১০ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৬ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ভরসা ‘ভোট কাটোয়া’ ওয়েইসি! এক্সিট পোলের পরও বিহার দখলের আশা ছাড়ছে না বিজেপি

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: November 8, 2020 10:55 am|    Updated: November 8, 2020 12:17 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিহার বিধানসভা নির্বাচনের এক্সিট পোলের ফলাফল প্রকাশ্যে এসেছে। দু-একটি বাদে অধিকাংশ বুথ ফেরত সমীক্ষাই তেজস্বী যাদবের (Tejashwi Yadav) নেতৃত্বাধীন মহাজোটের ক্ষমতায় আসার ইঙ্গিত দিয়েছে। যদিও বিজেপি এখনই হার মানতে নারাজ। তারা দাবি করছে, সমস্ত এক্সিট পোলকে ভুল প্রমাণ করে বিহারে ফের সরকার গড়বে এনডিএ-ই। মনোজ তিওয়ারি, অশ্বিনীকুমার চৌবের মতো বিজেপি নেতারা বলছেন, আমরা এখনও নিশ্চিত বিহারে আমাদের সরকার হবে।

তবে, গেরুয়া শিবিরের নেতারা একটা জিনিস স্বীকার করে নিয়েছেন। সেটা হল, মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠান বিরোধিতা কাজ করছে। আর সেকারণে প্রত্যাশার তুলনায় খারাপ ফল হবে গেরুয়া শিবিরের। প্রয়োজনে নীতীশ কুমারকে (Nitish Kumar) সরিয়ে নিজেদের দলের কাউকে মুখ্যমন্ত্রী করা হতে পারে বলেও ইঙ্গিত দিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অশ্বিনীকুমার চৌবে (Ashwini Kumar Choubey)। এক সংবাদমাধ্যমে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেছেন,”বিহারে আমাদেরই সরকার হবে। আমার ব্যক্তিগত মত, জয়ী বিধায়করা কাউকে নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে বেছে নেবেন। তিনি দলিত, মহাদলিত বা স্ব-বর্ণ হতে পারেন। সেক্ষেত্রে নীতীশ কুমারকে দিল্লিতে ডেকে নেওয়া হতে পারে। তবে আমরা এখনও আশাবাদী, নীতীশের নেতৃত্বেই বিহারে এনডিএ জিতবে।” একই কথা বলছেন বিজেপি নেতা মনোজ তিওয়ারি। তাঁর দাবি, “বিহারে আসল খেলাটা খেলবে মৌন ভোটাররা, মহিলারা। কারণ, মহিলারা সাধারণত কোনও এক্সিট পোলে অংশ নেন না। আর এঁরা নীতীশের কাজে খুব খুশি।” অন্যান্য বিজেপি নেতারাও এখনও জয়ের ব্যপারে আত্মবিশ্বাস দেখাচ্ছেন।

[আরও পড়ুন: এক্সিট পোলের ফলের পরই মধ্যপ্রদেশে শুরু বিধায়ক কেনাবেচা! এবার কাঠগড়ায় কংগ্রেস]

কিন্তু কোন সমীকরণে বিজেপির (BJP) এত আত্মবিশ্বাস? আসলে গেরুয়া শিবির ধরেই নিয়েছে নীতীশ কুমারের বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠান বিরোধিতা কাজ করছে। তাই একপেশে জয় তাঁদের পক্ষে পাওয়া সম্ভব না। তবে তাঁদের আশা, সরকার বিরোধী সব ভোট একপেশেভাবে আরজেডি(RJD)-কংগ্রেস মহাজোট পাবে না। মুসলিম, দলিত ভোটের একটা বড় অংশ যাবে কুশওয়াহা, ওয়েইসি এবং মায়াবতীর জোট শিবিরে। বিশেষ করে সংখ্যালঘু ভোটের একটা বড় অংশ ওয়েসির এআইএমআইএমকে সমর্থন করবে বলেই ধারণা বিজেপির। অধিকাংশ এক্সিট পোলেই এই কুশওয়াহা, ওয়েইসি এবং মায়াবতীর মহাজোট শিবিরের মাত্র ২-৪ শতাংশ ভোট পাওয়ার ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে। গেরুয়া শিবির আশাবাদী, ওই ভোটটা অন্তত ৬-৭ শতাংশ হবে। আর সেটা হলেই একধাক্কায় অনেকটা কমে যাবে মহাজোটের আসনসংখ্যা। তাছাড়া মহিলা ভোটারদের একটা বড় অংশ নীতীশ কুমারের সঙ্গে যাবে বলেও ধারণা গেরুয়া শিবিরের। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement