৭ মাঘ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২১ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: লাগাতার যৌন নির্যাতন করত বাবা। এই কারণে বয়সে ছোট প্রেমিককে সঙ্গে নিয়ে তাকে কুপিয়ে খুন করল ১৯ বছরের দত্তক কন্যা। শুধু তাই নয়, খুনের পর তার গোপনাঙ্গ কেটে নিয়ে মৃতদেহটি টুকরো টুকরো করে। তারপর একটি ব্যাগ ও সুটকেসের মধ্যে পুরে নদীতে ভাসিয়ে দেয়। ঘটনাটি ঘটেছে মহারাষ্ট্রের ভাকোলা এলাকার দ্বারকা কুঞ্জে। অভিযুক্ত ওই যুবতী ও তার কিশোর প্রেমিককে গ্রেপ্তার করে জেরা করছে পুলিশ।

[আরও পড়ুন: ‘যোগী আসুন, নইলে শেষকৃত্য নয়’, দাঁতে দাঁত চেপে বলছে উন্নাওয়ে নিহত তরুণীর পরিবার]

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ভাকোলার বসন্তকুঞ্জ এলাকার একটি বাড়িতে থাকত মৃত ৫৯ বছরের বেনেট রেবেলো। বিয়ে না করলেও একটি মেয়েকে দত্তক নিয়েছিল সে। কিন্তু, মেয়েটি কিশোরী হওয়ার পরে থেকেই বেনেট যৌন নির্যাতন করত বলে অভিযোগ। এই রাগে গত ২৭ নভেম্বর রাতে কুমারী আরাধ্যা জিতেন্দ্র পাটিল ওরফে রিয়া (১৯) নামে ওই যুবতী ১৬ বছরের প্রেমিককে নিয়ে বেনেটের উপর চড়াও হয়। তাকে বাঁশ দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। ছুরি দিয়ে কোপায়। তখনও বেঁচে ছিল বেনেট। তাই দেখে তার মুখে মশা মারার তেল ঢেলে দেয় রিয়া। তারপর সে মারা গিয়েছে নিশ্চিত হওয়ার পর গোটা শরীরটা পিস পিস করে কাটে। আর সেই টুকরোগুলি ব্যাগ ও সুটকেসে ভরে স্থানীয় একটি নদীতে ভাসিয়ে দেয়। সেই সুটকেস ও ব্যাগগুলি পুলিশের হাতে পরতেই তল্লাশি শুরু হয়। শনিবার ধরা পড়ে রিয়া ও তার প্রেমিক।

এপ্রসঙ্গে ওই যুবতী রিয়া জানায়, তার সঙ্গে ১৬ বছরের এক কিশোরের ভালবাসার সম্পর্ক ছিল। কিন্তু, তার সৎ বাবা সেই সম্পর্কে রাজি ছিল না। প্রথমদিকে সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসার জন্য চাপও দিয়েছিল। কিন্তু, তা শোনেনি রিয়া। এরপর থেকেই তার ওপর লাগাতার যৌন নির্যাতন করতে থাকে বেনেট। এই অবস্থার হাত থেকে মুক্তি পেতে বয়সে ছোট প্রেমিকের সঙ্গে যুক্তি করে সৎ বাবাকে খুন করে।

[আরও পড়ুন: প্রধান শিক্ষিকার স্বামীর যৌন লালসার শিকার, তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা নাবালিকা]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং