BREAKING NEWS

২০ শ্রাবণ  ১৪২৭  বুধবার ৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

পরপর ২ দিন ব্যাংক ধর্মঘটের ডাক, ভোগান্তির আশঙ্কা গ্রাহকদের

Published by: Sayani Sen |    Posted: January 15, 2020 4:43 pm|    Updated: January 15, 2020 4:43 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের ব্যাংক ধর্মঘটের পথে ব্যাংক অফিশার্স অ্যাসোসিয়েশন। দেশজুড়ে টানা দু’দিন ব্যাংক ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন সদস্যরা। ৩১ জানুয়ারি এবং ১ ফেব্রুয়ারি ব্যাংক ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন তাঁরা। বেতন কাঠামোর পুনর্বিন্যাস, সপ্তাহে পাঁচদিন কাজ-সহ একাধিক দাবিতে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন ব্যাংক কর্মচারী সংগঠনের সদস্যরা। এটিএমও ধর্মঘটের আওতাধীন। তাই দু’দিন ধর্মঘট এবং তার পরেরদিন রবিবার হওয়ায় ভোগান্তির আশঙ্কা গ্রাহকদের।

সংযুক্তিকরণের প্রতিবাদ, বেতন কাঠামোর পুনর্বিন্যাস, সপ্তাহে পাঁচদিন কাজ-সহ একাধিক দাবিতে ফের ব্যাংক ধর্মঘটের পথে ব্যাংক অফিশার্স অ্যাসোসিয়েশন। আগামী ৩১ জানুয়ারি, শুক্রবার এবং ১ ফেব্রুয়ারি, শনিবার ব্যাংক ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন তাঁরা। পরেরদিন ২ ফেব্রুয়ারি, রবিবার হওয়ায় পরপর তিনদিন মিলবে না ব্যাংকিং পরিষেবা। এটিএমগুলিও ধর্মঘটের আওতাভুক্ত বলেই দাবি ব্যাংক অফিশার্স অ্যাসোসিয়েশনের। তাতেও দাবিপূরণ না হলেও আগামী ১১ থেকে ১৩ মার্চ পর্যন্ত বিক্ষোভে শামিল হবেন ব্যাংক অফিশার্স অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা। তারপরেও দাবিপূরণ না হলে আগামী ১ এপ্রিলও ধর্মঘট করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে সেদিনও কোনও সমাধান সূত্র না মিটলে তারপর থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ব্যাংক ধর্মঘটের হুঁশিয়ারি ব্যাংক অফিশার্স অ্যাসোসিয়েশনের।

[আরও পড়ুন: মধ্যবিত্তের চিন্তা বাড়িয়ে ফিক্সড ডিপোজিটে ফের সুদ কমাল SBI]

এর আগেও বেতন কাঠামোর পুনর্বিন্যাস এবং সংযুক্তিকরণের প্রতিবাদে ব্যাংক ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে ব্যাংক অফিশার্স অ্যাসোসিয়েশন। গত বছর পুজোর মুখে ২৬ এবং ২৭ সেপ্টেম্বর ব্যাংক ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছিল। তবে গ্রাহকদের অসুবিধার কথা মাথায় রেখে ব্যাংক ধর্মঘট স্থগিত করে দেওয়া হয়। পুজোর পরেও দাবিপূরণ না হওয়ায় এরপর ২২ অক্টোবর ব্যাংক ধর্মঘটে শামিল হয় ইন্ডিয়া ব্যাংক এমপ্লয়িজ অ্যাসোসিয়েশন, ব্যাংক এমপ্লয়িজ অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়া, অল ইন্ডিয়া ট্রেড ইউনিয়ন কংগ্রেস নামে ৩টি কর্মী সংগঠন। ব্যাংকিং পরিষেবা না পাওয়ায় ভোগান্তির শিকার হন গ্রাহকরা। এবারও দু’দিন ধর্মঘট এবং তার পরেরদিন রবিবার হওয়ায় গ্রাহকদের ভোগান্তির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement