক্রমণ থেকে বাঁচতে লকডাউন চলছে দেশে। প্রায় সবাই গৃহবন্দি অবস্থায় সুসময়ের অপেক্ষা করছেন। এর মধ্যেই ছ বছরের এক নাবালিকে ধর্ষণের পর তার চোখ খুবলে নিল দুষ্কতী। পাশবিক এই ঘটনাটি ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের দামোহ জেলার জাভেরা থানা এলাকায়। বর্তমানে আশঙ্কাজনক অবস্থায় জব্বলপুর শহরের একটি হাসপাতালে ভরতি রয়েছে নির্যাতিতা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বুধবার বিকেল পাঁচটা নাগাদ বংশীপুরা গ্রামের ওই নাবালিকা বাড়ির কাছেই অবস্থিত একটি দোকানে কিছু জিনিস কিনতে গিয়েছিল। তারপর থেকেই ওই নাবালিকার খোঁজ পাচ্ছিলেন না পরিবারের লোকেরা। বাধ্য হয়ে থানায় অভিযোগ জানান তাঁরা। তার ভিত্তিতে রাতভর খোঁজাখুঁজির পর বৃহস্পতিবার সকালে বাড়ি থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে একটি পরিত্যক্ত ঘর থেকে অচৈতন্য অবস্থায় ওই নাবালিকাকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধার করার সময় নাবালিকা হাত ও পা দড়ি দিয়ে বাঁধা ছিল। তাকে উদ্ধার করার সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু, শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে জব্বলপুর শহরের একটি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।

[আরও পড়ুন: ‘সমস্ত মুসলিম সম্প্রদায়কে দায়ী করা যায় না’, নিজামুদ্দিন ইস্যুতে মন্তব্য মুখতার আব্বাস নকভির ]

এপ্রসঙ্গে দামোহ জেলার পুলিশ সুপার হেমন্ত চৌহান বলেন, ‘নির্যাতিতাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় জব্বলপুরে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এই ঘটনার তদন্তের জন্য একটি স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন টিম (SIT) তৈরি করা হয়েছে। পাশাপাশি ঘোষণা করা হয়েছে, এই ঘটনায় জড়িতদের সম্পর্কে খবর দেওয়া হলে ১০ হাজার টাকা পুরস্কার দেওয়া হবে।’

এদিকে এই ঘটনার কথা শুনেই মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের তীব্র সমালোচনা করেছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ। তিনি টুইট করেন, ‘শিবরাজ সিং জি মধ্যপ্রদেশে এসব কী হচ্ছে? আপনার একমাসের শাসনকালে আইনশৃঙ্খলার অবস্থা কোথায় গিয়ে পৌঁছছে। যখন লকডাউনের জন্য সাধারণ মানুষ গৃহবন্দি অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে। অত্যাবশ্যকীয় জিনিস কেনার জন্যও বাইরে বেরোচ্ছেন না। সেখানে অপরাধী প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। মেয়েরা সুরক্ষিত থাকছে না। অবিলম্বে দামোহের অপরাধীকে গ্রেপ্তার করতে হবে। আর নির্যাতিতা সমস্ত চিকিৎসার খরচ সরকারকে বহন করতে হবে।’

[আরও পড়ুন: করোনা চিকিৎসায় হাত বাড়ালেন কাশ্মীরের ইঞ্জিনিয়াররা, তৈরি হল সস্তার ভেন্টিলেটর]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement