১৯ অগ্রহায়ণ  ১৪২৯  মঙ্গলবার ৬ ডিসেম্বর ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

চিকিৎসার নামে চুরি গেল দু’টি কিডনি! প্রতারক ডাক্তারের কিডনি চাইলেন মহিলা

Published by: Kishore Ghosh |    Posted: November 17, 2022 11:40 am|    Updated: November 17, 2022 11:41 am

Bihar Woman Alleges Her Kidneys Fraudulently Removed she Wants Doctor's Organs | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তাঁর দু’টি কিডনি (Kidney) চুরি করেছে বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক। ওই চিকিৎসকের কিডনি নিয়েই তাঁর শরীরের স্থাপন করতে হবে, দাবি জানালেন বিহারের (Bihar) এক মহিলা। অভিযোগ, জরায়ুর অস্ত্রোপচারের নামে দু’টি কিডনি বাদ দেওয়া হয় মহিলার। চাঞ্চল্যকর অভিযোগ, তৎসহ দাবিতে শোরগোল পড়ে গিয়েছে নীতীশকুমারের রাজ্যে। পুলিশ ঘটনার তদন্তে নেমে গ্রেপ্তার করেছে অভিযুক্ত চিকিৎসককে। 

৩৮ বছরের সুনীতা দেবী মুজফ্‌ফরপুরের বেরিয়ারপুর গ্রামের বাসিন্দা। তিনি দাবি করেন, গত ৩ সেপ্টেম্বর স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে জরায়ুর অস্ত্রোপচারের জন্য ভরতি হন। তখনই তাঁর অজান্তে চিকিৎসক তাঁর কিডনি বাদ দেয়। সুনীতার অভিযোগ, বেআইনি অঙ্গ পাচারের কারবারে যুক্ত ওই চিকিৎসক। এদিকে অস্ত্রোপচারের কিছু পরে মহিলার অসম্ভব পেটে ব্যথা শুরু হয়। এরপর মুজাফফরপুরে অবস্থিত সরকারি শ্রী কৃষ্ণ মেডিক্যাল কলেজ এবং হাসপাতালে ভরতি হন তিনি। সেখানে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে পরীক্ষা করে জানা যায় সুনীতি দেবীর শরীরে দু’টি কিডনিই নেই। দ্রুত তাঁকে পাটনায় (Patna) অবস্থিত ইন্দিরা গান্ধী ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সেস (Indira Gandhi Institute of Medical Sciences) স্থানান্তরিত করা হয়। সেখানে চিকিৎসার পরে ফের মুজাফফরপুর এসকেএমসিএইচ (SKMCH) হাসপাতালে পাঠানো হয়। বর্তমানে সেখানে প্রতিদিন ডায়ালিসিস (Dialysis) করতে হচ্ছে সঙ্কটজনক সুনীতা দেবীকে।

[আরও পড়ুন: আর মাস্ক পরা বাধ‌্যতামূলক নয় বিমানেও, করোনা সংক্রমণ তলানিতে নামতেই সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের]

ইন্দিরা গান্ধী ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সেসের তরফে জানানো হয়েছে, বর্তমানে নিয়মিত ডায়ালিসিস করত হচ্ছে অসুস্থ মহিলাকে। উপযুক্ত কিডনির সন্ধান পেলে তাঁর শরীরে স্থাপন করা হবে। এদিকে নিজের দু’টি কিডনি হারানো মহিলা ও তাঁর পরিবার বেসরকারি হাসপাতালের ওই চিকিৎসককে কঠিন শাস্তি দাবি করেন। সুনীতা দেবীর আরও দাবি, অভিযুক্ত ডাক্তারের দু’টি কিডনি নিয়ে তাঁর শরীরে প্রতিস্থাপন করতে হবে।

[আরও পড়ুন: ওদের বন্দি রাখা গ্রহণযোগ্য নয়, পথকুকুরদের দত্তকে ‘আপত্তি’ সুপ্রিম কোর্টের]

রোগীর পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে বেসরকারি হাসপাতাল এবং তাঁর মালিক পবন কুমারের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের হয়। তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে ওই বেসরকারি হাসপাতালটি অবৈধ উপায়ে চালানো হচ্ছিল। অভিযুক্ত চিকিৎসকের যাবতীয় শংসাপত্র ভুয়োয়। ইতিমধ্যে অভিযুক্ত চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে