৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রেমের প্রস্তাবে সায় না দেওয়ায় বাইক চালিয়ে কিশোরীর মাথা পিষে দিল একদল যুবক৷ নৃশংস ঘটনার অভিযোগ নিতে অস্বীকার করে পুলিশ৷ তার জেরে প্রায় বিনা চিকিৎসাতেই ঘটনার দিন ছয়েক পর মৃত্যু হল কিশোরীর৷ যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যে পুলিশের উদাসীনতা নিয়ে উঠেছে সমালোচনার ঝড়৷

[আরও পড়ুন: শুধুমাত্র অধিকৃত কাশ্মীর নিয়েই পাকিস্তানের সঙ্গে কথা হবে, হুঁশিয়ারি রাজনাথের]

প্রতিদিন একাই স্কুল থেকে বাড়ি ফিরত বছর ষোলোর কিশোরী৷ অভিযোগ, বেশ কয়েকজন যুবক পথ আটকে প্রেম প্রস্তাব দিত তাকে৷ প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় উত্যক্ত করা হত কিশোরীকে৷ গত ৮ আগস্টও একই ঘটনা ঘটে৷ অভিযোগ, স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার সময় বাইকে চড়ে বেশ কয়েকজন যুবক তাকে লক্ষ্য করে এগোতে থাকে৷ নির্জন জায়গায় পথ আটকে দাঁড়ায় তারা৷ আবারও প্রেমের প্রস্তাব দেয়৷ তাতে রাজি হয়নি কিশোরী৷ কোনওক্রমে যুবকদের কাছ থেকে ফিরে আসার চেষ্টা করে সে৷ অভিযোগ, তখনই বাইকের ধাক্কায় পড়ে যায় ওই কিশোরী৷ তার মাথার উপর দিয়ে বাইক চালিয়ে দেওয়া হয়৷ মাটির সঙ্গে পিষে যায় মাথা৷

রক্তাক্ত অবস্থায় কিশোরীকে ফেলে রেখে ঘটনাস্থল ছেড়ে চম্পট দেয় অভিযুক্তরা৷ এদিকে, অনেকক্ষণ কেটে যাওয়ার পর মেয়ে কেন বাড়ি ফিরছে না এ বিষয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েন কিশোরীর বাবা-মা৷ তবে ততক্ষণে কানে আসে যে রাস্তায় রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে মেয়ে৷ দৌড়ে যান তাঁরা৷

প্রত্যক্ষদর্শীদের ভিড় ঠেলে কোনওক্রমে কিশোরীকে উদ্ধার করেন তার পরিজনেরা৷ নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে৷ থানায় এফআইআর দায়ের না হওয়া পর্যন্ত কিশোরীর চিকিৎসা সম্ভব নয় বলে সাফ জানিয়ে দেন চিকিৎসকেরা৷ তাই দৌড়ে যান সুলতানপুর থানায়৷ তবে কিশোরীর অভিভাবকের অভিযোগ, পুলিশ অভিযোগ নিতে অস্বীকার করে৷ বারবার অনুরোধ করেও কোনও লাভ হয়নি৷ অনেক কাকুতিমিনতির পর গত ১১ আগস্ট অভিযোগ জমা নেয় পুলিশ৷

[আরও পড়ুন: ছাদ চুঁইয়ে জল থইথই শতাব্দী এক্সপ্রেসের কামরা, রেনকোট পরে রেলযাত্রা খুদের]

এরপরই শুরু হয় কিশোরীর চিকিৎসা৷ টানা তিনদিন ধরে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে ওই স্কুলছাত্রী৷ ১৪ আগস্ট জীবনযুদ্ধে হার মানে সে৷ হাসপাতালেই মৃত্যু হয়৷ কিশোরীর পরিবারের অভিযোগ, ঘটনার দিনই পুলিশ এফআইআর নিলে আরও আগে চিকিৎসা শুরু হত৷ হয়তো প্রাণ বেঁচে যেত কিশোরীর৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং