BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

প্রয়াত প্রাক্তন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী হংসরাজ ভরদ্বাজ, টুইটে শোকপ্রকাশ প্রধানমন্ত্রীর

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: March 9, 2020 1:44 pm|    Updated: March 9, 2020 1:44 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দীর্ঘদিন ধরে কিডনির সমস্যায় ভোগার পর প্রয়াত হলেন ভারতের প্রাক্তন আইনমন্ত্রী হংসরাজ ভরদ্বাজ (Hans Raj Bhardwaj)। মৃত্যুর সময় বর্ষীয়ান এই কংগ্রেস নেতার বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। রবিবার সন্ধেয় দিল্লির মাক্স হাসপাতালে ভরতি থাকাকালীন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর মৃত্যুর খবর পাওয়ার পরেই টুইট করে শোকপ্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাঁর পরিবারের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানান। কংগ্রেস এবং অন্য রাজনৈতিক দলের তরফেও শোকপ্রকাশ করা হয়।

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, অনেকদিন ধরেই কিডনির বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছিলেন ২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত কর্ণাটকের রাজ্যপাল থাকা এই কংগ্রেস নেতা। গত বুধবার শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে দিল্লির সাকেত এলাকার মাক্স হাসপাতালে ভরতি করা হয়। প্রথমে চিকিৎসায় সাড়া দিলেও পরে পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। আর রবিবার সন্ধেয় সেখানেই মৃত্যু হয় তাঁর। সোমবার অর্থাৎ আজ বিকেলে দিল্লির নিগমবোধ ঘাটে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে বলে জানিয়েছেন হংসরাজের ছেলে অরুণ ভরদ্বাজ।

[আরও পড়ুন: নোট থেকেও করোনার আশঙ্কা! অর্থমন্ত্রীকে খতিয়ে দেখতে আবেদন ব্যবসায়ীদের ]

 

এদিকে প্রাক্তন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রীর মৃত্যুর খবর শুনেই টুইট করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। লেখেন, ‘দেশের প্রাক্তন আইনমন্ত্রী হংসরাজ ভরদ্বাজের প্রয়াণে আমি গভীর শোকাহত। তাঁর পরিবার ও পরিচিতদের আমার আন্তরিক সমবেদনা জানাই।’

কংগ্রেস নেতা ও প্রাক্তন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী সলমন খুরশিদ বলেন, ‘উনি অত্যন্ত স্বতন্ত্র মানসিকতার মানুষ ছিলেন। কংগ্রেস দলের অন্দরে থাকা প্রাচীন ধর্মনিরপেক্ষ ভাবধারায় বিশ্বাসী মানুষদের মধ্যে তাঁর স্থানে উপরের দিকেই ছিল। তাই আজকের এই মেকি ধর্মনিরপেক্ষতা দেখে তিনি খুব কষ্ট পেতেন। আর ব্যক্তিগতভাবে আমি ওনার একজন অনুরাগী ছিলাম। কারণ, ওনার থেকে অনেক কিছু শিখেছিলাম।’

[আরও পড়ুন: হোলির আগে ভূস্বর্গে বানচাল নাশকতার ছক, সোপিয়ানে খতম ২ জঙ্গি]

 

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ১৯৩৭ সালের ১৭ জন্মেছিলেন হংসরাজ ভরদ্বাজ। কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার পর ১৯৮২ সালের এপ্রিল মাসে প্রথম রাজ্যসভার সাংসদ নির্বাচিত হন। তারপর প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী, পিভি নরসিংমা রাও ও মনমোহন সিংয়ের আমলে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব সামলান। পরে ২০০৯ সাল থেকে ২০১৪ পর্যন্ত কর্ণাটকের রাজ্যপালের দায়িত্ব সামলে ছিলেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement