BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

হিসেব-নিকেশ সারা, আগামী সপ্তাহেই দ্বিতীয় আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করতে পারে কেন্দ্র

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: May 10, 2020 9:36 am|    Updated: May 10, 2020 9:36 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: লকডাউনের ধাক্কায় বেলাইন অর্থনীতিকে সঠিক রাস্তায় ফেরাতে ইতিমধ্যেই ১ লক্ষ ৭০ হাজার কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে মোদি (Narendra Modi) সরকার। ভারতের মতো বৃহৎ জনসংখ্যার দেশে তা সামান্যই। তাছাড়া সেই প্যাকেজ ঘোষণার পর দু’বার বেড়েছে লকডাউনের মেয়াদ। কিন্তু নতুন করে প্যাকেজ আর ঘোষিত হয়নি। দেশের একটা বড় অংশের মানুষ এখন পেটের দায়ে অপেক্ষা করছে সরকারের আর্থিক প্যাকেজের। সেই অপেক্ষার অবসান ঘটতে চলেছে শীঘ্রই। সব ঠিক থাকলে আগামী সপ্তাহেই ঘোষিত হবে মোদি সরকারের দ্বিতীয় আর্থিক প্যাকেজ।

অর্থমন্ত্রক সুত্রের খবর, সরকার সব সেক্টরকেই পরিকল্পিতভাবে এই প্যাকেজের আওতায় আনতে চাইছে যাতে সীমিত ক্ষমতাকেই পুরোপুরি ব্যবহার করা যায়। তবে প্রাথমিক লক্ষ্য থাকবে গ্রামীণ অর্থনীতি, অসংগঠিত ক্ষেত্র এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (Small and Medium Enterprises) এবং সেইসব বড় শিল্পক্ষেত্র যা সরাসরি মানুষের জীবনে প্রভাব ফেলে। সপ্তাহখানেক আগেই এ নিয়ে যাবতীয় আলোচনা হিসেব নিকেশ সারা হয়ে গিয়েছে। এমাসের ২ তারিখ অর্থমন্ত্রকের আধিকারিকরা জরুরি বৈঠক করে যাবতীয় আলোচনা সেরে ফেলেছেন।

[আরও পড়ুন: করোনার মার, আর্থিক ধাক্কা সামলাতে ১২ লক্ষ কোটি টাকা ঋণ নেবে কেন্দ্র]

তবে প্যাকেজ ঘোষিত না হওয়ার কারণ কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠক না হওয়া। অর্থমন্ত্রকের কর্তারা বলছেন, এই প্যাকেজে এমন কিছু প্রস্তাব আছে যা ঘোষণা হওয়ার আগে মন্ত্রিসভার অনুমোদন প্রয়োজন। কিন্তু গত ২ সপ্তাহ ধরে মন্ত্রিসভার কোনও বৈঠক হয়নি। ফলে এই প্রস্তাবগুলি পাশ করানো যায়নি। আগামী বুধবার মন্ত্রিসভার বৈঠক আছে, সেদিনই প্রস্তাবগুলি পাশ করিয়ে ঘোষণা করা হতে পারে দ্বিতীয় প্যাকেজ। সেই উদ্দেশ্যে সোমবারই ব্যাংক কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ (Niramala Sitharaman)। এই প্যাকেজের পরিমাণ কী হবে, তা নিয়ে অবশ্য এখনও ধোঁয়াশা অব্যাহত। সুত্রের খবর আমেরিকা বা ব্রিটেনের মতো জিডিপির ১০ বা ১৫ শতাংশ না হলেও প্রথম প্যাকেজের মতোই বড়সড় প্যাকেজ ঘোষণা করতে পারে সরকার। বিরোধীরা দাবি জানিয়ে আসছে, এমনভাবে আর্থিক সাহায্য ঘোষণা করতে হবে যাতে সমাজের নিচুতলার ৩০-৪০ শতাংশ মানুষ এর সুবিধা পান।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement