২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‌বিহারে বিরোধীদের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী লালুপুত্র তেজস্বীই, ঘোষণা মহাজোটের

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: October 3, 2020 8:07 pm|    Updated: October 3, 2020 8:07 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:‌ জল্পনা ছিলই। সেই জল্পনাকে সত্যি করে আসন্ন বিহারের বিধানসভা নির্বাচনের (Bihar Election 2020) আগে বিরোধী মহাজোট জানিয়ে দিল, এবারের নির্বাচনে বিরোধীদের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হতে চলেছেন লালু প্রসাদ যাদবের পুত্র তরুণ তুর্কি তেজস্বী যাদবই (Tejashwi Yadav)। শনিবার বিরোধী মহাজোটের শীর্ষনেতৃত্বরা একটি সাংবাদিক সম্মেলন করেন। সেখানেই তেজস্বীর নাম জোটের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করা হয়। পাশাপাশি জানিয়ে দেওয়া হয়, বিরোধী জোটের আসন নিয়ে সমঝোতাও হয়ে গিয়েছে।

[আরও পড়ুন:‌‌ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে জোর, মায়ানমার সফরে যাচ্ছেন ভারতের বিদেশসচিব ও সেনাপ্রধান]

জানা গিয়েছে, ২৪৩ আসন সম্বলিত বিহার বিধানসভা নির্বাচনে বিরোধী মহাজোটের মুখ্য দল লালপ্রসাদের RJD লড়বে ১৪৪টি আসনে। কংগ্রেসকে (Congress) দেওয়া হবে ৭০টি আসন। এছাড়া বাল্মীকি নগর লোকসভা আসনের উপনির্বাচনেও বিরোধীদের হয়ে প্রার্থী দেবে কংগ্রেস। এছাড়া CPI (M)‌ এবং CPI-কে দেওয়া হচ্ছে যথাক্রমে চার এবং ছ’‌টি আসন। CPI-ML পাবে ১৯টি আসনে লড়ার সুযোগ। তবে বিকাশশীল ইনসান পার্টি এবং ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চাকে পরবর্তীতে আরজেডি নিজেদের থেকেই আসন ছেড়ে দেবে। এমনটাই জানানো হয়। এর পাশাপাশি সাংবাদিক সম্মেলনে তেজস্বীকেই মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করার কথাও জানিয়ে দেওয়া হয়। যদিও মাঝে একপ্রস্থ নাটকও হয়। আসন সমঝোতার কথা ঘোষণা হতেই মঞ্চ ছেড়ে উঠে পড়েন বিকাশশীল ইনসান পার্টির মুকেশ সাহানি। স্পষ্ট বোঝা যায় এই সমঝোতায় খুশি নন তিনি। এরপর উপস্থিত সাংবাদিকদের উদ্দেশে তাঁকে বলতে শোনা যায়, ‘‌‘‌আমাদের পিছন থেকে ছুরি মারা হয়েছে। আমরা আর এই মহাজোটে নেই।’‌’ ‌‌এরপরই সাংবাদিক সম্মেলন থেকে বেরিয়ে যান। পাশাপাশি জানান, রবিবার আলাদা করে সাংবাদিক সম্মেলন করবেন তিনি।

 

উল্লেখ্য, আগামী ২৯ নভেম্বর শেষ হচ্ছে বিহারের বর্তমান সরকারের মেয়াদ। ২৪৩ আসনের বিহার বিধানসভার ৩৮ টি আসন তপশিলি জাতির জন্য এবং ২ টি আসনের তপশিলি উপজাতির জন্য সংরক্ষিত। প্রথম দফায় ১৬টি জেলার ৭১ আসনে নির্বাচন হবে ২৮ অক্টোবর। দ্বিতীয় দফায় ১৭ দফার ৯১ টি আসনে নির্বাচন হবে ৩ নভেম্বর। তৃতীয় দফার ১৫ জেলার ৭৮ আসনে ভোট হবে ৭ নভেম্বর।করোনা আবহে যেখানে গোটা বিশ্বের ৭০ টি দেশ বিভিন্ন নির্বাচন পিছিয়ে দিয়েছে, সেখানে এদেশের কমিশন সতর্কতা অবলম্বন করেই নির্বাচনের পথে হাঁটল। মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরা ঘোষণা করেছেন, করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে কমিশন সবরকম সচেতনতা বজায় রাখবে।

[আরও পড়ুন:‌‌ আনলক ৫: স্কুল খুললে মানতে হবে একাধিক বিধিনিষেধ, নয়া গাইডলাইন প্রকাশ কেন্দ্রর]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement