BREAKING NEWS

২০ শ্রাবণ  ১৪২৭  বুধবার ৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

প্রচারের চাপে দিশেহারা রবি কিষেণ, মেজাজ হারিয়ে বিজেপি বিধায়ককেই গালিগালাজ

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: May 14, 2019 8:39 pm|    Updated: May 14, 2019 8:39 pm

An Images

দীপঙ্কর মণ্ডল, গোরক্ষপুর: তিনি মহাতারকা। ভোজপুরি চলচ্চিত্রে এক নম্বরে নাম। বলিউড মেন স্ট্রিম ছবিতেও বেশ নজর কেড়েছেন রবি কিষেণ। নজর কেড়েছেন একটি জনপ্রিয় রিয়ালিটি শো-তেও। স্বাভাবিকভাবেই মেজাজ তাঁর পুরনো সঙ্গী। তারকা হওয়ার অহমিকা যে তাঁর ছিল, সেকথা নিজেই স্বীকার করেছেন অভিনেতা। কিন্তু, তা বলে ভোটপ্রচারে গিয়ে নিজের দলের বিধায়ককেই গালিগালাজ! দিগভ্রান্ত হয়ে সমর্থকদের কুকথা! তা কি শোভা পায়? হয়তো পায় না। কিন্তু গোরক্ষপুরের বিজেপি প্রার্থী রবি কিষেণ এমনটাই করে বসলেন।

[আরও পড়ুন: প্রিয়াঙ্কার কনভয় লক্ষ্য করে ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান, কী করলেন রাজীবতনয়া?]

মঙ্গলবার সকাল সকালই নিজের লোকসভা কেন্দ্রে প্রচারে বেরিয়েছিলেন বিজেপি প্রার্থী তথা ভোজপুরি সুপারস্টার রবি কিষেণ। সকাল থেকেই তাঁর প্রচার সঙ্গী ছিল সংবাদ প্রতিদিন। গোরক্ষপুর শহর এবং আশেপাশে প্রচার চলাকালীন জনসংযোগের সাধ্যমতো চেষ্টাও করলেন বিজেপি প্রার্থী। কখনও ভোটারদের দিকে হাত নেড়ে, কখনও তাঁর ভোজপুরি ছবির জনপ্রিয় সংলাপ আওড়ে মানুষের কাছে পৌঁছে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন রবি কিষেণ।

মানুষের মধ্যে বেশ সাড়াও মিলেছিল। কিন্তু বিধি বাম। হঠাৎই বিপত্তি। জানা গেল, প্রচারের ঝোঁকে একই রাস্তায় তাঁর কনভয় চলে এসেছে তৃতীয়বার। এমনিতেই, ভোটের আগে সময় কম। তার উপর প্রত্যেক ভোটারের কাছে পৌঁছে যাওয়ার কঠিন চ্যালেঞ্জ। এর মধ্যে যদি একই এলাকায় তিনবার যেতে হয়, তাহলে মেজাজ হারানোটাই হয়তো স্বাভাবিক। রবি কিষেণের সব রাগটি গিয়ে পড়ল স্থানীয় বিধায়কের উপর। একজন সমর্থককে জিজ্ঞেস করলেন এখানকার বিধায়ক কে? উত্তর এল রাধামোহন দাস। সঙ্গে সঙ্গে ওই বিধায়কের উদ্দেশ্যে অশ্রাব্য গালিগালাজ করতে শোনা গেল তাঁকে। (ভিডিওতে দেখুন)

[আরও পড়ুন: একের পর সভা করে মোদিকে তোপ, কণ্ঠ হারাতে পারেন সিধু]

রাধামোহন দাস আগরওয়াল, ২০০২ থেকে গোরক্ষপুর শহর কেন্দ্রের বিধায়ক। প্রথমবার হিন্দু মহাসভার টিকিটে বিধায়ক হন। তারপর যোগী আদিত্যনাথের হাত ধরেই বিজেপিতে আসনে। এবং পরপর ৩ বার বিধায়ক নির্বাচিত হন। এলাকায় বেশ জনপ্রিয় তিনি। এ হেন জনপ্রিয় বিধায়কের উদ্দেশ্যে তাঁর এই গালিগালাজ, অসম্মান প্রদর্শন যে মোটেই সমর্থনযোগ্য নয়, সেকথা হয়তো রবি কিষেণ নিজেও স্বীকার করবেন। এখন দেখার স্থানীয় সম্মানীয় বিধায়ককে গালিগালাজ করার কোনও প্রভাব ব্যালটবক্সে পড়ে কিনা সেটাই এখন দেখার।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement