BREAKING NEWS

১৪ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৮ মে ২০২০ 

Advertisement

স্বামী ও স্ত্রীর মারামারির জের, লাঠির ঘায়ে মৃত ৫ মাসের সন্তান

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: October 10, 2019 6:48 pm|    Updated: October 10, 2019 6:48 pm

An Images

ছবিটি প্রতীকী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: স্বামী ও স্ত্রীর মারামারির জেরে প্রাণ হারাল পাঁচ মাসের একরত্তি শিশু। মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব দিল্লির কোন্দলি এলাকায়। অনিচ্ছাকৃত খুনের অভিযোগে মামলা দায়ের করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। আর তারপর থেকেই পলাতক শিশুটির বাবা। তার সন্ধানে বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালানো হচ্ছে।

[আরও পড়ুন: আর্থিক তছরূপের অভিযোগ, কর্ণাটকের প্রাক্তন উপমুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে আয়কর হানা]

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গত রবিবার রাতে আচমকা ২৯ বছরের দীপ্তি আর তাঁর স্বামী ৩২ বছরের সত্যজিতের মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়। ঝগড়া থেকে লেগে যায় মারামারিও। এর মাঝে পাশে থাকা একটি লাঠি তুলে দীপ্তিকে মারতে থাকে সত্যজিৎ। লাঠিটিতে একটি পেরেক ছিল। স্ত্রীকে মারার সময় হঠাৎ সেটি দীপ্তির কোলে থাকা পাঁচ মাসের সন্তানের মাথায় লাগে। এর জেরে গুরুতর জখম হয় একরত্তি শিশুটি। প্রথমে দীপ্তি ও সত্যজিৎ বাড়িতে প্রাথমিক চিকিৎসা শুরু করে তার। পাশে থাকা একটি সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রেও নিয়ে যায়। কিন্তু, তারপরও সুস্থ হয়নি শিশুটি। উলটে মঙ্গলবার থেকে আরও অবস্থা খারাপ হয় তার শরীরের। ক্রমাগত বমি করতে থাকে। পরিস্থিতির গুরুত্ব বুঝতে পেরে সঙ্গে সঙ্গে পূর্ব দিল্লির একটি বেসরকারি হাসপাতালে তাকে নিয়ে যায় দীপ্তি। সেখানে পৌঁছনোর পর কর্তব্যরত চিকিৎসকরা শিশুটিকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

ময়নাতদন্তের রিপোর্ট অনুযায়ী, সজোরে আঘাত লাগার ফলে শিশুটির মাথায় রক্ত জমাট বেঁধে গিয়েছিল। সময়মতো চিকিৎসা না হওয়ার কারণে পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়ে গিয়েছিল। এর ফলেই ওই ছোট্ট শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। কোলের সন্তানের মৃত্যুর পরেই বুধবার সত্যজিতের বিরুদ্ধে গাজিপুর থানায় এফআইআর করে দীপ্তি। এর ভিত্তিতে তদন্তও শুরু করে পুলিশ। কিন্তু, এখনও পর্যন্ত অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা যায়নি।

[আরও পড়ুন:মহিলাকে সম্মোহন করে ধর্ষণের চেষ্টা, অভিযুক্ত আমাজনের ডেলিভারি বয়]

এই ঘটনার প্রেক্ষিতে মানসিক রোগের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়ার ঘটনা নতুন কিছু নয়। দেব-দেবী থেকে সাধারণ ঘরের কর্তা-গিন্নি, সবার জীবনেই ছোটখাট মনোমালিন্যকে কেন্দ্র করে বচসা হয়েছে। অনেকের মতে, রান্নাঘরে থাকা বাসনেও ঠোকাঠুকি হয়। স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে হওয়া গন্ডগোল অনেকটা সেরকমই। এতে নাকি ভালবাসা আরও বাড়ে! কিন্তু, এই ঝগড়ার জেরে যদি তাদের একরত্তি সন্তানের প্রাণ চলে যায়! তখনও কি একে-অপরের প্রতি ভালবাসা বৃদ্ধি পাবে? না সারাজীবন ধরে আক্ষেপ ও আফশোসের করাল অন্ধকারে অতিবাহিত হবে তাদের জীবন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement